পাঁচজন খেলোয়াড় যারা ওয়ানডেতে একই ম্যাচে ৫০ এর বেশি রান ও পাঁচ উইকেট নিয়েছেন 1
স্যার ভিভিয়ান রিচার্ডস

 

ক্রিকেটকে অনিশ্চয়তার খেলা বলা হয়। দলটি এর আগে এক ওভার খারাপ করেছিল, পরের ওভারেই জিততে শুরু করতে পারে। শুধু তাই নয়, কখনও কখনও এমনও ঘটে যে কোনও খেলোয়াড় অনেক ম্যাচে পারফরম্যান্স করতে সক্ষম হন না, তবে হঠাৎ তিনি একটি ম্যাচে ফর্মে ফেরেন যা একটি রেকর্ড হয়ে যায়। প্রতিটি দলে একইভাবে এমন খেলোয়াড় থাকে যারা বল এবং ব্যাট দুই দিকেই দলকে ভারসাম্য দেয়। এই জাতীয় খেলোয়াড়কে অলরাউন্ডার বলা হয়। যারা তিনটি ক্ষেত্রেই দুর্দান্ত পারফরম্যান্স করে দলের জন্য সর্বাত্মক চেষ্টা করেন। আজ আমরা এমন কিছু অলরাউন্ডার খেলোয়াড়দের নিয়ে কথা বলব যারা একটি ম্যাচে ৫০ এরও বেশি রান করেছিলেন এবং পাঁচ উইকেটও নিয়েছিলেন।

পাঁচজন খেলোয়াড় যারা ওয়ানডেতে একই ম্যাচে ৫০ এর বেশি রান ও পাঁচ উইকেট নিয়েছেন 2

ভিভিয়ান রিচার্ডস (১১৯ রান এবং ৫ উইকেট): ১৯৮৭ সালে ওয়েস্ট ইন্ডিজ দল নিউজিল্যান্ড সফরে ছিল। ওয়ানডে সিরিজের প্রথম ম্যাচটি ডুনেডিন মাঠে খেলা হয়েছিল। এই ম্যাচে ওয়েস্ট ইন্ডিজ দল প্রথমে ব্যাট করে নয় উইকেট হারিয়ে ২৩৭ রান তোলে। ভিভিয়ান রিচার্ডস ওয়েস্ট ইন্ডিজ দলের হয়ে ১১৩ বলে ১১৯ রান করেছিলেন। এরপরে নিউজিল্যান্ডের দল যখন এই স্কোর তাড়া করতে মাঠে নেমেছিল, বোলাররাও ওয়েস্ট ইন্ডিজের হয়ে দুর্দান্ত বোলিং করেছিল। এমনকি ভিভিয়ান রিচার্ডস নিজেও ১০ ওভারে ৪১ রানে পাঁচজন খেলোয়াড়কে আউট করেছিলেন। উইন্ডিজ দলটি তাদের বোলিং এবং ব্যাটিংয়ের ভিত্তিতে ৯৫ রানে জিতেছিল।

KANT

কৃষ্ণমাচারী শ্রীকান্ত (৭০ রান এবং ৫ উইকেট): ১৯৮৮ সালে নিউজিল্যান্ডের দল ভারত সফরে ছিল। সেই সময় দুটি দলের তিনটি টেস্ট এবং পাঁচটি ওয়ানডে ম্যাচের সিরিজ খেলছিল। এটি বিশাখাপত্তনমে প্রথম ওয়ানডে ম্যাচের ঘটনা। টসে হেরে নিউজিল্যান্ড প্রথম ব্যাটিংয়ে নেমে দ্বিতীয় উইকেটে ১১৪ রানের পার্টনারশিপের ভিত্তিতে অ্যান্ড্রু জোনস (৬৬) এবং কেন রাদারফোর্ড (৬৭) মোট ১৯৬ রান করেছিল। এই ম্যাচে শ্রীকান্ত ভারতীয় দলের হয়ে ৭ ওভারে ২৭ রানে পাঁচ উইকেট নিয়েছিলেন। শুধু তাই নয়, ব্যাটিংয়েও শ্রীকান্ত ৭০ রান করেছিলেন। যার সাহায্যে ভারত নিউজিল্যান্ডকে ৪ উইকেটে হারিয়েছিল।

MARK WAUGH

মার্ক ওয় (৫৭ রান এবং পাঁচ উইকেট): এটি ১৯৯২ সালের ক্রিকেট বিশ্বকাপ। টুর্নামেন্টের সপ্তম লিগ ম্যাচে অস্ট্রেলিয়া এবং ওয়েস্ট ইন্ডিজের দল তখন মেলবোর্ন মাঠে মুখোমুখি হয়েছিল। ম্যাচে প্রথম ব্যাটিং করে অস্ট্রেলিয়া ৫০ ওভারে মার্ক ওয়ের ৫৭ এবং ড্যামিয়ান মার্টিনের ৪০ রানের সুবাদে ১৯৮ রান করে। এর পরে উইন্ডিজ যখন ব্যাট করতে নামল, মার্ক ওয় ওয়েস্ট ইন্ডিজের পাঁচ খেলোয়াড়কে আউট করলেন। এই উইকেটের মধ্যে ছিল ব্রায়ান লারা (৭৪) এবং রিচি রিচার্ডসন (৬১)।

lance

ল্যান্স ক্লুসনার (৫৪ রান এবং ছয় উইকেট): ১৯৯৭ সালে পাকিস্তান, শ্রীলঙ্কা, দক্ষিণ আফ্রিকা এবং ওয়েস্ট ইন্ডিজের মধ্যে পাকিস্তানে ম্যাচ খেলা হয়েছিল। যার বিজয়ী ছিল দক্ষিণ আফ্রিকা। এই টুর্নামেন্টে অলরাউন্ডার খেলোয়াড় দক্ষিণ আফ্রিকার ল্যান্স ক্লুসেনারের দুর্দান্ত পারফরম্যান্স ছিল। ১৯৯৯ বিশ্বকাপে ১৯৩.৭৫ এর স্ট্রাইক রেট দিয়ে ১৬ বলে ৩১ রান করেছিলেন ক্লুসনার, যা হেরে যাওয়া ম্যাচে টাই করতে সাহায্য করেছিল। ১৯৯৭ সালে লাহোরের গদ্দাফি স্টেডিয়ামে দক্ষিণ আফ্রিকা ৩১১ রান করেছিল এবং ল্যান্সের ৫৪ রানের পাশাপাশি গ্যারি কার্স্টেন এবং হ্যানসি ক্রোনিয়া ৫০ রান করেছিলেন। লক্ষ্য তাড়া করতে গিয়ে ক্লুজনার ছয় উইকেট নিয়ে শ্রীলঙ্কাকে ২৪৫ রানে থামিয়ে দিয়েছিল।

পাঁচজন খেলোয়াড় যারা ওয়ানডেতে একই ম্যাচে ৫০ এর বেশি রান ও পাঁচ উইকেট নিয়েছেন 3

আবদুল রাজ্জাক (৭০ রান এবং ৫ উইকেট): ২০০০ সালে পাকিস্তান, ভারত এবং অস্ট্রেলিয়ার মধ্যে একটি ট্রায়াঙ্গুলার সিরিজ খেলা হয়েছিল এবং এই টুর্নামেন্টের সপ্তম ম্যাচে পাকিস্তান ভারতকে ৩২ রানে পরাজিত করেছিল। যাইহোক, পাকিস্তান এবং ভারতের মধ্যে লড়াই সবস ময়ই উত্তেজনাপূর্ণ হয়। অস্ট্রেলিয়ায়ও এরকম কিছু ঘটেছিল হোবার্টে যখন এই দুটি দল মুখোমুখি হয়েছিল। এই ম্যাচে টস হেরে অলরাউন্ডার আবদুল রজ্জাকের ৭০ রানের, ইজাজ আহমেদের ৬৭ রানের কারণে পাকিস্তান প্রথমে ব্যাটিং করে ২৬২ রান করেছিল। জবাবে, শচীন তেন্ডুলকরের ৯৩ রানের লড়াইয়ের পরেও ভারতীয় দল মাত্র ২৩০ রানে শেষ হয়েছিল। কারণটি ছিল আবদুল রাজ্জাকের বোলিং। যিনি ১০ ওভারে ৪৮ রান দিয়ে ৫ জন ভারতীয় ব্যাটসম্যানকে প্যাভিলিয়নের পথ দেখিয়েছিল।

Leave a comment

Your email address will not be published.