নিজের ঠাকুরদার পদাঙ্ক অনুসরণ করে কি কিংবদন্তী ক্রিকেটার হবেন সঈফ-করিনার ছেলে তৈমুর আলি খান?

বলিউডের সবচেয়ে দুর্দান্ত জুটিগুলির মধ্যে একটি সঈফ আলিখান আর করিনা কাপুর খানের ছেলে তৈমুর আলি খান সবসময়ই শিরোনামে থাকেন।তার একটি ছবি পাওয়ার জন্য মিডিয়ায় হুড়োহুড়ি পড়ে যায়। প্রসঙ্গত তৈমুরের বাবা সঈফ আলি খান বিখ্যাত অভিনেত্রী আর প্রাক্তণ ক্রিকেটার মনসুর আলি খান পতৌদির ছেলে।

সঈফের জন্ম দিল্লিতে ১৬ আগস্ট ১৯৭০ এ হয়েছিল

সঈফের জন্ম দিল্লিতে ১৬ আগষ্ট ১৯৭০ এ হয়েছিল। সঈফে ঠাকুমা অর্থাৎ মনসুর আলি খান পতৌদির মা সাজিদা সুলতানা ভোপালের শেষ নবাব হামিদুল্লা খানের মেয়ে ছিলেন।হামিদুল্লা খানের পর তার ছোটো মেয়ে ভোপালের সিয়াসতের দায়িত্ব নিজের হাতে নেন। কারণ বলা হয় যে নবাব হামিদুল্লাহের বড় মেয়ে আবিদা সুলতান দেশভাগের পর পাকিস্থানে চলে গিয়েছিলেন। সাজিদার মৃত্যুর পর ভোপালের সিংহাসনের ভার তার ছেলে আর ক্রিকেটার মনসুর আলি খান পতৌদিকে দেওয়া হয়।
নিজের ঠাকুরদার পদাঙ্ক অনুসরণ করে কি কিংবদন্তী ক্রিকেটার হবেন সঈফ-করিনার ছেলে তৈমুর আলি খান? 1
মাত্র ২১ বছর বয়েসে ভারতীয় ক্রিকেট দলের অধিনায়কত্ব সামলেছিলেন পতৌদি

মাত্র ২১ বছর বয়েসে ভারতীয় ক্রিকেট দলের দায়িত্ব সামলানো মনসুর আলি খান পতৌদি দেশের সবচেয়ে তরুণ টেস্ট অধিনায়ক হওয়ার গৌরব হাসিল করেছিলেন। তাও তখন যখন কয়েক মাস আগেই একটি গাড়ি দুর্ঘটনায় তার ডান চোখ নিষ্ক্রিয় হয়ে গিয়েছিল। নবাব পতৌদির গুনতি ভারতের সবচেয়ে দুর্দান্ত টেস্ট অধিনায়কদের মধ্যে হয়ে থাকে। তিনি মোট ৪৬টি টেস্ট ম্যাচে দেশের প্রতিনিধিত্ব করেছেন যেখানে তিনি ৩৯.৯১ গড়ে মোট ২৭৮৩ রান করেন। দিল্লিতে ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে অপরাজিত ২০৩ রান তার টেস্ট কেরিয়ারের সর্বশ্রেষ্ঠ প্রদর্শন ছিল।
নিজের ঠাকুরদার পদাঙ্ক অনুসরণ করে কি কিংবদন্তী ক্রিকেটার হবেন সঈফ-করিনার ছেলে তৈমুর আলি খান? 2
তিনি ডানহাতি ব্যাটসম্যান আর মিডিয়াম পেস বোলার ছিলেন।২০ বছর বয়েসে ক্রিকেট কেরিয়ার শুরুয়াত করা পতৌদি ভারতের হয়ে ১৯৬১ থেকে ১৯৭৫ এর মধ্যে ক্রিকেট খেলেছেন। ১৯৬২তে পতৌদি ভারতীয় ক্রিকেট দলের অধিনায়কত্ব সামলান।তিনি ১৯৭০ এ অধিনায়কত্ব ছেড়ে দেন আর ১৯৭৫ এ ক্রিকেট থেকে অবসর নিয়ে নেন।

নবাব পতৌদির বাবা ইফতিখার আলি খান পতৌদিও ছিলেন ক্রিকেটার

নবাব পতৌদির বাবা ইফতিখার আলি খান পতৌদিও ভাতের হয়ে ৬টি টেস্ট খেলার পাশাপাশি ১২৭টি প্রথম শ্রেণীর ম্যাচ খেলেছিলেন। নিজের বাবার মতই তিনিও একজন ভালো ক্রিকেটার হতে চাইতেন। নবাব মনসুর আলি খান পতৌদি যখন নিজের ১১তম জন্মদিন পালন করছিলেন তখনই তার বাবা নবাব ইফতিখার আলি খান পতৌদির মৃত্যু হয়। ৫ জানুয়ারী মনসুর আলিক খান পতৌদির জন্মদিনের সঙ্গে সঙ্গে তার বাবারও পুণ্যতিথি। তার বাবা যখন পোলো খেলছিলেন তখন হার্টঅ্যাটাকে তার মৃত্যু হয়।
নিজের ঠাকুরদার পদাঙ্ক অনুসরণ করে কি কিংবদন্তী ক্রিকেটার হবেন সঈফ-করিনার ছেলে তৈমুর আলি খান? 3

তৈমুর আলি খানও কি হবে ক্রিকেটার?

সঈফ আলি খানও নিজের কলেজে পড়ার সময় ক্রিকেট খেলতেন। যেনো এই পরিবারে ক্রিকেটের রক্ত দৌড়চ্ছে। যদি তৈমুর ক্রিকেটকে নিজের কেরিয়ার হিসেবে বাছেন তাহলে সেটা আশ্চর্যের হবেনা।
নিজের ঠাকুরদার পদাঙ্ক অনুসরণ করে কি কিংবদন্তী ক্রিকেটার হবেন সঈফ-করিনার ছেলে তৈমুর আলি খান? 4

suvendu debnath

কবি, সাংবাদিক এবং গদ্যকার। শচীন তেন্ডুলকর, ব্রায়ান লারার অন্ধ ভক্ত। ক্রিকেটের...

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *