দুঃসংবাদ ক্রিকেট ভক্তদের জন্য! এই ঐতিহাসিক টেস্ট সিরিজে খেলা হচ্ছেনা ভারতের 1

দুঃসংবাদ ক্রিকেট ভক্তদের জন্য! এই ঐতিহাসিক টেস্ট সিরিজে খেলা হচ্ছেনা ভারতের 2

ভারত বনাম সাউথ আফ্রিকার মধ্যে বক্সিং ডে টেস্ট ২৬ ডিসেম্বর শুরুর কথা থাকলেও এবার সেটি যথাসময়ে হচ্ছে না! ভারত দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে যাবে এই বছরের শেষ সপ্তাহে। তাই বক্সিং ডেতে ভারত যে সেখানে থাকতে পারছে না সেটি জানিয়ে দিয়েছে ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড (বিসিসিআই)। বোর্ডের একজন কর্মকর্তা ক্রিকইনফোকে এভাবেই বললেন সেই কথা, ‘আমরা যথাসময়ে হয়তো সেটা পারবো না। কারণ শ্রীলঙ্কার সফরই শেষ হবে আগামী ২৪ ডিসেম্বর। এরপর কিছুদিন ছেলেদের বিশ্রাম প্রয়োজন। আর এই সফর খুব বড় হবে দেখেই প্রথম টেস্টের আগে প্রস্তুতি ম্যাচসহ ১০ দিনের একটা সময় প্রয়োজন।’ভারতের ব্যস্ততায় এবার যে দক্ষিণ আফ্রিকায় বক্সিং ডে টেস্ট হচ্ছে না- সেটা অনুমান করা হয়েছিল আগেই। কারণটা অবশ্য শ্রীলঙ্কার সঙ্গে একই বছরে দুইবার সিরিজ! চলমান সফর শেষেই শ্রীলঙ্কার সঙ্গে হোম সিরিজ খেলবে ভারত। সেই সিরিজ শেষ হবে ডিসেম্বরের ২৪ তারিখ। তাই প্রোটিয়া মৌসুমের মূল পর্বই এবার ভেস্তে যাচ্ছে।

সূচি সংক্রান্ত এই ঝামেলার বিষয়টি ইতোমধ্যে দক্ষিণ আফ্রিকাকে জানিয়ে দিয়েছে বিসিসিআই। বলা হচ্ছে, আগামী সপ্তাহেই জটিলতাগুলো কেটে যাবে। তারপরেও বসে থাকার পাত্র নয় দক্ষিণ আফ্রিকার বোর্ড। বক্সিং ডে- আলাদাভাবেই মর্যাদাবহন করে প্রোটিয়াদের ক্রিকেটে। তাই সেই সময়ে ভিন্ন কোনও দেশকে আনিয়ে একটি টেস্ট খেলানোর চিন্তায় রয়েছে তারা। সেক্ষেত্রে পাকিস্তান অথবা আফগানিস্তানকেই আনা হতে পারে।

উল্লেক্য যে, বক্সিং খেলার মতো কোনো মারমুখী ‘অতীত’ জড়িয়ে নেই বক্সিং ডের সঙ্গে; বরং আছে এক মহতী উদ্যোগ। প্রথাগত ভাবে বক্সিং ডে বলতে বোঝানো হয় ক্রিসমাস বা বড়দিনের পরের দিনটিকে। অর্থাত্ ২৬ ডিসেম্বর। খ্রিষ্টান ধর্মাবলম্বীদের সামর্থ্যবানেরা বক্স বা বাক্সে করে এদিন গরিব-দুঃখীদের মাঝে বিভিন্ন উপহার ও টাকা-পয়সা বিতরণ করে থাকেন। কখনো-বা প্রার্থনা শেষে চার্চের বাইরে রাখা বাক্সে দান বা অনুদান সংগ্রহ করা হয় গরিবদের মাঝে বিতরণের উদ্দেশ্যে। এ কারণেই ২৬ ডিসেম্বর দিনটা ‘বক্সিং ডে’। বক্সিং ডের সঙ্গে বক্সিং খেলাটির কোনো সম্পর্ক না থাকলেও উষ্ণ সম্পর্ক আছে ক্রিকেট, ফুটবল, রাগবি, হকি, ঘোড়দৌড়, হান্টিংসহ বক্সিং বাদে অন্যান্য বেশ কিছু খেলার। ছুটির দিনের দর্শকদের আনন্দ দিতে এ দিন পুরোদমে চলে ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগ। ইংল্যান্ড, আয়ারল্যান্ড, স্কটল্যান্ডে, অস্ট্রেলিয়া বা নিউজিল্যান্ডে জনপ্রিয় ঘোড়দৌড়ের পাশাপাশি চলে রাগবি বা আইস হকি লিগের খেলাগুলোও। তবে ক্রিকেটপ্রেমীদের কাছে বক্সিং ডের মাহাত্ম্য বক্সিং ডে টেস্টের মাঝেই নিহিত।

১৯৫০ সাল থেকে অনুষ্ঠিত হয়ে আসছে এই ঐতিহ্যবাহী ম্যাচ। মাঝখানে ছাড়া ছাড়া  ভাবে বছর ৩০ চললেও ১৯৮০ সাল থেকে প্রতিবছর নিয়ম করে অনুষ্ঠিত হচ্ছে এই বক্সিং ডে টেস্ট ম্যাচ প্রতি চার বছর অন্তর অ্যাশেজের একটি ম্যাচ বক্সিং ডেতে হয়ে থাকে। অস্ট্রেলিয়া ছাড়াও ওয়েলিংটনের বেসিন রিজার্ভে নিউজিল্যান্ডেও বক্সিং ডে টেস্ট আয়োজন করা হতো। তবে কয়েক বছর ধরে বক্সিং ডেতে টেস্ট ম্যাচের পরিবর্তে নিউজিল্যান্ড টি-টোয়েন্টি এবং একদিনের ম্যাচেই বেশি মনোযোগী। অস্ট্রেলিয়ার মতো এতটা ঐতিহ্য মেনে না হলেও দক্ষিণ আফ্রিকাও বক্সিং ডে টেস্ট শুরু করে দিয়েছে। সাধারণত এটা ডারবানের কিংসমিডের সাহারা স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত হয়।

Nazmus Sajid

Sports Fanatic!

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *