SRHvsKXIP: ডেভিড ওয়ার্নার এই খেলোয়াড়কে দিলেন ম্যাচ জেতার পুরো শ্রেয়

সানরাইজার্স হায়দ্রাবাদ আর কিংস ইলেভেন পাঞ্জাবের মধ্যে খেলা হওয়া ম্যাচে হায়দ্রাবাদের দল প্রথমে ব্যাট করে ২০২ রানের লক্ষ্য দেয়। জবাবে পাঞ্জাবের দল ১৩২ রানই করতে পারে আর এসআরএইচ ৬৯ রানে জয় হাসিল করে টুর্নামেন্টে নিজেদের তৃতীয় জয় তুলে নেয়।

সানরাইজার্স হায়দ্রাবাদ ৬৯ রানে জেতে ম্যাচ

SRHvsKXIP: ডেভিড ওয়ার্নার এই খেলোয়াড়কে দিলেন ম্যাচ জেতার পুরো শ্রেয় 1

সানরাইজার্স হায়দ্রাবাদ আর কিংস ইলেভেন পাঞ্জাবের মধ্যে একটি রোমাঞ্চকর ম্যাচ খেলা হয়েছে। এই ম্যাচে হায়দ্রাবাদের দল টসে জিতে প্রথমে ব্যাটিং করার সিদ্ধান্ত নেয় আর বোর্ডে ২০১ রান তোলে। এই চ্যালেঞ্জিং লক্ষ্য তাড়া করতে নামা পাঞ্জাবের দল শুরুতেই গুরুত্বপূর্ণ উইকেট হারায়। কিন্তু নিকোলস পুরণ ৭৭ রানের ইনিংস খেলেন। কিন্তু পুরণকে অন্য প্রান্ত থেকে কেউ সাহায্য করেননি আর কিংস ইলেভেন পাঞ্জাব ১৩২ রানেই অলআউট হয়ে যায়। পরিণামস্বরূপ হায়দ্রাবাদের দল ৬৯ রানের বড়ো জয় হাসিল করে টুর্নামেন্টের তৃতীয় ম্যাচ জিতে নেয়।

ডেভিড ওয়ার্নার করলেন রশিদ খানের প্রশংসা

SRHvsKXIP: ডেভিড ওয়ার্নার এই খেলোয়াড়কে দিলেন ম্যাচ জেতার পুরো শ্রেয় 2

সানরাইজার্স হায়দ্রাবাদের দেওয়া ২০২ রানের বড়ো লক্ষ্য তাড়া করতে নামা পাঞ্জাবের দল শুরুতেই ছন্নছাড়া হয়ে যায়। কিন্তু নিকোলস পুরণ ক্রিজে টিকে ৭৭ রানের ইনিংস খেলে পাঞ্জাবকে ম্যাচে ফিরিয়ে আনেন। কিন্তু রশিদ খানের স্পেলের শেশ ওভারে পুরণ নিজের উইকেট হারিয়ে বসেন। ম্যাচ শেষ হওয়ার পর অধিনায়ক ডেভিড ওয়ার্নার রশিদ খানের প্রশংসা করে বলেন,

“আমি সামান্য ঘাবড়ে ছিলাম যখন নিকোলস পুরণ ক্রিজে সেট হয়ে গিয়েছিল আর স্ট্যান্ডের দিকে শট মারছিল। আমার কাছে সবসময়ই উঁচু সম্ভবনা ছিল। আমি ওর সঙ্গে বাংলাদেশে খেলার জন্য সৌভাগ্যবান ছিলাম। আপনি সবসময়ই ভাবেন ‘আমি ককরতে পারি’ ও (রশিদ) বিশ্বস্তরীয় বোলার, ওর জন্য এটা ভীষণই ভালো। ও সবসময় চাপের পরিস্থিতি থেকে দলকে বার করেছে। কী অসাধারণ খেলোয়াড়। ভুবনেশ্বরের দলের সঙ্গে না থাকা দুঃখের বিষয়। কিন্তু আমাদের সর্বশ্রেষ্ঠ বোলারদের মধ্যে একজনের দলের বাইরে থাকা অন্যদের জন্য একটা সুযোগও”।

suvendu debnath

কবি, সাংবাদিক এবং গদ্যকার। শচীন তেন্ডুলকর, ব্রায়ান লারার অন্ধ ভক্ত। ক্রিকেটের...

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *