বিশ্বকাপ চলাকালীন সৌরভ গাঙ্গুলী এই অধিনায়কের বেইমানি ধরেছিলেন হাতে নাতে, তারপর যা হয়েছিল…

ক্রিকেটকে যতই ভদ্রলোকের খেলা বলা হোক, কিন্তু এই খেলায় শুরু থেকে বিতর্কের লুকোচুরি খেলা চলেছে। ক্রিকেটের খেলায় বেশ কয়েক রকমভাবে বেইমানি দেখতে পাওয়া গিয়েছে। কখনো কোনো দল হারার জন্য নিজেদের সঙ্গেই বেইমানি করে তো, কোনো দল যেকোনো ভাবে জয় হাসিল করার লক্ষ্য বিপক্ষ দলের সঙ্গে বেইমানি করে।

১৯৯৯ বিশ্বকাপে দক্ষিণ আফ্রিকার দল ভারতের বিরুদ্ধে করেছিল বেইমানির চেষ্টা

বিশ্বকাপ চলাকালীন সৌরভ গাঙ্গুলী এই অধিনায়কের বেইমানি ধরেছিলেন হাতে নাতে, তারপর যা হয়েছিল… 1

বিতর্কের ক্রিকেটের সঙ্গে একটা বড়ো যোগাযোগ থেকেছে। এই বিতর্কে এমনিতে বেশকিছুবার বেশকিছু আলাদা আলাদা রূপ দেখতে পাওয়া গিয়েছে কিন্তু সবচেয়ে বড়ো বিতর্ক ১৯৯৯ সালে ইংল্যান্ডে খেলা হওয়া আইসিসি বিশ্বকাপে দেখতে পাওয়া গিয়েছিল। য়াজ থেকে প্রায় ২১ বছর আগে ১৯৯৯তে ইংল্যান্ডের মাটিতে বিশ্বকাপ খেলা হয়েছিল। সেই বিশ্বকাপ চলাকালীন সেই সময়ের সচেয়ে ভালো আর চালাক অধিনায়কদের মধ্যে একজন দক্ষিণ আফ্রিকার হ্যান্সি ক্রোনিয়ে বড়ো বেইমানি করেন যা সকলের সামনে প্রকাশ হয়ে যায় আর তিনি ধরা পড়েন।

দক্ষিণ আফ্রিকার অধিনায়ক ক্রোনিয়ে আর ডোনাল্ড যোগাযোগ রেখেছিলেন মাঠ থেকে কোচের সঙ্গে

বিশ্বকাপ চলাকালীন সৌরভ গাঙ্গুলী এই অধিনায়কের বেইমানি ধরেছিলেন হাতে নাতে, তারপর যা হয়েছিল… 2

১০৯৯ বিশ্বকাপে ভারত আর দক্ষিণ আফ্রিকার মধ্যে ১৫ মে টনটনে ম্যাচ খেলা হয়। এই ম্যাচে দক্ষিণ আফ্রিকার দল যে কোনোভাবে জয় হাসিল করতে চেয়েছিল, এই কারণে তাদের সেই সময়ের কোচ বব উলমার ১৯৯৮তে ফুটবল বিশ্বকাপে ফ্রান্সের রণনীতি নিয়ে চলার একটি পরিকল্পনা করেন। এই পরিকল্পনার অন্তর্গত তিনি দলের খেলোয়াড়দের সঙ্গে মাঠে সোজাসুজি কথা বলে পরিকল্পনার করতে চেয়েছিলেন। এই কারণে তিনি দলের দুই খেলোয়াড় অধিনায়ক হ্যান্সি ক্রোনিয়ে আর জোরে বোলার অ্যালান ডোনাল্ডকে ইয়ারপিস পড়িয়ে দেন। আর দুজনে বব উলমারের সঙ্গে যোগাযোগ রেখে চলেছিলেন মাঠ থেকে। সেই সময় এমনটা করার কোনো নিয়ম ছিল না।

সৌরভ গাঙ্গুলী হ্যান্সি ক্রোনিয়েকে দেখেন কারো সঙ্গে কথা বলতে, অ্যাম্পায়ারকে করেন অভিযোগ

বিশ্বকাপ চলাকালীন সৌরভ গাঙ্গুলী এই অধিনায়কের বেইমানি ধরেছিলেন হাতে নাতে, তারপর যা হয়েছিল… 3

এই অবস্থায় দুই খেলোয়াড় ভারতীয় দলের টস জেতার পর ফিল্ডিং করতে মাঠে নামেন। ভারতের হয়ে সৌরভ গাঙ্গুলী ওপেন করতে নামেন। গাঙ্গুলী ব্যাটিং চলাকালীন দক্ষিণ আফ্রিকার অধিনায়ক হ্যান্সি ক্রোনিয়েকে নিজের সঙ্গেই কথা বলতে দেখেন। গাঙ্গুলীর সন্দেহ হয় আর তিনি অ্যাম্পায়ার ডেভিড শেপার্ড আর স্টিভ বাকনারের কাছে অভিযোগ করেন। এর দ্রুত পরেই অ্যাম্পায়াররা হ্যান্সি ক্রোনিয়েকে তাদের কাছে ডাকেন, আর দেখেন যে তিনি নিজের কানে ইয়ারপিস লাগিয়ে রেখেছেন, আর কারো সঙ্গে কথা বলছেন। এরপর অ্যাম্পায়াররা সেই সময়ই ম্যাচ রেফারি তালাত আলির কাছে অভিযোগ করেন আর তালাত আলি আইসিসি হেড কোয়ার্টারে কল করেন। আইসিসি হ্যান্সি ক্রোনিয়ে আর অ্যালান ডোনাল্ডকে কান থেকে ইয়ারফোন বের করার নির্দেশ দেয়। আর এই ভাবে গাঙ্গুলীর সজাগতার কারণে সেই সময়ের সবচেয়ে বড়ো অধিনায়ক হ্যান্সি ক্রোনিয়ের এই বেমানি ধরা পড়ে।

suvendu debnath

কবি, সাংবাদিক এবং গদ্যকার। শচীন তেন্ডুলকর, ব্রায়ান লারার অন্ধ ভক্ত। ক্রিকেটের...

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *