এই ৫জন খেলোয়াড় মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স আর চেন্নাই সুপার কিংস দুই ফ্রেঞ্চাইজির হয়েই জিতেছেন আইপিএল খেতাব

বিশ্বের সবচেয়ে ধনী ফ্রেঞ্চাইজি লীগ আইপিএলের এখণ পর্যন্ত ১২টি মরশুম খেলা হয়েছে। প্রত্যেক মরশুমে সমস্ত ফ্রেঞ্চাইজিই খেতাবি জয় হাসিল করার চেষ্টা করে। আইপিএলের ইতিহাসের সবচেয়ে সফল ফ্রেঞ্চাইজি মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স। রোহিত শর্মার নেতৃত্বাধীন এই ফ্রেঞ্চাইজি ৪টি আইপিএল খেতাব জিতেছে। তো অন্যদিকে দ্বিতীয় নম্বরে রয়েছে মহেন্দ্র সিং ধোনি নেতৃত্বাধীন চেন্নাই সুপার কিংস। এই দুই ফ্রেঞ্চাইজিরই প্রদর্শন নিয়মিত উন্নত থেকেছে। কিন্তু আপনারা কী জানেন যে মুম্বাই ইন্ডিয়ান্সকে খেতাব জেতানো কিছু খেলোয়াড় চেন্নাই সুপার কিংসকেও খেতাব জিতিয়েছেন। আসলে নিলাম চলাকালীন প্রায়ই খেলোয়াড়দের ফ্রেঞ্চাইজি বদল হয়। এই কারণে কখনো কেউ মুম্বাইতে তো কোনো খেলোয়াড় চেন্নাইতে পৌঁছে যান। এই বিশেষ প্রতিবেদনে সেই ৫জন খেলোয়াড়ের ব্যাপারে জানানো যাক যারা মুম্বাই আর চেন্নাই সুই ফ্রেঞ্চাইজিরই খেতাবি জয়ে অংশ নিয়েছেন।

১. আম্বাতি রায়ডু

এই ৫জন খেলোয়াড় মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স আর চেন্নাই সুপার কিংস দুই ফ্রেঞ্চাইজির হয়েই জিতেছেন আইপিএল খেতাব 1

টিম ইন্ডিয়ার প্রাক্তন ডানহাতি ব্যাটসম্যান আম্বাতি এই তালিকায় রয়েছেন। আম্বাতি রায়ডু ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ায়র লীগে এখনো পর্যন্ত দুটি ফ্রেঞ্চাইজির হয়ে খেলেছেন। এই দুটি ফ্রেঞ্চাইজির মধ্যে মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স আর চেন্নাই সুপার কিংসের নাম শামিল রয়েছে। আম্বাতি রায়ডুর নাম সেই হাতে গোনা খেলোয়াড়দের মধ্যে রয়েছে যারা মুম্বাই আর চেন্নাইয়ের হয়ে আইপিএল জিতেছেন। রায়ডু এই কৃতিত্ব মুম্বাই ইন্ডিয়ান্সের দলের হয়ে ২০১৫, আর ২০১৭য় করেছেন। অন্যদিকে চেন্নাই সুপার কিংসের হয়ে ২০১৮য় ট্রফি জিততে সফল হয়েছেন। আইপিএল ২০১৩য় আম্বাতি রায়ডু মুম্বাই ইন্ডিয়ান্সের হয়ে ২৬৫ রান করেছিলেন, অন্যদিকে ২০১৫র আইপিএল মরশুমে তার ব্যাট থেকে ২৮১ রান বেরোয়। অন্যদিকে ২০১৭র আইপিএলে আম্বাতি রায়ডু ৫টিই ম্যাচ খেলার সুযোগ পান যেখানে তিনি ৯১ রান করেন। যদি ২০১৮র আইপিএলের কথা ধরা হয় তো এই টুর্নামেন্টে রায়ডু চেন্নাইকে চ্যাম্পিয়ন করতে সবচেয়ে বড়ো যোগদান দিয়েছেন। তিনি ১৬টি ম্যাচে একটি সেঞ্চুরি সহ ৬০২ রান করেছিলেন।

২. টিম সাউদি

এই ৫জন খেলোয়াড় মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স আর চেন্নাই সুপার কিংস দুই ফ্রেঞ্চাইজির হয়েই জিতেছেন আইপিএল খেতাব 2

নিউজিল্যান্ড ক্রিকেট দলের অভিজ্ঞ জোরে বোলার টিম সাউদির নামও সেই খেলোয়াড়দের তালিকায় রয়েছে যারা মুম্বাই এবং চেন্নাই দুই ফ্রেঞ্চাইজিকেই খেতাব জিতিয়েছেন। টিম সাউদি এখনো পর্যন্ত আইপিএলের ইতিহাসে চেন্নাই সুপার কিংস, মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স, রাজস্থান রয়্যালস আর রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালোরের হয়ে খেলেছেন। কিন্তু আইপিএলের ট্রফি জিততে তিনি মোটে দুবার সফল হয়েছেন। এই দুবার টিম সাউদি চেন্নাই সুপার কিংস আর মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স দলের হয়ে খেলে নিজের নামে করেছেন চেন্নাইয়ের হয়ে সাউদি ২০১১য় ট্রফি জিততে সফল হয়েছেন অন্যদিকে মুম্বাই ইন্ডিয়ান্সের হয়ে ২০১৭য়। ২০১১র আইপিএলে সাউদি মাত্র পাঁচটি ম্যাচ খেলার সুযোগ পেয়েছেন আর এর মধ্যে তিনি ৪১.৫০ গড়ে আর ৮.৭৩ ইকোনমি রেটে চার উইকেট নিতে সফল হয়েছেন। অন্যদিকে ২০১৭র আইপিএল মরশুমে টিম সাউদি তিনটি ম্যাচে মাত্র একটিই উইকেট নিতে পেরেছিলেন।

৩. পার্থিব প্যাটেল

এই ৫জন খেলোয়াড় মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স আর চেন্নাই সুপার কিংস দুই ফ্রেঞ্চাইজির হয়েই জিতেছেন আইপিএল খেতাব 3

বর্তমান সময়ে রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালোরের উইকেটকিপার ব্যাটসম্যান পার্থিব প্যাটেলও সেই খেলোয়াড়দের মধ্যে একজন যারা মুম্বাই এবং সিএসকে দুই দলের হয়েই খেতাব জিতেছেন। পার্থিব প্যাটেল এখনো পর্যন্ত ১২টি আইপিএল মরশুমে অগুনতি দলের অংশ থেকেছেন। এই দলগুলির মধ্যে চেন্নাই সুপার কিংস, মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স, ডেকান চার্জাস, সানরাইজার্স হায়দ্রাবাদ, গুজরাট লায়ান্স, কোচি টক্কর্স কেরালা আর রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালোর শামিল রয়েছে। যতই পার্থিব এখনো পর্যন্ত সাতটি আইপিএল দলের অংশ থাকুন, কিন্তু আইপিএল জিততে সফল তিনি চেন্নাই আর মুম্বাইয়ের হয়েই হতে পেরেছেন। চেন্নাই সুপার কিংসের হয়ে পার্থিব আইপিএল ২০১০ এ জিতেছেন অন্যদিকে মুম্বাই ইন্ডিয়ান্সের হয়ে ২০১৫ আর ২০১৭য় জিতেছেন। ২০১০এ আইপিএলে পার্থিব প্যাটেল ওপেনার হিসেবে চেন্নাইয়ের খেলা নিজের চাটি ম্যাচে একটি হাফসেঞ্চুরি সহ ৭২ রান করেন। অন্যদিকে ২০১৫ আর ১৭র আইপিএলে তার ব্যাট থেকে মুম্বাই ইন্ডিয়ান্সের হয়ে ক্রমশ, ৩৩৯ আর ৩৩৫ রান বেরিয়েছে।

৪. হরভজন সিং

এই ৫জন খেলোয়াড় মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স আর চেন্নাই সুপার কিংস দুই ফ্রেঞ্চাইজির হয়েই জিতেছেন আইপিএল খেতাব 4

এই তালিকায় পরবর্তী নাম রয়েছে ভারতীয় দলের তারকা আর মহান স্পিনার হরভজন সিংয়ের। হরভজনও সেই খেলোয়াড়দের তালিকায় রয়েছেন যারা মুম্বাই আর চেন্নাই দলের হয়ে আইপিএল ট্রফি জিতেছেন। হভরজন সিং মুম্বাই ইন্ডিয়ান্সকে ২০১৩, ২০১৫ আর ২০১৭য় খেতাব জিতিয়েছিলেন। অন্যদিকে চেন্নাইয়ের হয়ে তিনি ২০১৮য় টুর্নামেন্ট জিততে সফল হন। ২০১৩র আইপিএলে ভাজ্জি মুম্বাইয়ের হয়ে ১৯টি ম্যাচে দুর্দান্ত প্রদর্শন করে ২৪টি উইকেট নিতে সফল হয়েছেন, অন্যদিকে ২০১৫র আইপিএলে ১৫টি ম্যাচে তিনি ১৮টি উইকেট নেন। এছাড়াও ২০১৭য় তিনি মুম্বাইয়ের হয়ে ১১টি ম্যাচে মাত্র ৮টিই উইকেট নিতে পারে।
তখন মুম্বাই দল তাকে আইপিএল ২০১৮য় নিলামের রাস্তা দেখিয়ে দেয়। যেখানে চেন্নাই সুপার কিংস তাকে কেনে। এই বছর ২০১৮য় চেন্নাইয়ের হয়ে তার প্রদর্শন দুর্দান্ত থেকেছে। তিনি ১৩টি ম্যাচে চেন্নাইয়ের হয়ে ৭টি উইকেট নেন। উইকেট যতই মাত্র সাতটি নিন, কিন্তু পুরো টুর্নামেন্টে তার ইকোনমি রেট ৮.৪৮ এর থেকেছে।

৫. কর্ণ শর্মা

এই ৫জন খেলোয়াড় মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স আর চেন্নাই সুপার কিংস দুই ফ্রেঞ্চাইজির হয়েই জিতেছেন আইপিএল খেতাব 5

মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স এবং চেন্নাই সুপার কিংসকে খেতাজি জয় এনে দেওয়া খেলোয়াড়দের তালিকায় কর্ণ শর্মাও রয়েছেন। কর্ণ শর্মাও মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স আর চেন্নাই সুপার কিংসের দলের হয়ে ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লীগের খেতাব জিতেছেন। কর্ণ শর্মা ২০১৭য় মুম্বাই ইন্ডিয়ান্সের হয়ে রোহিত শর্মার নেতৃত্বে আইপিএল জেতেন। অন্যদিকে ২০১৮য় তিনি চেন্নাই সুপার কিংসের হয়ে ট্রফি জিততে সফল হন। ২০১৭য় তিনি নিজের খেলা ৯টি ম্যাচে মুম্বাই ইন্ডিয়ান্সের হয়ে ১৩টি উইকেট নিতে সফল হন আর এর মধ্যে তার সবচেয়ে ভালো প্রদর্শন থেকেছে যখন তিনি মাত্র ১৬ রান দিয়ে ৪ উইকেট নিয়েছিলেন। অন্যদিকে চেন্নাই সুপার কিংসের হয়ে কেহ্লে কর্ণ ৬টি ম্যাচে চারটি উইকেট নিতে সফল হন। এমনিতে আপনাদের সকলের জ্ঞাতার্থে জানাই যে কর্ণ শর্মা এই দুই ফ্রেঞ্চাইজি ছাড়াও সানরাইজার্স হায়দ্রাবাদের হয়েও আইপিএল জিতেছেন।

suvendu debnath

কবি, সাংবাদিক এবং গদ্যকার। শচীন তেন্ডুলকর, ব্রায়ান লারার অন্ধ ভক্ত। ক্রিকেটের...

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *