সুযোগ না পাওয়ায় ক্রিকেট থেকে অবসর নিলেন ভারতীয় ক্রিকেটার 1

অবসর নিলেন বাঁ-হাতি স্পিন বোলার রাকেশ ধ্রুব। ছত্রিশ বছরের এই ক্রিকেটার আঠারো বছরের ঘরোয়া ক্রিকেট কেরিয়ারে তিনটি রাজ্য়ের হয়ে অংশ নিয়েছেন। ১৯৯৯ সালে সৌরাষ্ট্রের হয়ে প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে অভিষেক। তারপর ২০১২/১৩ সালে গুজরাটে চলে যান। এরপরের সময়টা গুজরাটের হয়ে ক্রিকেট খেলা ঘরোয়া ক্রিকেটে। পরবর্তী মরশুমেই (২০১৪/১৫) বিদর্ভে চলে আসেন এবং এই দলের হয়েই প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন।

আঠারো বছর ধরে ঘরোয়া ক্রিকেট খেলে চললেও জাতীয় দলে কোনও দিন ডাক না পাওয়ায় আন্তর্জাতিক ক্রিকেট না খেলতে পারার আক্ষেপ নিয়েই অবসর নিতে হল রাকেশ ধ্রুবকে। কারণ, সব ক্রিকেটারই ছোটো থেকে একটাই স্বপ্ন দেখেন, দেশের হয়ে আন্তর্জাতিক ম্য়াচে অংশ নেওয়া। ২০১৩ সালে ভারত সফররত অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে গা-ঘামানোর ম্য়াচে বোর্ড সভাপতি একাদশের হয়ে বল করতে নেমে পাঁচ উইকেট নিয়ে প্রচারের আলোয় এসেছিলেন তিনি।

২০০৮ সালে অস্ট্রেলিয়া ভারত সফরে এলে বোর্ড সভাপতি একাদশের হয়ে গা-ঘামানোর ম্য়াচে ফের তিনি সুযোগ পেয়েছিলেন বিরাট কোহলি, রোহিত শর্মা ও আকাশ চোপড়ার সঙ্গে। আশ্চর্যের বিষয় এর মধ্য়ে প্রথম দুটি নাম বর্তমান ভারতীয় দলের অধিনায়ক ও সীমিত ওভারের ক্রিকেট দলের সহ-অধিনায়কের। আর আকাশ চোপড়া এখন অবসর নিয়ে ধারা ভাষ্য়কারের কাজ করছেন।

২০০০ সালে মহম্মদ কাইফের নেতৃত্বে অনূর্ধ্ব-১৯ ভারতীয় ক্রিকেট দল বিশ্ব চ্য়াম্পিয়ন হয়েছিল। সেবার সম্ভাব্য় ক্রিকেটাদরে তালিকায় নাম থাকলেও বিশ্বকাপের পনেরো জনের দলে জায়গা হয়নি তাঁর। দল ঘোষণার পর নির্বাচকরা জানিয়েছিলেন, দল গঠনের সময় রাকেশের নাম নির্বাচকরা তুলেও ছিলেন। তিনি তাঁদের পরিকল্পনাতেও ছিলেন। কিন্তু, পনেরো জনের দলে জায়গা হয়নি।

রাকেশ ধ্রুব ২০১৫ সালে শেষ বার প্রথম শ্রেণির ক্রিকেট খেলেছেন বিদর্ভ হয়ে। ৯৫টি প্রথম শ্রেণির ম্য়াচে তাঁর সংগ্রহ ২৭১টি উইকেট। এছাড়া ব্য়াটহাতে তাঁর সংগ্রহ ২৯৭১ রান, গড় ২৪.৯৬।

এতদিন অপেক্ষার পরও ভারতীয় দলে সুযোগ না আসায় প্রথম শ্রেণির ক্রিকেট থেকে আরও এক ক্রিকেটার অবসর নিচ্ছেন। তিনি দিশান্ত ইয়াগনিক। ঝাড়খণ্ডের বিরুদ্ধে রঞ্জি ট্রফির ম্য়াচের দ্বিতীয় দিনের খেলা শেষে রাজস্থানের এই চৌঁত্রিশ বছরের ক্রিকেটার জানিয়ে দেন, তিনি অবসর নিচ্ছেন। স্টার স্পোর্টসকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে দিশান্ত বলেন, একটা জায়গায় আমাকে থামতেই হতো, থামার প্রয়োজন রয়েছে। আইপিএল থেকে নির্বাসিত রাজস্থান রয়্য়ালসের এই প্রাক্তন ক্রিকেটার আক্ষেপের সুরে বলেন, ভারতীয় দলে জায়গা পাওয়ার আর কোনও সুযোগ নেই। তাই ক্রিকেট খেলা ছাড়ার সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলেছি।

২০০৪ সালে রাজস্থানের হয়ে প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে অভিষেক হয় উইকেটকিপার-ব্য়াটসম্য়ান দিশান্তের। দলের হয়ে সবচেয়ে বেশি মরশুম অংশ নেওয়া উইকেটকিপার তিনি। বোর্ড প্রি-সিজন ক্য়াম্পেইনে অধিনায়ক হিসেবেও তাঁকে রাখে। এবারও গোটা মরশুমে তাঁকে পাওয়া যাবে বলে এই আশাও ছিল। কিন্তু, সবাইকে অবাক করে দিয়ে আচমকা অবসরের সিদ্ধান্ত ঘোষণা করে দেন দিশান্ত ইয়াগনিক। একটি বেসরকারি সংবাদমাধ্য়ম সূত্রের খবর, টিম ম্য়ানেজমেন্ট তাঁকে খেলা চালিয়ে যেতে অনুরোধ করেছে। কারণ, এই মুহূর্তে বদলি হিসেবে তাদের হাতে দিশান্তের কোনও বিকল্প নেই।

৪৬টি প্রথম শ্রেণির ম্য়াচে ১৬২৭ রান করেছেন দিশান্ত ইয়াগনিক। ২০১১/১২ মরশুমে প্রথম ইনিংসে লিডের দরুন ফাইনালে তামিলাডু়কে হারিয়ে রঞ্জি চ্য়াম্পিয়ন হয়েছিল রাজস্থান। দিশান্ত ওই টিমের অন্য়তম সদস্য ছিলেন।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *