বিশ্বের সর্বকালের সেরা অধিনায়ক মহেন্দ্র সিং ধোনিকে নিয়ে কে কি ভাবেন, তা নিয়ে প্রচুর তর্ক-বিতর্কের অবকাশ রয়েছে। তবে, ক্রিকেট দেবতার অত্য়ন্ত স্নেহের পাত্র তিনি। স্মৃতির মণিকোঠায় ২০১১ সালের সেই ছবিটা এখনও লালন-পালন করে চলেছেন শচীন তেন্ডুলকর। ক্রিকেট কেরিয়ারে বিশ্বের সব বড় রেকর্ডগুলি নিজের নামের পাশে লিখিয়েও মনে শান্তি পাননি। কোথাও একটা খোঁচা রয়ে গিয়েছিল। ১৯৮৩ সালে কপিল দেব নিখাঞ্জের নেতৃত্বে ভারত যখন বিশ্বকাপ জেতে প্রথমবার, সেসময় খুদে শচীন স্বপ্ন দেখেছিলেন, বড় ক্রিকেটার হওয়ার। দেশের হয়ে বিশ্বকাপ জেতার। তাই ক্রিকেটার হওয়ার পর সব বড় রেকর্ড তাঁর কাছে এসে জড় হলেও ওই মনের ইচ্ছেটা অধরাই থেকে গিয়েছিল। আর তাঁর সেই স্বপ্নটা যিনি পূরণ করেছিলেন তিনি মহেন্দ্র সিং ধোনি। ভারতীয় ক্রিকেটের সর্বকালের সেরা অধিনায়ক। ২০০৩ সালের বিশ্বকাপ ক্রিকেট ফাইনালের ছবিটা যখন ২০১১ বিশ্বকাপের ফাইনালে মুম্বইয়ের ওয়াংখেড়ে স্টেডিয়ামে নেমে আসে – গোটা বিশ্বকাপে স্বপ্নের দৌড়ের পরও ফাইনালেও এসে শচীন আউট, তখন প্য়াভিলিয়নে ফিরতে ফিরতে মুখ শুকিয়ে গিয়েছিল গ্রেট তেন্ডুলকরের। তারপর আর তাঁকে দেখা যায়নি। বীরেন্দ্র সেহওয়াগকে নিয়ে ড্রেসিং রুমের ভেতরে বসে টিভি’তে শেষ পর্যন্ত খেলা দেখার গল্প এখন পুরনো হয়ে গিয়েছে। তবুও সেই দিনটার কথা যেন আজও মনে পড়ে। ধোনি যখন ছয় মেরে ভারতকে বিশ্ব চ্য়াম্পিয়ন করেন, ছোট্ট শিশুর মতো সবার আগে আনন্দে লাফ দিয়ে মাঠে চলে এসেছিলেন শচীন। ক্রিকেট দেবতার বুভুক্ষ হৃদয় সেদিন শান্ত হয়েছিল বিশ্বকাপজয়ী দলের সদস্য় হয়ে। অবসর নেওয়ার আগে ওই দিনটাই বাস্তবে দেখে যেতে চেয়েছিলেন ভারতীয় ক্রিকেটের রূপকথার নায়ক। আর সেই কারণেই ধোনিকে অত্য়ন্ত স্নেহ করেন শচীন। প্রকাশ্য়ে বহুবার বলতে শোনাও গিয়েছে তাঁকে যে যতজন অধিনায়কের নেতৃত্বে তিনি খেলেছেন, তার মধ্য়ে ধোনি সবার সেরা। শচীনের সঙ্গে একদিন ক্রিকেট খেলার স্বপ্ন নিয়ে ধোনি বড় হয়েছিলেন। সেই স্বপ্নের পরিণতি তাঁর আইডলকে বিশ্বকাপ এনে দিয়ে। সেদিনের সেই খুশির মুহূর্তের ছবিটা শচীন বৃহস্পতিবার ট্য়ুইট করেন। ধোনির ৩০০তম একদিনের আন্তর্জাতিক ম্য়াচ খেলতে নামার ঠিক আগে। শচীনের ট্য়ুইট, ”৩০০তম একদিনের আন্তর্জাতিক ম্য়াচ খেলতে চলেছ। অবশ্য়ই বিশেষ কৃতিত্ব। আশা করি, আজকের ম্য়াচটা তোমার দারুন কাটবে।”


উল্লেখ্য়, ধোনি ভারতের ষষ্ঠ ক্রিকেটার যিনি এই কৃতিত্বের অধিকারী হলেন। ভারতীয়দের মধ্য়ে সবার আগে প্রাক্তন অধিনায়ক মহম্মদ আজহারউদ্দিন এই গৌরব অর্জন করেন। তাঁর রেকর্ড ভাঙেন শচীন। তেন্ডুলকরের দখলে বিশ্ব ক্রিকেটে সবচেয়ে বেশি একদিনের আন্তর্জাতিক ম্য়াচ খেলার নজির রয়েছে। ভারতের হয়ে ৪৬৩টি ম্য়াচ খেলেছেন তিনি। একদিনের আসরে তাঁর ৪৯টি শতরান ও ৯৬টি অর্ধ-শতরানও বিশ্ব ক্রিকেটে নজির। শচীন ছাড়া বর্তমানে ধোনির আগে তিনশো ক্লাবের চার সদস্য় হলেন রাহুল দ্রাবিড় (৩৪৪), মহম্মদ আজহারউদ্দিন (৩৩৪), সৌরভ গাঙ্গুলি (৩১১) এবং যুবরাজ সিং (৩০৪)।

SHARE

আরও পড়ুন

আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে সর্বাধিক সেঞ্চুরির মালিক যে পাঁচ ক্রিকেটার

ক্রিকেটে একজন ব্যাটসম্যানের মানদণ্ড বিচার করার ক্ষেত্রে কোন ব্যাটসম্যান কত সংখ্যক সেঞ্চুরি হাঁকিয়েছেন তাঁর ক্যারিয়ারে তা অতীব...

দ্বিতীয় ওয়ানডেতে যে তিনটি মাইলফলক স্পর্শ করতে পারেন ভারতীয় ব্যাটসম্যানরা

ঘরের মাটিতে জয়রথ যেন থামছেই না টিম ইন্ডিয়ার। ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে সাদা পোশাকে সিরিজ জয়ের পর রঙিন...

স্ট্যাটস: ভারত বনাম ওয়েস্টইন্ডিজ: প্রথম ওয়ানডেতে হতে পারে সাতটি রেকর্ড, রোহিত আর ধবন ইতিহাস বইতে নথিভূক্ত করতে পারেন নিজের নাম

স্ট্যাটস: ভারত বনাম ওয়েস্টইন্ডিজ: প্রথম ওয়ানডেতে হতে পারে সাতটি রেকর্ড, রোহিত আর ধবন ইতিহাস বইতে নথিভূক্ত করতে পারেন নিজের নাম
ভারতীয় দল আর ওয়েস্টইন্ডিজ দলের মধ্যে পাঁচ ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজের প্রথম ম্যাচ আগামিকাল ২১ অক্টোবর গুয়াহাটির মাঠে...

হ্যাপি বার্থ ডে সেহবাগ: এই ৫টি জিনিস প্রমান করে যে এখনও পর্যন্ত হয়নি বীরেন্দ্র সেহবাগের মত ব্যাটসম্যান

হ্যাপি বার্থ ডে সেহবাগ: এই ৫টি জিনিস প্রমান করে যে এখনও পর্যন্ত হয়নি বীরেন্দ্র সেহবাগের মত ব্যাটসম্যান
বিশ্বের সবচেয়ে আক্রামণাত্মক ওপেনার্সদের একজন বীরেন্দ্র সেহবাগ ৪০তম জন্মদিন পালন করছেন। ক্রিকেট জগত আর ওপেনিংকে নতুন পরিভাষা...

প্রত্যেক উইকেট নেওয়ার পর মিলত ১০ টাকা, ভারতীয় দলে জায়গা পাওয়ার পর রাতভর কেঁদেছিলেন এই খেলোয়াড়

প্রত্যেক উইকেট নেওয়ার পর মিলত ১০ টাকা, ভারতীয় দলে জায়গা পাওয়ার পর রাতভর কেঁদেছিলেন এই খেলোয়াড়
নিজের দলের হয়ে উইকেট নিতে প্রত্যেক বোলারেরই ইচ্ছে থাকে। পাপু রায় এক এমন বোলার যার জন্য উইকেট...