রবিচন্দ্রন অশ্বিন কেনো হলেন দুঃখিত, বললেন রাজনীতি করবেন না 1

ভারতীয় স্পিনার রবিচন্দ্রন অশ্বিন সম্প্রতি সিরিজে ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে ৪০০তম টেস্ট উইকেট হাসিল করেছেন। এরপর তিনি কিছু টুইট করেন। যারপর টুইটারে তাকে নিয়ে টুইটের বন্যা বয়ে যায়। বেশকিছু মানুষ অশ্বিনের টুইটের ভুল মানে করে। যারপর তাকে এই ব্যাপারে সাফাই দিতে সামনে আসতে হয়।

কৃষক আন্দোলনের সঙ্গে যোগ করা হয় টুইটকে

টেস্ট ক্রিকেটে ৪০০ উইকেট নেওয়ার পর অশ্বিন কয়েকটি টুইট করেন। অশ্বিন ৪০০ উইকেট নেওয়া ভারতের দ্বিতীয় জোরে বোলার। আসলে রবিচন্দ্রন অশ্বিন নিজের করা টুইটে লেখেন, “বাজারে সব ধরণের উৎপদন বিক্রি করার জন্য একটি রণনীতি তৈরি করা হয়। আমরা সেই যুগে বাস করছি যেখানে ভাবনাও বিক্রি করা হয়। এটাকে বাইরের মার্কেটিংয়ের অংশও মনে করা যেতে পারে। আমাদের ভাবনা কেনার জন্যও বলা হয়”।

অশ্বিনের এই টুইটের পর মানুষ এটাকে কৃষক আন্দোলনের সঙ্গে যুক্ত করছেন। রবিচন্দ্রন অশ্বিন শুক্রবার মিডিয়া হাউজগুলোর সঙ্গে কথা বলার সময় বলেন যে তারা যেনো তার মন্তব্যের রাজনীতিকরণ করা বন্ধ করেন।

স্রেফ ক্রিকেটই আমার পেশা

আসলে রবিচন্দ্র অশ্বিন মোট তিনটি টুইট করেছিলেন। যার মধ্যে প্রথম টুইটে তিনি লিখেছিলেন, “আপনি নিজে কিছু ভাবতে পারবেন না। আমরা আপনাকে শেখাব যে কীভাবে ভাবতে হয় আর কী রকমভাবে ভাবতে হয়। ১০ বছর পর্যন্ত এই খেলাটা খেলার পর এটা নিশ্চিতভাবে বলতে পারি যে যতক্ষণ এটাকে কেনার জন্য অধীর থাকবেন এরা আমাদের মুখে কথা বসাবে”।

অশ্বিন দ্বিতীয় টুইটে লেখেন, “শেষে আমি এটাই বলতে চাইব যে আমাদের নিজেদের ভাবনা ভাবা উচিত আর তাকেই বজায় রাখা উচিত, তা সে যতই বেশিরভাগ মানুষের চেয়ে আলাদা হোক না কেনো। কম সে কম আপনার ভাবনা তো সেটা নয় যা আপনাকে বেচা হচ্ছে”।

অশ্বিন সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করেছেন ভিডিও

অশ্বিন নিজের তিনটি টুইটের কারণে ক্রমবৃদ্ধিমান বিতর্ক আর রাজনীতির কারণে একটি ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করেছেন। যেখানে তিনি বলেছেন যে কোনো রকম রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে তিনি টুইট করেননি। সেই সঙ্গে অশ্বিন আরও বলেছেন যে তিনি ভুল করে ক্রিকেটার হয়ে গিয়েছেন, কিন্তু ক্রিকেটই তার একমাত্র পেশা আর কিছু নয়। তার টুইটকে অন্য কোনো বিষয়ের সঙ্গে যুক্ত না করা হয়। এই ব্যাপারে তিনি এর বেশি কিছু বিস্তারিত কথা বলেননি।

suvendu debnath

কবি, সাংবাদিক এবং গদ্যকার। শচীন তেন্ডুলকর, ব্রায়ান লারার অন্ধ ভক্ত। ক্রিকেটের...

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *