INDvsWI: ম্যাচ হারার পর ওয়েস্টইন্ডিজের সাপোর্ট স্টাফের উপর রাগলেন বিরাট কোহলি

ভারত আর ওয়েস্টইন্ডিজের মধ্যে তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজের প্রথম ওয়ানডে ম্যাচ চেন্নাইয়ের এমএ চিদাম্বরম ক্রিকেট স্টেডিয়ামে খেলা হয়েছে। সিরিজের এই প্রথম ম্যাচে ভারত প্রথমে ব্যাট করে নির্ধারিত ৫০ ওভারে ৮ উইকেট হারিয়ে ২৮৭ রান তোলে। এই লক্ষ্যকে ওয়েস্টইন্ডিজের দল ৪৭.৫ ওভারে মাত্র ২ উইকেট হারিয়ে হাসিল করে নেয়। ওয়েস্টইন্ডিজ এই ম্যাচ জেতার সঙ্গে ৩ ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজে ১-০ এগিয়ে গিয়েছে।

আইয়ার আর পন্থ এই ম্যাচে আমাদের জন্য পজিটিভ

INDvsWI: ম্যাচ হারার পর ওয়েস্টইন্ডিজের সাপোর্ট স্টাফের উপর রাগলেন বিরাট কোহলি 1

ভারতীয় দলের অধিনায়ক বিরাট কোহলি ম্যাচ হারার পর নিজের প্রেস কনফারেন্সে শ্রেয়স আইয়ার আর ঋষভ পন্থের ব্যাটিংকে পজিটিভ বলে জানিয়েছেন,

“শ্রেয়স আইয়ার আর ঋষভ পন্থ এই ম্যাচে আমাদের জন্য পজিটিভ ব্যাপার থেকেছে। ওরা যথেষ্ট স্মার্টভাবে নিজেদের ইনিংসকে এগিয়ে নিয়ে গেছে। আমি স্বয়ং আর রোহিত আজ যোগদান দিতে পারেনি, কিন্তু এই দুই তরুণ একসঙ্গে পার্টনারশিপ করে আমাদের একটা ভালো স্কোর পর্যন্ত পৌঁছে দিয়েছে”।

শিমরন হেটমায়ারের ইনিংস ম্যাচের ব্যবধান থেকেছে

INDvsWI: ম্যাচ হারার পর ওয়েস্টইন্ডিজের সাপোর্ট স্টাফের উপর রাগলেন বিরাট কোহলি 2

নিজের বোলারদের ব্যাপারে কথা বলতে গিয়ে বিরাট কোহলি বলেন,

“আমরা ভেবেছিলাম যে ছজন বোলিং বিকল্প পর্যাপ্ত হবে। ওরা দুর্দান্তভাবে আমাদের স্পিনারদের উপর চাপ তৈরি করেছে। আমার মনে হয়না যে প্রথম ইনিংসের পর পিচে খুব বেশি পরিবর্তন এসেছে। ওরা দুর্দান্ত ব্যাটিং করেছে। বিশেষ করে শিমরন হেটমায়ারের ইনিংস ম্যাচের ব্যবধান থেকেছে। সম্ভবত যদি আমাদের কাছে ১৫-২০ রান আরো থাকলে ম্যাচে কিছুই হত না”।

জাদেজার রান আউটের ব্যাপারেও বলেন বিরাট

INDvsWI: ম্যাচ হারার পর ওয়েস্টইন্ডিজের সাপোর্ট স্টাফের উপর রাগলেন বিরাট কোহলি 3

রবীন্দ্র জাদেজা রান আউট ছিলেন, কিন্তু ওয়েস্টইন্ডিজের খেলোয়াড়রা অ্যাপিল করেননি, কিন্তু কিছুক্ষণ পর ওয়েস্টইন্ডিজ দলের সাপোর্ট স্টাফ দ্বারা তাদের অ্যাপিল করতে বলা হয় আর যখন ওয়েস্টইন্ডিজের খেলোয়াড়রা অ্যাপিল করেন তো রবীন্দ্র জাদেজাকে রান আউট দেওয়া হয়। এই ব্যাপারে নিজের ক্ষোভ প্রকাশ করে অধিনায়ক বিরাট কোহলি বলেন,

“বাইরে বসা মানুষরা ফিল্ডারদের বলতে পারেন না আর ওরা অ্যাম্পায়ারের কাছে রান আউটের সমীক্ষা করার ব্যাপারে নাও জিজ্ঞাসা করতে পারত। আমি ক্রিকেটে এমনটা কখনো দেখিনি। আমি জানিনা নিয়ম কোথা থেকে এসেছে। রেফারি আর অ্যাম্পায়ারদের এই ব্যাপারে সিদ্ধন্ত নিতে হবে। মাঠের বাইরে বসা মানুষের এটা ঠিক করা উচিৎ নয় যে মাঠে কি হবে আর ঠিক তেমনটাই হয়েছে”।

suvendu debnath

কবি, সাংবাদিক এবং গদ্যকার। শচীন তেন্ডুলকর, ব্রায়ান লারার অন্ধ ভক্ত। ক্রিকেটের...

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *