৫টি নিঃস্বার্থ কাজ যা করে ভারতীয় খেলোয়াড়রা ভারতকে করেছেন বিশ্বের এক নম্বর 1

ভারতীয় দল নিজেদের ক্রিকেট ইতিহাসে বেশকিছু দুর্দান্ত আর স্মরণীয় জয় হাসিল করেছে। এর মধ্যে বেশকিছু সুবর্ণ আর আবেগী করে দেওয়া মুহূর্তও এসেছে। আজ আমরা এই বিশেষ প্রতিবেদনে আপনাদের ভারতীয় ক্রিকেট ইতিহাসের সবচেয়ে ৫টি নিঃস্বার্থ কাজের ব্যাপারে জানাতে চলেছি। ভারতীয় খেলোয়াড়দের দ্বারা করা এই কাজে প্রত্যেক ক্রিকেট প্রেমীই আবেগী হয়ে উঠেছিলেন।

গম্ভীর নিজের ম্যান অফ দ্য ম্যাচ দিয়েছিলেন কোহলিকে

৫টি নিঃস্বার্থ কাজ যা করে ভারতীয় খেলোয়াড়রা ভারতকে করেছেন বিশ্বের এক নম্বর 2

২৪ ডিসেম্বর ২০০৯এ বিরাট কোহলি শ্রীলঙ্কার বিরুদ্ধে ওয়ানডে ইন্টারন্যাশনাল ক্রিকেটে নিজের প্রথম সেঞ্চুরি করেছিলেন। বিরাট কোহলি এই ম্যাচে ১১৪ বলে ১০৭ রান করে আউট হয়ে গিয়েছিলেন। অন্যদিকে অন্যপ্রান্তে গৌতম গম্ভীর অপরাজিত ১৫০ রান করেছিলেন আর ভারতীয় দলকে ৭ উইকেটে জয় এনে দিয়েছিলেন। পোষ্ট ম্যাচ প্রেজেন্টেশনে রবি শাস্ত্রী ১৫০ রানের অপরাজিত ইনিংস খেলা গৌতম গম্ভীরের নাম ম্যান অফ দ্যা ম্যাচ পুরস্কারের জন্য ঘোষণা করেন, গম্ভীর পুরস্কার প্রদানকারীদের কাছে আসেন আর রবি শাস্ত্রীকে বলেন যে বিরাট কোহলিকে ডাকুন আর ওকে ম্যান অফ দ্যা ম্যাচ দিন, কারণ ও ডিজার্ভ করে। এরপর রবি শাস্ত্রী বলেন যে গৌতম গম্ভীর চান যে এই ম্যান অফ দ্যা ম্যাচ পুরস্কার বিরাট কোহলি হাসিল করুক, এরপর বিরাট যান আর তিনি এক লাখ টাকার চেক এবং একটি ট্রফি আর একটি মোবাইল হাসিল করেন।

ধোনি কোহলিকে দেন উইনিং শট মারার সুযোগ

৫টি নিঃস্বার্থ কাজ যা করে ভারতীয় খেলোয়াড়রা ভারতকে করেছেন বিশ্বের এক নম্বর 3

২০১৪র টি-২০ বিশ্বকাপের সেমিফাইনাল ম্যাচ ভারত আর দক্ষিণ আফ্রিকার মধ্যে খেলা হয়েছিল। এই ম্যাচে প্রথমে ব্যাটিং করে দক্ষিণ আফ্রিকার দল নির্ধারিত ২০ ওভারে ১৭৬ রানের একটা ভালো স্কোর করেছিল। জবাবে ভারতীয় দল এই লক্ষ্যকে বিরাট কোহলির দুর্দান্ত ৪৪ বলে ৭২ রানের ইনিংসের সৌজন্যে হাসিল করে নেয়। সুরেশ রায়নাও ১০ বলে ২১ রানের একটি ভালো ইনিংস খেলেছিলেন। শেষ ৭টি বলে ভারতের জয়ের জন্য মাত্র ১ রান দরকার ছিল। এই অবস্থায় স্ট্রাইকে ধোনি ছিলেন। তিনি বুরহান হেণ্ড্রিক্সের ১৯তম ওভারের শেষ বলটি খেলেন আর কোনো রান নেওয়ার চেষ্টা করেননি। তিনি এটা এই কারণে করেন কারণ তিনি কোহলির ব্যাট থেকে উইনিং রান চেয়েছিলেন। ২০তম ওভারের প্রথম বলেই বিরাট কোহলি উইনিং শট মেরে ভারতীয় দলকে জয় এনে দেন।

তরুণদের জন্য রাহুল দ্রাবিড় নেন অবসর

৫টি নিঃস্বার্থ কাজ যা করে ভারতীয় খেলোয়াড়রা ভারতকে করেছেন বিশ্বের এক নম্বর 4

মাঠে রাহুল দ্রাবিড়ের অক্লান্ত দৃষ্টিকোণ বেশকিছু তরুণ ক্রিকেটারদের বছরের পর বছর অনুপ্রাণিত করেছে। তিনি একজন বুদ্ধিমান ব্যক্তি আর অসাধারণ ব্যাটসম্যান ছিলেন। রাহুল দ্রাবিড় প্রায় ১৬ বছর ভারতীয় দলের হয়ে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট খেলেন আর ওয়ানডে এবং টেস্ট ক্রিকেট দুটিতেই ১০ হাজারের বেশি রান করেন। মার্চ ২০১২য় তিনি আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে অবসর নেওয়ার সিদ্ধান্ত নেন। তিনি নিজের ঘরের মাঠ ব্যাঙ্গালোরের এম চিন্নাস্বামী স্টেডিয়ামে এই ঘোষণা করেছিলেন। ২০জনে ভর্তি একটি কামরায়, যেখানে তার পরিবার আর সতীর্থতা উপস্থিত ছিলেন। দ্য ওয়াল অফ ইন্ডিয়ান ক্রিকেট বলেছিলেন তিনি চান যে আগামী প্রজন্মের ক্রিকেটাররা এখন আমার জায়গা সামলাক। দ্রাবিড়ের জন্য এটা স্পোর্টসম্যান স্পিরিট ধরে রাখার ব্যাপার ছিল।

শ্রীনাথ কুম্বলে দিয়েছিলেন ১০ উইকেট নেওয়ার সুযোগ

৫টি নিঃস্বার্থ কাজ যা করে ভারতীয় খেলোয়াড়রা ভারতকে করেছেন বিশ্বের এক নম্বর 5

ভারতীয় দলের প্রাক্তন কোচ আর সবচেয়ে সফল লেগ স্পিনার অনিল কুম্বলে ৭ ফেব্রুয়ারি ১৯৯৯তে দিল্লির ফিরোজ শাহ কোটোলার মাঠে পাকিস্তানের ১০জন খেলোয়াড়কে টেস্ট ম্যাচের একই ইনিংসে আউট করে বিশ্বরেকর্ড গড়েছিলেন। কুম্বলে এই কৃতিত্ব করে দেখানো বিশ্বের দ্বিতীয় বোলার হন। তার আগে ইংল্যান্ডের জিম লেকারই এই কৃতিত্ব করে দেখাতে পেরেছিলেন। জিম লেখার ১৯৫৬তে অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে এই কৃতিত্ব করে দেখিয়েছিলেন। ভারতের হয়ে ১৩২টি টেস্ট ম্যাচ খেলা অনিল কুম্বলে ৬১৯টি উইকেট নেন। আর এই ম্যাচ তার কেরিয়ারের মাইলস্টোন প্রমানিত হয়। এই ম্যাচে তিনি নিজের কেরিয়ারের সর্বশ্রেষ্ঠ বোলিং করে মোট ১৪টি উইকেট নিয়েছিলেন। তবে যখন কুম্বলের ৯টি উইকেট হয়ে গিয়েছিল, তো অন্যদিক থেকে বোলিং করা জাভাগল শ্রীনাথ হোয়াইড বল করতে থাকেন আর তিনি চেয়েছিলেন যে শেষ উইকেটও অনিল কুম্বলেই নিক।

রোহিতের ২৬৪ রানের ইইনিংসে উথাপ্পা পালন করেছিলেন বড়ো ভূমিকা

৫টি নিঃস্বার্থ কাজ যা করে ভারতীয় খেলোয়াড়রা ভারতকে করেছেন বিশ্বের এক নম্বর 6

১৩ নভেম্বর ২০১৪কে ভারতের তারকা ব্যাটসম্যান রোহিত শর্মার ২৬৪ রানের ইনিংসের জন্য স্মরণ করা হয়। হিটম্যান ২০১৪য় কলকাতার ঐতিহাসিক ইডেন গার্ডেনে শ্রীলঙ্কার বিরুদ্ধে চতুর্থ ওয়ানডে ম্যাচে এই স্পেশাল ইনিংস খেলেছিলেন। রোহিত কলকাতায় ১৭৩ বলে ৩৩টি চার আর ৯টি ছক্কার সাহায্যে ২৬৪ রান করেছিলেন। রোহিত শর্মার এই রেকর্ড ইনিংসে তার সঙ্গী রবিন উথাপ্পা বড়ো ভূমিকা পালন করেছিলেন। শেষ ওভারে উথাপ্পা বড়ো সিদ্ধান্ত নেন যার ফলে রোহিত শর্মা বিশ্বরেকর্ড গড়তে পারেন। তিনি এই ম্যাচে নিজের হাফসেঞ্চুরির ব্যাপারে একদমই ভাবেননি, বরং প্রতিটি সুযোগে তিনি রোহিত শর্মাকে স্ট্রাইক দেওয়ার ব্যাপারে একরোখা ছিলেন।

suvendu debnath

কবি, সাংবাদিক এবং গদ্যকার। শচীন তেন্ডুলকর, ব্রায়ান লারার অন্ধ ভক্ত। ক্রিকেটের...

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *