ঝাড়ুদারের জীবনকে পিছনে ফেলে বাইশ গজের দুনিয়ায় উজ্জ্বল রিঙ্কু সিং? জেনে নিন তাঁর বেড়ে ওঠার সম্পূর্ণ কাহিনী !! 1

ভারতীয় ক্রিকেটে গলি থেকে রাজপথে উঠে আসার সাম্প্রতিকতম কাহিনীর নায়ক রিঙ্কু সিং। উত্তরপ্রদেশের আলিগড়ের এক নিম্ন মধ্যবিত্ত পরিবারে জন্ম রিঙ্কু’র (Rinku Singh)। বাবা বাড়ি বাড়ি এলপিজি গ্যাসের সিলিন্ডার বিলি করতেন। ছোটো থেকে দারিদ্রের সাথে লড়াই করে উঠে এসে এখন ক্রিকেটজনতার নয়নের মণি তিনি। আর এই সবকিছুর নেপথ্যেই রয়েছে আইপিএল। ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লীগ ট্রফির গায়ে খোদাই করা রয়েছে একটি সংস্কৃত শ্লোক, যার বাংলা তর্জমা করলে দাঁড়ায়, ‘যেখানে প্রতিভা আত্মপ্রকাশের মঞ্চ খুঁজে পায়।’ কথাটি একদম মিলে যায় রিঙ্কুর (Rinku Singh) জীবনের সঙ্গে। বেশ কয়েকবছর নাইট রাইডার্স (KKR) শিবিরের অংশ হলেও এতদিন সুযোগের অভাবে লাইমলাইটে আসতে পারছিলেন না তিনি। এই বছর কোচ চন্দ্রকান্ত পণ্ডিত মিডল অর্ডারে রিঙ্কুকে (Rinku Singh) ব্যবহার করেছেন নিয়মিত। ব্যাটের জাদুতে নাইট দলের ভরসা হয়ে উঠেছেন বাঁ-হাতি রিঙ্কু।

টুর্নামেন্টে ১৪ ম্যাচে প্রায় ৬০ ব্যাটিং গড়ে রিঙ্কুর (Rinku Singh) সংগ্রহ ৪৭৪ রান। স্ট্রাইক রেটও ১৫০’র আশেপাশে। এই আইপিএলে গুজরাত টাইটান্সের বিরুদ্ধে শেষ ওভারে নাইট রাইডার্সের দরকার ছিলো ২৯ রান। যশ দয়ালকে পরপর পাঁচ বলে ছয় মেরে প্রায় অসম্ভবকে সম্ভব করেন তিনি। লক্ষ্ণৌ সুপারজায়ান্টসের (LSG) বিরুদ্ধেও ৩৩ বলে করেন ৬৭* রান। নাইট রাইডার্স অধিনায়ক নীতিশ রানা (Nitish Rana) অবধি বলেন, “প্রতিবার আন্দ্রে রাসেলের নামে জয়ধ্বনি শুনি। এবার সেটাই বদলে গিয়েছে রিঙ্কু… রিঙ্কু স্লোগানে।” আক্ষরিক অর্থেই জনতার মন জিতে নিয়েছেন তিনি। আইপিএলের সাফল্যের সূত্রে জায়গা করে নিয়েছেন জাতীয় দলে। কঠিন পরিশ্রম করলে স্বপ্ন যে অধরা থাকে না যুবসমাজের সামনে তাঁর উদাহরণ হয়ে উঠেছেন রিঙ্কু (Rinku Singh)। দেশবাসীর নতুন ‘হার্টথ্রব’-এর বেড়ে ওঠার কাহিনী হার মানাবে বলিউডের সিনেমাকেও।

Read More: IPL 2024: পয়সার লোভে কেরিয়ার বরবাদ করছেন হার্দিক পান্ডিয়া, মুম্বই দলে পাবেন না যোগ্য সম্মান !!

দারিদ্র’কে হারিয়ে সাফল্যের সরণিতে রিঙ্কু-

Rinku Singh | Image: Getty Images
Rinku Singh | Image: Getty Images

অর্থের সংস্থান করতে একটা সময় নাকি ঝাড়ুদারের কাজও করেছেন রিঙ্কু সিং (Rinku Singh)। প্রতিভাবান তরুণ ক্রিকেটার সম্পর্কে এমনটা শোনা গিয়েছে শেষ কয়েক মাস ধরে। খবরটি আংশিক সত্যি। একটা সময় সত্যিই ঝাড়ুদারের কাজ পেয়েছিলন তিনি। কিন্তু পছন্দ না হওয়ায় ছেড়ে দিয়েছিলেন তা। আইপিএল সাফল্যের পর এনডিটিভি’কে দেওয়া সাক্ষাৎকারে রিঙ্কু (Rinku Singh) নিজেই জানিয়েছিলেন, “আমার বাবা বাড়ি বাড়ি গ্যাস সিলিন্ডার বিক্রি করতেন। আমাকেও বলেছিলেন কাজে যোগ দিতে। তাতে কিছু পয়সা রোজগার হত। কিন্তু আমার ভালো লাগতো না। আমার ওপরেও দায়িত্ব ছিলো পরিবারের জন্য কিছু করার। শেষমেশ ক্রিকেট ছেড়ে ঝাড়ুদারের কাজ নিয়েছিলাম। কিন্তু মন টেকেনি। ছেড়ে দিয়েছিলাম। এরপর মা’কে বুঝিয়েছিলাম আমার ক্রিকেট খেলার পাশে দাঁড়াতে। বলেছিলাম ভালো ক্রিকেট খেলতে পারলে ঘরে অর্থ আসবে।“

ক্রিকেটকে ধ্যানজ্ঞান করার সিদ্ধান্ত যে সঠিক ছিলো তা অবশ্য টের পাওয়া গিয়েছে গত কয়েক মাসেই। আয়ারল্যান্ড সিরিজে প্রথম ভারতীয় জার্সিতে মাঠে নামার সুযোগ হয় রিঙ্কুর (Rinku Singh)। প্রথম ম্যাচে বৃষ্টি বাধা দেওয়ায় ব্যাট হাতে মাঠেই নামতে পারেন নি। দ্বিতীয় ম্যাচেই ধুন্ধুমার ইনিংস খেলে সেরা খেলোয়াড়ের পুরষ্কার পান। চীনের হাংঝৌতে এশিয়ান গেমসে সোনাজয়ী দলেরও সদস্য ছিলেন তিনি। দেশের মাঠে চলতি অস্ট্রেলিয়া সিরিজেও ব্যাট হাতে ঝড় তুলেছেন তিনি। বিশাখাপত্তনমে শেষ ওভারে স্নায়ুর চাপ সামলে দলকে জয় এনে দিয়েছেন ১৪ বলে ২২ রান করে। আর তিরুঅনন্তপুরমে ৯ বলে করেছেন ৩১*। এখনও অবধি ৪ ইনিংসে ১২৮ গড়ে করেছেন ১২৮ রান। স্ট্রাইক রেট ২১৬.৯৫। সাফল্যের আরও নতুন নতুন শৃঙ্গ জয় করুন রিঙ্কু (Rinku Singh), দেশবাসীর প্রার্থনা এখন এমনটাই।

Also Read: Team India: বিশ্বকাপের আগে ভুল শুধরে নিচ্ছে বিসিসিআই, এই অভিজ্ঞ খেলোয়াড়দের হাতে এবার দলের দায়িত্ব !!

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *