বিরাট কোহলি জানালেন কেনো স্রেফ ৩টি টি-২০আই খেলা সঞ্জু স্যামসনকে দিয়েছিলেন সুপার ওভারের দায়িত্ব

ভারত আর নিউজিল্যান্ডের মধ্যে ওয়েলিংটনের স্কাই স্টেডিয়ামে খেলা হওয়া চতুর্থ ম্যাচের ফলাফল সুপার ওভারে বেরিয়েছে। এক এক ওভারের এই ম্যাচে ভারত জয় হাসিল করে। এর সঙ্গেই ভারত ৫ ম্যাচের সিরিজে ৪-০ এগিয়ে গিয়েছে। এই ম্যাচের টস নিউজিল্যান্ড জেতে আর প্রথমে বল করার সিদ্ধান্ত নেয়। প্রথমে ব্যাট করে ভারতীয় দল ২০ ওভারে ৮ উইকেট হারিয়ে ১৬৫ রান করে। এই লক্ষ্যের জবাবে নিউজিল্যাণ্ড দল ২০ ওভারে ৭ উইকেট করে ১৬৫ রানই করতে পারে।

ম্যাচে ফিরে আসা দলের চরিত্রকেই দর্শায়

বিরাট কোহলি জানালেন কেনো স্রেফ ৩টি টি-২০আই খেলা সঞ্জু স্যামসনকে দিয়েছিলেন সুপার ওভারের দায়িত্ব 1

এই ম্যাচে জয়ের পর অধিনায়ক কোহলি নিজের পোষ্ট ম্যাচ প্রেজেন্টেশনে বলেন,

এটা নতুন কিছু যা আমি শিখলাম যে আপনাকে খেলায় শান্ত থাকতে হবে, নিরিক্ষণ করুন যে কি হচ্ছে আর যদি সুযোগ আসে তো আপনি তার ফায়দা তোলার জন্য প্রস্তুত থাকুন। সমর্থকদের জন্য লাগাতার এমন দুটি ম্যাচের চেয়ে ভালো কিছু হতে পারে না। এই সিরিজের আগে আমরা প্রথমে সুপার ওভার খেলিনি আর এখন আমরা ব্যাক টু ব্যাক দুটি সুপার ওভার খেললাম। এটা ভালো লাগে যখন আপনি খেলার থেকে ছিটকে যান আর তারপর আপনি নিজেকে ফিরিয়ে আনেন, এটা বাস্তবে দলের চরিত্রকে দর্শায়”।

নিজের দল নিয়ে খুশি

বিরাট কোহলি জানালেন কেনো স্রেফ ৩টি টি-২০আই খেলা সঞ্জু স্যামসনকে দিয়েছিলেন সুপার ওভারের দায়িত্ব 2

গত টি-২০ ম্যাচে শিভম দুবেকে ৩ নম্বরে পাঠানো হয়েছিল। আজ নিজের ৩ নম্বরে আসার কারণে জানাতে গিয়ে বিরাট বলেন, “শুরুতে সঞ্জু আর কেএল ভালোভাবে বলকে মারছিল, কিন্তু সঞ্জু দ্রুত আউট হয়ে যায়, এই কারণে আমি যাই কারণ আমি বেশি অভিজ্ঞ ছিলাম আর চাপের পরিস্থিতিতে আমার জন্য বিষয়টিকে সামলানো গুরুত্বপূর্ণ ছিল”।
সুপার ওভারের কথা বলতে গিয়ে বিরাট বলেন,
“প্রথম দু বলে দুটি প্রহার গুরুত্বপূর্ণ ছিল। তারপর আমি ভাবি যে বলকে হালকা হাতে খেলব। আমি দীর্ঘ সময় ধরে সুপার ওভার খেলিনি, কিন্তু আমি নিজের দলের জন্য খুশি”।
সঞ্জু স্যামসনকে সুপার ওভারে ব্যাটিং করানোর কারণ জানাতে গিয়ে বিরাট কোহলি বলেন, “আমার মনে হয়েছিল যে সঞ্জু নির্ভয়, ও শটস খেলতে পারে। এই কারণে ওকে সুপার ওভারে সুযোগ দেওয়া হয়েছিল। আমার যথেষ্ট গর্ব রয়েছে যে নিউজিল্যাণ্ড এক সময় এত ভালো খেলছিল তা সত্ত্বেও আমার দল ফিরে এসেছে আর ম্যাচ জিতেছে”।

suvendu debnath

কবি, সাংবাদিক এবং গদ্যকার। শচীন তেন্ডুলকর, ব্রায়ান লারার অন্ধ ভক্ত। ক্রিকেটের...

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *