বীরেন্দ্র সেহওয়াগকে চড় মেরে বসেছিলেন এই বড়সড় ব্যক্তিত্ব! রেগে লাল হয়ে গিয়েছিলেন সৌরভ গাঙ্গুলী 1

ভারতীয় ক্রিকেট দলের (India) ইতিহাসে একবার এমন বিতর্ক দেখা গিয়েছিল, যা কেউ মনে রাখতে চাইবে না। আসলে, টিম ইন্ডিয়ার বিস্ফোরক ওপেনার বীরেন্দ্র সেহওয়াগকে (Virender Sehwag) একবার চড় মেরেছিলেন এক ব্যক্তি। এই ঘটনার পরপরই ব্যাপক তোলপাড় শুরু হয় এবং সেই সময়ের অধিনায়ক সৌরভ গাঙ্গুলী (Sourav Ganguly) খুবই ক্ষুব্ধ হন। সেহওয়াগকে থাপ্পড় মারার পর সৌরভ গাঙ্গুলী অশান্ত হন।

এই ব্যক্তি বীরুকে চড় মেরেছিল

বীরেন্দ্র সেহওয়াগকে চড় মেরে বসেছিলেন এই বড়সড় ব্যক্তিত্ব! রেগে লাল হয়ে গিয়েছিলেন সৌরভ গাঙ্গুলী 2

বিসিসিআই (BCCI) সহ-সভাপতি রাজীব শুক্লা (Rajiv Shukla) ২০১৩ সালে একটি ইভেন্টের সময় এটি প্রকাশ করেছিলেন। আসলে, ২০০২ সালে ভারতের ইংল্যান্ড সফরে ওডিআই সিরিজের সময়, টিম ইন্ডিয়ার তৎকালীন কোচ জন রাইট (John Wright) সেহওয়াগের ব্যাটিং নিয়ে খুব রেগে গিয়েছিলেন। ক্রমাগত ব্যর্থ হচ্ছিলেন সেহওয়াগ। কয়েক বলে আউট হয়ে যেতেন। একদিন জন রাইট এতটাই রেগে গিয়েছিলেন যে তিনি সেহওয়াগকে চড় মেরেছিলেন। গাঙ্গুলী যখন জানতে পারলেন রাইট সেহওয়াগকে চড় মেরেছেন, তখন তিনি ক্ষিপ্ত হয়ে উঠেছিলেন, রাজীব শুক্লা তখন দলের ম্যানেজার ছিলেন। গাঙ্গুলী শুক্লাকে বলেছিলেন যে জনকে ক্ষমা চাইতে হবে। শুক্লা গাঙ্গুলিকে বলেছিলেন যে তিনি এই বিষয়ে জন রাইটের সাথে কথা বলবেন। জন রাইট ড্রেসিংরুমের বাইরে সিগারেট খাচ্ছিলেন। একই সঙ্গে সেহওয়াগকে চড় মারার প্রসঙ্গও তুলেছেন শুক্লা।

শচীন টেন্ডুলকারের মতামত ছিল ভিন্ন

বীরেন্দ্র সেহওয়াগকে চড় মেরে বসেছিলেন এই বড়সড় ব্যক্তিত্ব! রেগে লাল হয়ে গিয়েছিলেন সৌরভ গাঙ্গুলী 3

জন তাকে বলেছিলেন যে তিনি একজন শিক্ষক হিসাবে সেহওয়াগের উপর তার রাগ প্রকাশ করেছিলেন। জন তার উত্তরে বলেছেন, “আমি শুধু ধাক্কা দিয়েছি, চড় মারিনি। বারবার একই ভুলের পুনরাবৃত্তি করছিলেন। আমি তার ভুল সহ্য করতে পারিনি।” কিন্তু সৌরভ গাঙ্গুলী অনড় ছিলেন যে কোনো অবস্থাতেই জন রাইটকে ক্ষমা চাইতে হবে। অন্যদিকে শচীন টেন্ডুলকারের (Sachin Tendulkar) ভিন্ন মত ছিল। রাজীব শুক্লা বলেছিলেন যে শচীন আমাকে সাইডে নিয়ে গিয়ে বলেছিলেন যে যাই ঘটুক না কেন, জন রাইটে ক্ষমা চাওয়া উচিত নয়। তিনি বলেছেন যে আমি শচীনের পরামর্শ বুঝতে পেরেছি যে কোচ যদি ক্ষমা চান তবে পরবর্তী কী হবে। এর পর সেহওয়াগকে বুঝিয়ে দিলেন রাজীব শুক্লা। সেহওয়াগ বুঝতে পেরেছিলেন এবং বলেছিলেন যে জনের ক্ষমা চাওয়ার দরকার নেই।

Leave a comment

Your email address will not be published.