আইপিএল ২০২২ এর ৬৬তম ম্যাচ কলকাতা নাইট রাইডার্স আর লখনউ সুপার জায়ান্টসের মধ্যে নবী মুম্বইয়ের ডিওয়াই পাটিল স্টেডিয়ামে খেলা হয়েছে। এই ম্যাচে অধিনায়ক কেএল রাহুল টসে জিতে প্রথমে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেন। টস জিতে প্রথমে ব্যাট করতে নামা লখনউয়ের দল কুইন্টন ডি’ককের বিস্ফোরক সেঞ্চুরি ইনিংস আর কেএল রাহুলের হাফসেঞ্চুরি ইনিংসের সৌজন্যে কোনো উইকেট না হারিয়েই ২০ ওভারে ২১০ রান করে। এর জবাবে কলকাতা নাইট রাইডার্সের দল আট উইকেট হারিয়ে ২০৮ রানই করতে পারে। ফলে এই ম্যাচ লখনউ সুপার জায়ান্টসের দল ২ রানে জিতে নেয়। এই ম্যাচে হেরেও কলকাতার অধিনায়ক শ্রেয়স আইয়ারকে সামান্যই নিরাশ দেখিয়েছে, আর তিনি দলের খেলোয়াড় রিঙ্কু সিংয়ের জমিয়ে প্রশংসা করেছেন।

ক্লোজ ম্যাচে হারের পর কী বললেন শ্রেয়স আইয়ার?

KKR vs LSG: লখনউয়ের বিরুদ্ধে রুদ্ধশ্বাস হারের পরও হতাশ নন শ্রেয়স আইয়ার, এই খেলোয়াড়ের করলেন প্রশংসা 1

লখনউয়ের বিরুদ্ধে এই ক্লোজ ম্যাচ হারের পর অধিনায়ক শ্রেয়স আইয়ার বলেন যে এই ম্যাচে তার হারের দুঃখ নেই। এটা এখনও পর্যন্ত সবচেয়ে ভাল ম্যাচ ছিল। সেই সঙ্গেই তিনি রিঙ্কু সিংয়ের প্রশংসা করে বলেন যে এই ম্যাচ থেকে তারা অনেক কিছু শিখতে পেরেছেন। ম্যাচ শেষে নিজের বয়ানে শ্রেয়স আইয়ার বলেন,

“আমার ম্যাচ হারায় একদমই দুঃখ হচ্ছে না। এটা এখনও পর্যন্ত সবচেয়ে ভাল ম্যাচ ছিল। আজ আমাদের খেলোয়াড়রা যেভাবে সংঘর্ষ করেছে তা অদ্ভুত ছিল। আমি এই দেখার পর এমনটা মনে হচ্ছিল না যে এত রান হবে। লখনউয়ের ব্যাটসম্যানরা অসাধারণ ব্যাটিং করেছে। আমাদের জন্য ডু অর ডাই পরিস্থিতি ছিল। আমি লাগাতার চাইছিলাম যে আমরা বিপক্ষ দলের উপর চাপ তৈরি করে রাখি। আমাদের দল এই মরশুমে বিশেষ কিছুই করেনি। বেশকিছু খেলোয়াড় ফর্মে ছিল না। বেশকিছুজনের চোটও ছিল”।

রিঙ্কু সিংয়ের প্রশংসা করে তিনি বলেন,

“যেভাবে রিঙ্কু সিং আমাদের শেষ পর্যন্ত পৌঁছেছে তা আমার ভীষণ পছন্দ হয়েছে কিন্তু দুর্ভাগ্যবশত ও সময় বার বার করতে পারেনি যখন দু বল বাকি ছিল, ও বাস্তবে দুঃখ পেয়েছিল। আমি আশা করছিলাম যে ও আমাদের জন্য ম্যাচ শেষ করতে পারে আর হিরো হতে পারে, কিন্তু তাও ও দুর্দান্ত ইনিংস খেলেছে আর আমি ওর জন্য বাস্তবে খুশি”।

শ্রেয়স আইয়ার আরও বলেন,

“এই মরশুম আমাদের জন্য চড়াই-উৎরাই ভরা ছিল। আমরা দুর্দান্ত শুরু করেছি কিন্তু লাগাতার পাঁচটি ম্যাচ হেরেছি আর আমার ব্যক্তিগতভাবে মনে হয় যে আমরা অনেক কিছু করেছি আর পরিবর্তন করেছি। আমি বাজের (ম্যাককালাম) সঙ্গে বাস্তবে ভাল সম্পর্ক তৈরি করেছি আর ও এমন ব্যক্তি যে সবসময় শান্ত থাকে, তা যে কোনো রকম পরিস্থিতিই হোক না কেন। আপনি খেলার যে কোনো পয়েন্টেই ওর কথা বলতে পারেন। এই ম্যাচ থেকে আমরা অনেক কিছু শিখতে পেরেছি”।

 

 

Leave a comment

Your email address will not be published.