সানরাইজার্স হায়দ্রাবাদের এই তারকা খেলোয়াড়ের মায়ের মৃত্যু, সোশ্যাল মিডিয়ায় জানালেন নিজেই

২০২০ সালে বেশকিছু খারাপ খবর সামনে আসছে। করোনা ভাইরাস পুরো বিশ্বে হাহাকার ফেলে দিয়েছে। এর সবচেয়ে খারাপ প্রভাব খেলায় পড়ছে, কারণ এই ভাইরাসের কারণে বিশ্বজুড়ে খেলাগুলিতে বাতিল করা হচ্ছে। বেশকিছু ক্রিকেট সিরিজ এই ভাইরাসের কারণে বন্ধ হয়ে গিয়েছে। বিশ্বজুড়ে খেলাগুলির এইভাবে বাতিল হওয়া নিশ্চিতভাবেই সমর্থকদের জন্য ভীষণই খারাপ খবর। এর মধ্যেই ক্রিকেটপ্রেমীদের জন্য আরো একটি খারাপ খবর সামনে আসছে।

রশিদ খানের মায়ের হলো মৃত্যু

সানরাইজার্স হায়দ্রাবাদের এই তারকা খেলোয়াড়ের মায়ের মৃত্যু, সোশ্যাল মিডিয়ায় জানালেন নিজেই 1

রশিদ খানকে বর্তমান সময়ে বিশ্বের সবচেয়ে ভালো স্পিনার মনে করা হয়। এই বোলার দীর্ঘ সময় ধরে আইসিসি টি-২০ র্যা ঙ্কিংয়ে এক নম্বর বোলার হিসেবে রয়েছেন। কিন্তু এর মধ্যে এই তারকা বোলার স্বয়ং খবর দিয়েছেন যে তার মায়ের গতকাল বৃহস্পতিবার মৃত্যু হয়েছে। রশিদ খানের মা দীর্ঘ সময় ধরে অসুস্থ ছিলেন, যার পর গতকাল বৃহস্পতিবার রশিদ খানের মায়ের মৃত্যু হয়েছে।

নিজে ফেসবুকে পোষ্ট করে জানালেন

রশিদ খান নিজের ফেসবুক পোষ্টে লিখেছেন, “আমি আপনাদের এটা জানানোর জন্য দুঃখিত যে আমার মায়ের মৃত্যু হয়েছে। এখন আমি তাঁর প্রার্থনা আর শুভকামনা পাব না। আমার পরিবার আর আমি কঠিন আর দুঃসময়ের মধ্যে দিয়ে যাচ্ছি। আমার মায়ের জন্য আপনারা প্রার্থনা করবেন। আল্লাহ তাঁর আত্মাকে শান্তি দিন”।

মনে করা হয় বিশ্বের এক নম্বর স্পিনার

সানরাইজার্স হায়দ্রাবাদের এই তারকা খেলোয়াড়ের মায়ের মৃত্যু, সোশ্যাল মিডিয়ায় জানালেন নিজেই 2

রশিদ খান বর্তমান সময়ে আইসিসি টি-২০ র্যা ঙ্কিংয়ে এক নম্বর বোলার। রশিদ খান আফগানিস্তানের হয়ে এখনো পর্যন্ত ৪টি টেস্ট ম্যাচ, ৭১টি ওয়ানডে আর ৪৮টি টি-২০ ম্যাচ খেলেছেন। যার মধ্যে তিনি টেস্ট ম্যাচে ২৩টি উইকেট, ওয়ানডেতে ৭১টি উইকেট ১৩৩টি উইকেট এবং টি-২০ ম্যাচে মোট ৮৯টি উইকেট নিয়েছে। টি-২০ ম্যাচে তার ইকোনমি রেট মাত্র ৬.১৪। আইপিএলে রশিদ খান সানরাইজার্স হায়দ্রাবাদের হয়ে খেলেন। তিনি আইপিএলে এখনো পর্যন্ত ৪৬টি ম্যাচ খেলেছেন আর এর মধ্যে তিনি ৫৫টি উইকেট নিয়েছেন। আইপিএলে তার ইকোনমি রেট ৬.৫৫।

suvendu debnath

কবি, সাংবাদিক এবং গদ্যকার। শচীন তেন্ডুলকর, ব্রায়ান লারার অন্ধ ভক্ত। ক্রিকেটের...

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *