“আর কখনো পারবে বলে মনে হয় না…” কোহলির জোড়া ছক্কায় ভাঙলেও মচকাতে রাজী নন হ্যারিস রউফ !! 1

২০২২ সালটা ক্রিকেটের বাইশ গজে বিশেষ ভালো যায় নি ভারতের। এশিয়া কাপ, টি-২০ বিশ্বকাপের মত প্রতিযোগিতায় ট্রফি ছাড়াই ঘরে ফিরতে হয়েছে। নিউজিল্যান্ড এবং বাংলাদেশের বিরুদ্ধে টানা দুটি একদিনের সিরিজেও জুটেছে হার। অফ ফর্ম, চোট-আঘাতের মত নানান সমস্যায় ভুগেছেন ভারতীয় ক্রিকেট তারকারা। সেসব পিছনে ফেলেই নয়া বছরে সাফল্যের সন্ধানে নেমেছে দল। গত বছরের অন্ধকার স্মৃতির ভীড়েও আলাদা করে উজ্জ্বল হয়ে রয়েছে টি-২০ বিশ্বকাপের ভারত বনাম পাকিস্তান ম্যাচটি। বিরাট কোহলি (Virat Kohli) ‘মাস্টারক্লাসের সৌজন্যে প্রায় হেরে যাওয়া ম্যাচ শেষ অবি জিতে নিয়েছিলো ভারত। একটা সময় ম্যাচ পুরোপুরি পাক দলের করায়ত্তে ছিলো। টানা দুইবার টি-২০ বিশ্বকাপে পাকিস্তান হারিয়ে দেবে ভারতকে এমন আশঙ্কাও চেপে বসেছিলো ভারত সমর্থকদের মনে। সকল হিসেবনিকেশ উলটে দিয়েছিলো ‘কিং কোহলি’র একটি ইনিংস। বা বলা ভালো হ্যারিস রউফকে (Haris Rauf) মারা দুটি ছক্কা। রোমহর্ষক ম্যাচের সেই জোড়া ছক্কা যে এখনও তাড়া করে বেড়াচ্ছে পাক পেসারকে তা এর আগেও বোঝা গিয়েছে তাঁর নানা সাক্ষাৎকারে। আরও একবার প্রশ্নের উত্তর দিতে বসে হ্যারিস টানলেন সেই প্রসঙ্গ। দিলেন বড় বয়ান।

বিধ্বংসী বিরাটে ম্যাচ জিতেছিলো ভারত-

Virat Kohli | image: twitter
Virat Kohli played a magnificent innings against Pakistan in T20 World Cup 2022

২৩ অক্টোবর টি-২০ বিশ্বকাপ প্রতিযোগিতায় নিজেদের প্রথম ম্যাচে নেমেছিলো ‘টিম ইন্ডিয়া।’ অস্ট্রেলিয়ার মেলবোর্ন ক্রিকেট গ্রাউন্ডে ৯০০০০ এর বেশী দর্শকের সামনে প্রতিপক্ষ ছিলো চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী পাকিস্তান। হাইভোল্টেজ ম্যাচে প্রথমে ব্যাট করে পাক দল। জবাবে রান তাড়া করতে নেমে শুরুতেই অধিনায়ক রোহিত (Rohit Sharma) এবং সহ-অধিনায়ক কে এল রাহুলকে (KL Rahul) হারায় ভারত। একটা সময় স্কোরবোর্ডে দেখা যায় ৩১-৪। অতি বড় ভারতীয় সমর্থকও সেই সময় ভারতের ম্যাচ জেতার কথা কল্পনা করতে হয়ত বেগ পেয়েছিলেন। কিন্তু ভরসা ছিলো ‘কিং কোহলি’র (Virat Kohli)  ওপর। নিরাশ করেন নি তিনি। হার্দিক পান্ডিয়াকে সঙ্গী করে দুরন্ত এক জুটি গড়েন বিরাট। তবুও ১৯ তম ওভারে হ্যারিস রউফ (Haris Rauf) যখন বোলিং-এ আসেন ভারতের ১২ বলে চাই ৩১ রান। প্রায় সাড়ে পনেরোর আস্কিং রেট। প্রথম চার বলে মাত্র ৩ রান পায় ‘টিম ইন্ডিয়া।’ জিততে গেলে প্রয়োজন ছিলো বাউন্ডারি। তখনই আরও একবার ব্যাট হাতে অতিমানব হয়ে ওঠেন কোহলি (Virat Kohli) । হ্যারিসের (Haris Rauf) ওভারের পঞ্চম বলটিকে সিধে বোলারের মাথার ওপর দিয়ে লং অন বাউন্ডারিতে উড়িয়ে দেন বিরাট। চোখ ধাঁধিয়ে দেওয়া এই শটকে পরবর্তীতে আইসিসি টুর্নামেন্টের সেরা শট তকমা দিতেও ভুল করেনি। ওভারের শেষ বলে ফাইন লেগের ওপর দিয়ে ফ্লিক করে ছক্কা হাঁকান কোহলি। ৮ বলে ২৮ থেকে কোহলির (Virat Kohli) ঐশ্বরিক দুই স্ট্রোকে ম্যাচে জয়ের দিকে এগিয়ে যায় ভারত।

কোহলি প্রসঙ্গে বড় বয়ান দিলেন হ্যারিস রউফ-

Haris rauf | image: twitter
Pakistan pacer Haris Rauf opened up about those two sixes by Virat Kohli

ভারতের অস্ট্রেলিয়া সফরে ‘টিম ইন্ডিয়া’র নেট বোলার হিসেবে এসেছিলেন হ্যারিস (Haris Rauf)। তখনই প্রথম আলাপ বিরাটের (Virat Kohli)  সঙ্গে। পরে পাক দলে সুযোগ পাওয়ার পর প্রতিদ্বন্দ্বী হিসেবেই মুখোমুখি হয়েছেন তাঁরা বাইশ গজে। এর আগেও কোহলি সম্পর্কে বলতে গিয়ে শ্রদ্ধায় মাথানত করেছিলেন রউফ (Haris Rauf)। তাঁকে ‘ভিন্ন গোত্রের ব্যাটার’ বলেছিলেন। এও জানিয়েছিলেন যে, “হার্দিক পান্ডিয়া বা দীনেশ কার্তিক এই ছক্কাদুটো মারলে খারাপ লাগত, কিন্তু বিরাট তো অন্য স্তরের ব্যাটসম্যান।” জনপ্রিয় পাকিস্তানী টেলিভিশন শো ‘হাসনা মানা হ্যায়’তে গিয়ে আরও একবার এই বিষয়ে মুখ খুললেন পাক পেসার। দর্শকাসনে বসা এক ব্যক্তি তাঁকে প্রশ্ন করেন যে বিরাটের বিরুদ্ধে সেই জোড়া ছক্কা খাওয়ার পর কি মনে হয়েছিলো? কি কথা বেরিয়েছিলো মুখ দিয়ে? প্রশ্নের জবাবে রউফ (Haris Rauf) খোলাখুলিই বলেন, “অবশ্যই আঘাত পেয়েছিলাম যখন বলটা ছক্কার জন্য উড়ে গিয়েছিলো। কিছুই বলি নি তখন। কিন্তু ঘটনাটা আমায় ব্যক্তিগতভাবে আঘাত দিয়েছিলো। ভেবেছিলাম কিছু খারাপ হয়ে গেলো।” বিরাটের (Virat Kohli)  শটের তারিফ করেন সঞ্চালক। হ্যারিস তখন বলেন, “এমন রোজ রোজ হয় না। এক-আধবার হয়ে যায়। অসামান্য টাইমিং ছিলো শটের। তাই বাউন্ডারির বাইরে গিয়ে পড়েছিলো।” একই অনুষ্ঠানে চোখ বাঁধা অবস্থায় কোহলিকে (Virat Kohli)  চিনতে বলা হয় রউফকে (Haris Rauf)। ক্লু হিসেবে সঞ্চালক বলেন, “ইনি সবাইকে বেছে বেছে ধোলাই করেন, তোমাকেও করেছেন এক-দুই বার…” সঙ্গে সঙ্গেই ভারতের ব্যাটিং মহাতারকাকে চিনে নিতে কোনো ভুল করেন নি হ্যারিস রউফ।

দেখে নিন গোটা ঘটনার ভিডিও-

Leave a comment

Your email address will not be published.