মহেন্দ্র সিং ধোনীকে নিয়ে যা যা বললেন রবী শাস্ত্রী 1

মহেন্দ্র সিং ধোনীকে নিয়ে যা যা বললেন রবী শাস্ত্রী 2

ধোনী ফুরিয়ে গেল কিনা যখন এমন গুন্জন চলছে ঠিক তখন ই তাকে নিয়ে মুখ খুললেন ভারতীয় প্রধান কোচ রবী শাস্ত্র। সাফ জানিয়ে দিলেন, ধোনী এখনো অর্ধেকও শেষ হয় নি এবং ২০১৯ এর বিশ্বকাপের যখন যথেষ্ট যোগ্য। শ্রীলঙ্কার বিরুদ্ধে চলমান সিরিজের তিন ইনিংসে ধোনীর স্কোর ৪৫, ৬৭, ৪৯। শাস্ত্রী বলেন, ২০১৯ এর বিশ্বকাপ উপলক্ষ্যে ভারত পরীক্ষা নিরীক্ষা এবং পালা করে খেলোয়ারদের খেলালেও ধোনী নিশ্চিত ভাবে তাদের পরিকল্পনায় আছে। তিনি বলেন, “দলে ধোনীর যথেষ্ট প্রভাব আছে, সে ড্রেসিংরুমে দলের জীবন্ত কিংবদন্তি এবং খেলায় অলঙ্কার! ” তিনি বলেন, ” যদি কেউ ভেবে থাকে সে শেষ হয়ে গিয়েছে তবে সেটা ভুল এবং তারা বিস্মিত হবে। ধোনীর আরো অনেক কিছু করার বাকি আছে।” প্রধান কোচ বলেন, ধোনী অন্যদের থেকে অনেক এগিয়ে ই দেশ সেরা উইকেট রক্ষক। “কিভাবে আপনি খেলোয়ার বাছাই করবেন? যখন একজন ভাল খেলে এবং সীমিত ওভারের ক্রিকেটে ধোনী ই দেশ সেরা উইকেট রক্ষক। সে অনেক বছর ধরে খেলছে কেবল এই জন্য ই তার বিকল্প কাউকে নিতে হবে? তার ব্যাটিং পরিসংখ্যান ভুলে গিয়ে! ” ” সে দেশ সেরা। সুনীল গাভাস্কারের যখন ৩৬ বছর কিংবা শচিন টেন্ডুলকারের যখন ৩৬ বছর তখন কি আপনি তাদের বিকল্প কাউকে ভাবতে পারতেন? ধোনী এখনো ঠিক ভাবে তার দায়িত্ব পালন করছে, তাই তাকে বাদ দেওয়ার চিন্তা কেন করতে হবে?” রবী শাস্ত্রী প্রশ্ন রাখেন। তিনি জানান ভারতীয় দল বেশ কিছু সময় ধরে পরীক্ষা নিরীক্ষার ভিতর দিয়ে যাবে।

দলে সুযোগ পাওয়ার পূর্বশর্ত হবে ফিটনেস, নির্বাচকদের এমন সিদ্ধান্তও তিনি সমর্থন করেন। তিনি বলেন, ” বিশ্বকাপকে সামনে রেখে আমরা নিয়মিত ই পরীক্ষা নিরীক্ষা করব, এখান হারা বা জিতা মূল বিষয় না। অবশ্য ই আমরা জিতার জন্য খেলব কিন্তু বিশ্বকাপের জন্য আমরা সেরা দল বাছাই করার চেষ্টা করব। এমন ভাবে চললে বিশ্বকাপের ১২/১৪ মাস আগে আমরা ১৮/২০ জনের একটা সেরা দল পাব, যেখান হতে বিশ্বকাপের জন্য দল তৈরী করা হবে। ” শাস্ত্রী আবারো বলেন ফিটনেসের সাথে আপোষ করা হবে না। তার মতে, ” মাঠে আমরা সেরা ফিল্ডিং দল হতে চাই আর এ জন্য ফিটনেস ঠিক থাকা জুরুরী।”

তিনি বলেন, ” দল নির্বাচনের সাথে জড়িত হওয়া আমার কাজ না, কারন আমি চাই সব খেলোয়ার আমাকে বিশ্বাস করুক। দল নির্বাচন করা নির্বাচকদের কাজ। তারা অনেক বেশি খেলা দেখেন এবং সারা বছর ধরে সারা দেশের খেলা দেখেন। তাই তাদের চোখে তারা ই সুযোগ পাবে।” “যখন আপনি একই প্রতিপক্ষের বিরুদ্ধে অনেক ম্যাচ খেলবেন এবং টানা ভ্রমনে থাকবেন তখন মানসিকভাবে নিজেকে দৃঢ় রাখা গুরুত্বপূর্ণ। তখন নিজের উৎসাহ ও জয়ের জন্য ক্ষুদা ধরে রাখা বেশ কঠিন। আগামী দুই বছর যেমন অনেকগুলো সীমিত ওভারে ম্যাচ আছে তেমনি আছে অনেক গুলো টেস্ট ম্যাচও। ” বলেন রবী শাস্ত্রী। ভারতের যে কোন যায়গায় জয়ে সক্ষমতা আছে উল্লেখ করে বলেন, ” যদি আপনি বিশ্ব ক্রিকেটের প্রতি লক্ষ্য করেন তবে দেখবেন কোন দেশ ই ঘরে বাহিরে সমানভাবে ভাল খেলে না। কিন্তু ভারত সেটা পারে এবং অতীতেও তা করে দেখিয়েছে।”

Nazmus Sajid

Sports Fanatic!

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *