IND vs PAK: "থামতে জানো না তুমি..." ম্যাচ শেষে নায়ক বিরাট'কে শুভেচ্ছা স্ত্রী অনুষ্কা'র !! 1

IND vs PAK: প্রত্যাশা ছিলো জমজমাট একটা ম্যাচের। ভক্তদের প্রত্যাশা সুদে আসলে মিটিয়ে দিয়ে গেলো ২০২২ টি ২০ বিশ্বকাপের ভারত বনাম পাকিস্তান দ্বৈরথ। ইতিহাসের পাল্লা ছিলো ভারতের দিকে ঝুঁকে। পাকিস্তানের পক্ষে ছিলো গত বিশ্বকাপে ভারত’কে ১০ উইকেটে হারানোর স্মৃতি। দুই পক্ষের টক্করে এই মহামোকাবিলায় স্ফুলিঙ্গ ঠিকরে বেরোলো। টসে জিতে প্রথমে পাকিস্তান’কে ব্যাট করতে পাঠান ভারত অধিনায়ক রোহিত শর্মা। শুরুতেই ফিরে যান বাবর আজম এবং মহম্মদ রিজওয়ান। জাঁকিয়ে বসেন ভারতের পেসার’রা। শান মাসুদ আর ইফতিকার আহমেদের জোড়া হাফসেঞ্চুরি’তে পাকিস্তান শেষমেশ পৌঁছায় ১৫৯ এ। ৩ টি করে উইকেট পান অর্শদীপ সিং ও হার্দিক পান্ডিয়া।জবাবে ব্যাট করতে নেমে বিপর্যয়ের মুখে পড়ে ভারত। এক সময় ৩১ রানে ৪ উইকেট খুইয়ে হারের প্রহর গুনছিলো ‘মেন ইন ব্লু।’ তখন ব্যাট হাতে প্রাচীর হয়ে দাঁড়ান বহুযুদ্ধের ঘোড়া বিরাট কোহলি। সাথে পান হার্দিক পান্ডিয়া’কে।দু;জনের ১১৩ রানের জুটি ভারত’কে শুধু ম্যাচ জেতায় নি ,টি২০ ক্রিকেটের ইতিহাসে রান তাড়া করা’র এক ‘মাস্টারক্লাস’ রচনা করে গিয়েছে। পান্ডিয়া ৩৭ বলে ৪০ করে আউট হলেও , ৫৩ বলে ৮২ করে অপরাজিত থাকেন ‘কিং কোহলি।’

স্ত্রী অনুষ্কা’র সার্টিফিকেট পেলেন বিরাট

IND vs PAK: "থামতে জানো না তুমি..." ম্যাচ শেষে নায়ক বিরাট'কে শুভেচ্ছা স্ত্রী অনুষ্কা'র !! 2

মহাকাব্যিক ইনিংস খেলে ম্যাচ জিতিয়ে শুভেচ্ছার সাগরে ভাসছেন বিরাট। ট্যুইটার,ফেসবুক হোক বা ইন্সটাগ্রাম, সমাজমাধ্যমে সবার মুখে এখন একটাই নাম। বিরাট…বিরাট আর বিরাট । কঠিন পরিস্থিতি’তে যে ব্যাটিং আজ তিনি করেছেন মেলবোর্নে, তার কোনো প্রশংসা’ই যথেষ্ঠ নয়। ট্যুইটার ট্রেন্ড করছে তাঁর নাম, ম্যাচের সেরা’র পুরষ্কার পেয়েছেন। তবে সবচেয়ে বড় স্বীকৃতি’টা তিনি নিঃসন্দেহে পেয়েছেন তাঁর নিজের ঘরণী’র থেকে। সকল ভারতবাসীর মতই আনন্দে উদ্বেলিত বিরাট জায়া অনুষ্কা’ও। নিজের ইন্সটাগ্রামে বিরাটের একটি ছবি পোস্ট করে বলিউড অভিনেত্রী অনুষ্কা লিখেছেন, ” তুমি দারুণ। তুমি সত্যিই দারুণ। দীপাবলির আগে অনেক মানুষের জীবনে তুমি এক বিরাট খুশির মূহুর্ত এনে দিয়েছ। প্রিয় বিরাট, তুমি একজন অসাধারণ মানুষ। তোমার মনের জোর, অধ্যবসায় ও আত্মবিশ্বাস আমায় অবাক করে। আজ আমি আমার জীবনের সেরা ম্যাচ’টা দেখলাম। যদিও আমাদের মেয়ে এখনও খুব ছোটো, তাই বোঝে নি ওর মা কেন খুশিতে নাচছে এবং চিৎকার করছে। তবে একদিন নিশ্চয় বুঝবে সেদিন ওর বাবা নিজের জীবনে’র একটা কঠিন অধ্যায় পেরিয়ে নিজের জীবনের শ্রেষ্ঠ ইনিংস’টা খেলেছিলো। এই অধ্যায়’টা কঠিন ছিলো কিন্তু তা ওর বাবা’কে মানসিক ভাবে দৃঢ় করেছিলো। “ এখানেই থামেন নি অনুষ্কা। আরও লিখেছেন, “তোমার জন্য গর্বিত। তোমার সাহস ছড়িয়ে পড়ে আশেপাশের সবার মধ্যে। আর বিরাট ‘মাই লাভ’, তুমি থামতে জানো না।”

দেখে দিন অনুষ্কা’র ইন্সটাগ্রাম পোস্ট’টি-

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *