বিশ্বকাপ ফাইনাল: জয়ের পর অধিনায়ক ইয়োন মর্গ্যান নিউজিল্যাণ্ড দলের এভাবে করলেন প্রশংসা

আইসিসি বিশ্বকাপ ২০১৯এর সেমিফাইনাল ম্যাচ ইংল্যান্ড আর নিউজিল্যান্ডের মধ্যে খেলা হয়েছে। নিউজিল্যাণ্ডের অধিনায়ক কেন উইলিয়ামসন টসে জিতে প্রথমে ব্যাটিং করার সিদ্ধান্ত নেন। ৫০ ওভারের পর দুই দলের স্কোর সমান সমান থাকে। সুপার ওভারেও ম্যাচ সমান সমান হয় আর বেশি বাউন্ডারি মারা ইংল্যান্ড প্রথমবার বিশ্বকাপ নিজেদের নামে করে।

উইকেটে রান করা মুশকিল

ইংল্যান্ড যতই ফাইনাল ম্যাচ জিতুক কিন্তু এই ম্যাচ শেষ পর্যন্ত রোমাঞ্চকর হয়েছিল। ইংল্যান্ড মাত্র বেশি বাউন্ডারি মারার কারণে জয়ী ঘোষিত হয়। ম্যাচের পর অধিনায়ক ইয়োন মর্গ্যান নিউজিল্যান্ড দল আর তাদের অধিনায়কের প্রশংসা করেন তথা এটাও বলেন যে পিচ যথেষ্ট মুশকিল ছিল। তিনি বলেন,

“এই ম্যাচে অনেক কিছু ছিল। আমি কেন আর ওর দলকে শুভেচ্ছা জানাতে চাই। যেভাবে ওরা লড়াই করেছে তা উদাহরণ যোগ্য। যেভাবে নেতৃত্ব দিয়েছে তার ওর আর ওর দলের জন্য উদাহরণস্বরূপ। এটা ভীষণই কঠিন একটা ম্যাচ। এটা ভীষণই কঠিন একটা উইকেট যেখানে সকলেরই রান করা মুশকিল থেকেছে। আমরা অনেকগুলো উইকেট হারিয়ে ফেলেছিলাম। বাটলার আর স্টোকস এক সঙ্গে পার্টনারশিপ গড়েছে। এবং আমার মনে হয়েছিল এটা আমাদের গভীরে নিয়ে যাবে আর তাই হয়েছে। এটা চার বছরের জার্নি। এই বছরগুলোতে আমরা অনেক কিছু ডেভলপড করেছি, বিশেষ করে শেষ দু বছর”।

পুরো দলকে শ্রেয়

বিশ্বকাপ ফাইনাল: জয়ের পর অধিনায়ক ইয়োন মর্গ্যান নিউজিল্যাণ্ড দলের এভাবে করলেন প্রশংসা 1

ইংল্যান্ডের অধিনায়ক জয়ের শ্রেয় পুরো দলকে দিয়েছেন। এর সঙ্গেই তিনি সাপোর্ট স্টাফদেরও এতে গুরুত্বপূর্ণ যোগদান রয়েছে বলে মেনে নিয়েছেন। দলে জায়গা না পাওয়া ডেভিড উইলি আর স্যাম উইলিংসেরও তিনি নাম নিয়েছেন। ইয়োন মর্গ্যান নিজের বয়ানে আগে বলেন,

“আমাকে লিয়াম প্ল্যাংকেট দ্বারা শান্ত করা হচ্ছিল, যা খুব একটা ভাল সংকেত নয়। আমরা অনেকটা ইয়ো ইয়োর মত একবার উপরে একবার নীচে যাচ্ছিলাম। বেশ কিছু সাপোর্ট স্টাফ এবং প্লেয়ার – তারা না শুধু আমাদের দলের জন্য শ্রেষ্ঠ নয় বরং পুরো বিশ্বতেই তারা শ্রেষ্ঠ। তারা ওই সময় সত্যিই শান্ত থাকতে সাহায্য করেছে। যতক্ষণ না এটা রান্না সম্পূর্ণ হচ্ছিল আমি স্টোকসকে যেতে বলেছিলাম। সম্পূর্ণ শ্রেয় ওই দুজনের যারা সুপার ওভারে নিয়ে গিয়েছিল। ওদের পাঠানোর উদ্দেশ্য ছিল ওরা সদ্য ক্রিজে ছিল। যখনই আর্চার মাঠে নামে প্রত্যেকবার নিজেকে ইম্প্রুভ করে। সত্যিই অবিশ্বসনীয়- আজকে যারা ড্রেসিং রুমে ছিল, এবং যে দুজন স্কোয়াডে জায়গা করতে পারেনি – উইলি এবং বিলিংস, আমি প্রত্যকেরই নাম উল্লেখ করতে চাই”।

suvendu debnath

কবি, সাংবাদিক এবং গদ্যকার। শচীন তেন্ডুলকর, ব্রায়ান লারার অন্ধ ভক্ত। ক্রিকেটের...

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *