ENG vs IND

ENG vs IND: এই মুহুর্তে খবরের শিরোনামে ঋষভ পন্থ (Rishabh Pant)। ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে শতরান করে সব আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে তিনি। আর এমন একটা সময় পাকিস্তানের প্রাক্তন ফাস্ট বোলার মোহাম্মদ আসিফের (Mohammad Asif) একটি টুইট সোশ্যাল মিডিয়ায় ক্রমশ ভাইরাল হচ্ছে। এই টুইটের মাধ্যমে বিরাট কোহলিকে (Virat Kohli) নিয়ে বড় দাবি করেছেন তিনি। কিং কোহলিকে নিয়ে ১০ বছর আগে তাঁর মন্তব্য এখন শিরোনামে। সেই সময় আসিফ (Mohammad Asif) কী বলেছিলেন, এই প্রতিবেদনের মাধ্যমে আবারও মনে করিয়ে দেন। তিনি আবারও উল্লেখ করেন যে তিনি পন্থ এবং কোহলি সম্পর্কে যা বলেছেন সেটা একেবারে নির্ভুল।

কোহলি ও পন্থকে নিয়ে বড়সড় বক্তব্য দিলেন আসিফ

আসলে, বিরাট কোহলি (Virat Kohli) সম্পর্কে কথা বলার সময়, প্রাক্তন পাকিস্তানি ক্রিকেটার দাবি করেছিলেন যে বিরাট একবার ফর্মের বাইরে চলে গেলে, তিনি আর ফিরতে পারবেন না। কারণ সে একজন নিচের হাতের খেলোয়াড় এবং তার ক্রিকেট পুরোপুরি ফিটনেসের ওপর নির্ভরশীল। যেদিন তার ফিটনেস চলে যাবে, তার ফর্মও চলে যাবে। শচীন তেন্ডুলকারকে কখনই হারাতেও পারবেন না বিরাট । কোহলি এবং পন্থ (Rishabh Pant) সম্পর্কে কথা বলতে গিয়ে মোহাম্মদ আসিফ (Mohammad Asif) বলেন,

“আমি ইংল্যান্ড এবং ভারতের মধ্যে ম্যাচ দেখেছি। এই ম্যাচে ঋষভ পন্থ শতরান করেছেন। তবে পন্থ নীচের হাতটি ব্যবহারই করেনি। শুধুমাত্র তার উপরের হাত ব্যবহার করে রান করেছে। আমি পন্থের বিরুদ্ধে নই এবং বিরাট কোহলির বিরুদ্ধেও নই। আমিও তিন বছর আগে কোহলির কথা বলেছিলাম, আমি তার বিপক্ষে নই। আমি তার খেআ দেখতে ভালোবাসি।”

পন্থের সেঞ্চুরিতে খুশি নন আসিফ!

এ প্রসঙ্গে আরও কথা বলতে গিয়ে আসিফ বলেন, “বিরাট কোহলি একজন ভালো ব্যাটসম্যান। কিন্তু আমি টেকনিক্যালি বিষয়গুলো নিয়ে কথা বলেছি। খুব কম লোকই বোঝে। পন্থ সেঞ্চুরি করতে পেরেছেন, এটা বোলারদের দোষ। এমনকি কোন বোলারই তাকে ‘V’ তে বল করেনি। যখন পন্থ এবং জাদেজা খেলছিলেন, তখন বাঁহাতি স্পিনারের হাতে বল দেওয়া হয়। এটা একদমই ভুল স্ট্র্যাটেজি।”

শুধু তাই নয়, মহম্মদ আসিফ (Mohammad Asif) বলেছেন, “পন্থ তখন চাপে থাকলেও স্পিনারদের মেরে রান করেন তিনি। এই অবস্থায় ভুলটা অনেকেরই। তবে আমি তাদের ভুল ধরছি না কিন্তু টেকনিক্যালি বলছি। আমি কোহলি ও পন্থের বিপক্ষে নই। কোহলি শতরান করেছে ৩ বছর হয়ে গেছে। তাই তাকেও রান করতে হবে।

Leave a comment

Your email address will not be published.