ভারতের মাটিতে এখন সেরা বিদেশি অ্যালিস্টার কুক 1

রাজকোট, ১৩ নভেম্বর: ভারতের মাটিতে বিদেশি ব্যাটসম্যানদের সব সময়ই পরীক্ষার মধ্যে পড়তে হয়েছে। উপমহাদেশের বাইরের ক্রিকেটারদের জন্য ভারতের পিচ সবসময়ই জুজু। একটা সময় বেদি-প্রসন্ন-চন্দ্রশেখর, তো তারপর ছিলেন কুম্বলে, হরভজনরা। এখন অবশ্য ভারতের স্পিন ব্রিগেডের হাল ধরেছেন রবিচন্দ্রন অশ্বিন, রবীন্দ্র জাদেজারা। তবে এতে চালচিত্রের কোন পরিবর্তনই ঘটেনি। একইভাবে বিদেশি ব্যাটসম্যানদের এখনও নাস্তানাবুদ করে চলেছেন ভারতীয় বোলাররা।

টেস্টের লম্বা ইতিহাসে ভারতের মাটিতে খেলে গিয়েছেন কিংবদন্তি ক্রিকেটাররা। স্পিনিং পিচেও রেখে গিয়েছেন নিজেদের ছাপ। তবে এবার সবাইকে ছাপিয়ে বিদেশি খেলোয়াড়ের মধ্যে শ্রেষ্ঠত্বের আসনটা নিজের করে নিলেন অ্যালিস্টার কুক। বিরাট কোহলির দলের বিরুদ্ধে পাঁচ ম্যাচের টেস্ট সিরিজের প্রথমটিতে শতরান হাঁকানোর পর এখন তিনি বিদেশি খেলোয়াড়দের মধ্যে এই দেশের মাটিতে সর্বাধিক শতরানের মালিক। ভারতের মাটিতে কুকের সেঞ্চুরির সংখ্যা এখন ৫টি। ৪টি করে সেঞ্চুরি করে এত দিন কুক ছিলেন স্যার এভারটন উইকস, স্যার ক্লাইভ লয়েড ও দক্ষিণ আফ্রিকার হাশিম আমলার সঙ্গে। রাজকোট টেস্টের পর অবশ্য এই সবাইকে ছপিয়ে গেলেন তিনি

কুকের সাফল্য অবশ্য আরও বড়। শুধু ভারতে নয়, এশিয়ার মাটিতে বিদেশি ব্যাটসম্যানদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি সেঞ্চুরির মালিক এখন এককভাবে কুক। ভারতে ৫টি সেঞ্চুরি ছাড়াও তিনি দুটি শতরান করেছেন বাংলাদেশে, একটি করে শ্রীলঙ্কা ও সংযুক্ত আরব আমিরশাহীতে পাকিস্তানের বিরুদ্ধে। সব মিলিয়ে এশিয়ার মাটিতে তার সেঞ্চুরির সংখ্যা ৯টি। এশিয়ায় ৮টি শতরান রয়েছে জ্যাক ক্যালিসের। আরেক দক্ষিণ আফ্রিকান হাশিম আমলার এখনও পর্যন্ত ৭টি সেঞ্চুরি হেঁকেছেন। প্রাক্তন অস্ট্রেলিয়ান অধিনায়ক অ্যালান বর্ডারের ৬টি শতরান রয়েছে এই মহাদেশে।

ইংল্যান্ডের অধিনায়ক হিসেবেও এখন সবচেয়ে বেশি শতরানের মালিক এখন অ্যালিস্টার কুক। রাজকোট টেস্টে অধিনায়ক হিসেবে কুকের এটি ১২ নম্বর সেঞ্চুরি। সিরিজের প্রথম টেস্টে শতরান হাঁকানোর পর তিনি ছাপিয়ে গিয়েছেন প্রাক্তন কোচ ও মেন্টর গ্রাহাম গুচের ১১টির রেকর্ড। ভারত সফরে আসার আগে বাংলাদেশের মাটিতে দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজ খেলে ইংল্যান্ড দল। সেখানে হতাশজনক পারফরমেন্সের কারণে ১-১ ফলে ড্র করতে হয় ইংল্যান্ড দলকে। তাই বিশেষজ্ঞদের মত ছিল, ভারতের মাটিতে বিরাট কোহলিদের কাছে হোয়াইটওটাশ হবে ইংলিশ’রা। রাজকোটে অবশ্য তেমনটা কিছুই হল না। বরং ম্যাচ ড্র করে হারের লজ্জা থেকে বেঁচে গেল টিম ইন্ডিয়া।

Leave a comment

Your email address will not be published.