PAK vs ENG: তীরে এসে ডুবলো তরী, অশ্রুসজল চোখে টি-২০ বিশ্বকাপ'কে বিদায় জানালেন পাকিস্তানী ক্রিকেটার'রা !! 1

PAK vs ENG: ২০২২ টি-২০ বিশ্বকাপের যবনিকা পতন হলো আজ। ইংল্যান্ড না পাকিস্তান? কার হাতে উঠতে চলেছে মহামূল্যবান শিরোপা? আগ্রহ নিয়ে তাকিয়ে ছিলো গোটা ক্রিকেটবিশ্ব। ২০০৯ সালের চ্যাম্পিয়ন বনাম ২০১০ সালের খেতাবজয়ী’র লড়াই দেখতে মুখিয়ে ছিলো মেলবোর্ন। গ্রুপ পর্বে প্রথম দুই ম্যাচে হেরে বাইরে বিশ্বকাপের বাইরে চলে গিয়েছিলো পাকিস্তান। সেখান থেকে অবিশ্বাস্য কামব্যাক করেছে তারা। নেদারল্যান্ডস দক্ষিণ আফ্রিকা’কে হারানোয় যে লাইফলাইন পেয়েছিলেন শাহীন শাহ আফ্রিদি’রা, তা কাজে লাগিয়ে শিরোপা জিততে নিজেদের সর্বস্ব দিলেন বাবর আজম’রা। এই মেলবোর্নেই ইংল্যান্ড’কে হারিয়ে একদিনের বিশ্বকাপ ঘরে তুলেছিলেন ইমরান খান, ওয়াসিম আক্রম’রা। বাবর আজম, মহম্মদ রিজওয়ান’রা চেয়েছিলেন সেই সুদিন ফেরাতে। কিন্তু পারলেন না তাঁরা। এক ধাপ দূরেই থেমে গেলো স্বপ্নের দৌড়। পাকিস্তান’কে হারিয়ে টি-২০ বিশ্বকাপ জিতলো ইংল্যান্ড। কাছাকাছি এসেও ট্রফি ছুঁতে না পারার আক্ষেপ চোখের জল হয়ে ঝড়ে পড়লো মেলবোর্নের সবুজ ঘাসে।

কারান-স্টোকসের বিক্রমে কাপ ইংল্যান্ডের-

Team England | image: gettyimages
After a hard fought game, England defeated Pakistan to become the new T20 world Champions.

কথা ছিলো বৃষ্টি’তে ভাসবে টি-২০ বিশ্বকাপ ফাইনাল। বাস্তবে এক ফোঁটা বৃষ্টিও এলো না খেলা চলার সময়। মাঠের দর্শকেরা চেয়েছিলেন রানের বৃষ্টি হোক বাইশ গজে। তা হতে দিলেন না স্যাম কারান(Sam Curran), আদিল রশিদ’রা(Adil Rashid)। টসে জিতে প্রথমে বোলিং করে ইংল্যান্ড। পাকিস্তানের বিপজ্জনক ওপেনিং জুটি’কে বেশীদূর এগোতে দেন নি স্যাম কারান। ফিরিয়ে দেন মহম্মদ রিজওয়ান’কে। দুর্দান্ত বল করে ১২ রানের বিনিময়ে তুলে নেন ৩ উইকেট। ২ উইকেট নেন আদিল রশিদ। দুটি উইকেট ঝুলিতে ভরেন ক্রিস জর্ডান’ও। ইংরেজ বোলিং দাপটে ১৩৭ রানেই গুটিয়ে যায় বাবর আজমদের ইনিংস। বল হাতে পালটা লড়লেন পাকিস্তানীরাও। তবে বড় ম্যাচের মসীহা বেন স্টোকসের(Ben Stokes) অনবদ্য অর্ধশতকে ভর করে  লক্ষ্যমাত্রা পার করে দেয় ইংল্যান্ড। দ্বিতীয় দল হিসবে স্বিতীয় বার টি-২০ বিশ্বকাপ ঘরে তুলে উৎসবে মাততে দেখা যায় জস বাটলার(Jos Buttler), মইল আলিদের(Moeen Ali)। দেখে নিন সেই জয়ের মুহূর্ত-

 চোখের জল আটকাতে পারলেন না পাক ক্রিকেটার’রা-

Pakistan team | image twitter
Pakistan players were in a state of mourning after losing the T20 World Cup final against England.

নিজেদের গ্রুপ পর্বের প্রথম দুই ম্যাচে হারের পর তারা যে ফাইনাল খেলবেন এই কথা অতি বড় পাকিস্তানী সমর্থক মনে হয় ভাবেন নি। কিন্তু কল্পনা’কে বাস্তবে পর্যবসিত করে এমসিজি’তে এসেছিলেন মহম্মস হ্যারিস, শাদাব খানেরা। ১৯৯২ সালের সোনালি অতীত ফেরাতে দরকার ছিলো আর একটা জয়ের। কিন্তু পারলেন না বাবর’রা। লড়লেন স্বল্প রানের পুঁজি নিয়েও। ইয়ান বথাম সেদিন পারেন নি তবে আজ পাকিস্তানী প্রতিরোধ ভেঙে দেখালেন বেন স্টোকস। ম্যাচ হেরে রানার্স আপের রূপোলী মেডেলগুলো যেন গলায় ফাঁসের মত লাগছিলো পাকিস্তানী খেলোয়াড়দের। তাঁদের এগিয়ে এসে জড়িয়ে ধরেন পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ডের সভাপতি রামিজ রাজা। চোখের জল ধরে রাখতে পারেন নি ফাস্ট বোলার হ্যারিস রউফ(Haris Rauf)। বেশ কয়েকবার চোখ মুছতে দেখা যায় তাঁকে। ফাইনালে চোট পেয়ে মাঠ ছেড়েছিলেন শাহীন শাহ আফ্রিদি(Shaheen Shah Afridi)। মুখ নীচু করে বসে ছিলেন তিনিও। নাসিম শাহ থেকে শান মাসুদ বেদনার ছাপ স্পষ্ট প্রত্যেকের মুখে। ২০২১ সালে সেমিফাইনালে হয়েছিলো স্বপ্নভঙ্গ। আর ২০২২ এ চুরমার হলো ফাইনালে। পরপর দুইবারের কাপ ফস্কানোর যন্ত্রণায় ভেঙে পড়েছে পাক শিবির।

Leave a comment

Your email address will not be published.