যখন শচীন তেন্ডুলকর হয়েছিলেন দাদার উপর ক্ষুব্ধ, বলেছিলেন – শেষ করে দেব সৌরভ গাঙ্গুলীর কেরিয়ার

ভারতীয় ক্রিকেট ইতিহাসে শচীন তেন্ডুলকরের নাম একজন বড়ো ব্যাটসম্যান হিসেবে দেখা হয়। শচীন তেন্ডুলকর না শুধু ভারতের বরং বিশ্ব ক্রিকেটের সবচেয়ে সেরা ব্যাটসম্যান। শচীন তেন্ডুলকর নিজের ২৪ বছরের আন্তর্জাতিক কেরিয়ার অনেক ভূমিকাই পালন করেছেন, যার ফলে তিনি এমন উচ্চতা হাসিল করেছেন যা আর কেউ পারেননি।

ব্যাটিং শচীন তেন্ডুলকরের কোনো তুলনা নেই

যখন শচীন তেন্ডুলকর হয়েছিলেন দাদার উপর ক্ষুব্ধ, বলেছিলেন – শেষ করে দেব সৌরভ গাঙ্গুলীর কেরিয়ার 1

শচীন তেন্ডুলকর ক্রিকেটের দুই ফর্ম্যাটে ব্যাটিংয়ের দমে একের পর এক রেকর্ড কায়েম করেছেন। তিনি যে ধরণের রেকর্ড গড়েছেন, তাতে তাকে ক্রিকেট জগতের রেকর্ড পুরুষ মনে করা হয়। শচীন তেন্ডুলকর এক আলাদাই লেভেলের ব্যাটসম্যান ছিলেন। তিনি যে শৈলীর ব্যাটসম্যান ছিলেন আর যেভবে তিনি রানের বন্যা বইয়ে দিতেন, তাতে তিনি দর্শকদের ভীষণই প্রিয় ছিলেন। একজন ব্যাটসম্যান হিসেবে তার কোনো তুলনাই নেই।

শচীন তেন্ডুলকর অধিনায়কত্বে থেকেছেন সম্পূর্ণ ব্যর্থ

যখন শচীন তেন্ডুলকর হয়েছিলেন দাদার উপর ক্ষুব্ধ, বলেছিলেন – শেষ করে দেব সৌরভ গাঙ্গুলীর কেরিয়ার 2

কিন্তু ব্যাটিংয়ের দমে একের পর এক রেকর্ড হাসিল করা শচীন তেন্ডুলকরের অধিনায়কত্বের রেকর্ড ভীষণই খারাপ থেকেছে। শচীন তেন্ডুলকর ভারতীয় ক্রিকেট দলের হয়ে অধিনায়কত্ব করেন যেখানে তিনি ভীষণই নিরাশাজনক রেকর্ড গড়েন। তার অধিনায়কত্বের সফর একদমই ভালো ছিল না। শচীন তেন্ডুলকর ভারতের হয়ে টেস্ট আর ওয়ানডে ফর্ম্যাটে মোট ৯৮টি ম্যাচে অধিনায়কত্ব করেছেন। এর মধ্যে ভারত মাত্র ২৭টি ম্যাচেই জয় হাসিল করতে পারে। তো অন্যদিকে ভারত ৫২টি ম্যাচে হারের মুখে পড়তে হয়। তার অধিনায়কত্বে জয়ের হার মাত্র ২৮ শতাংশই থেকেছে।

অধিনায়কত্বের সময় শচীন গাঙ্গুলীকে দিয়েছিলেন কেরিয়ার শেষ করে দেওয়ার ধমকী

যখন শচীন তেন্ডুলকর হয়েছিলেন দাদার উপর ক্ষুব্ধ, বলেছিলেন – শেষ করে দেব সৌরভ গাঙ্গুলীর কেরিয়ার 3

যখন ১৯৯৭ সাল নাগাদ শচীন তেন্ডুলকর অধিনায়ক ছিলেন, তো তার অধিনায়কত্বের সবচেয়ে খারাপ সময় ছিল ওয়েস্টইন্ডিজ সফর। এই সফরে বার্বাডোজে খেলা হওয়া ম্যাচে ভারতকে লজ্জাজনক হারের মুখে পড়েছিল, অন্যদিকে এই ম্যাচের পর শচীন তেন্ডুলকর সৌরভকে কেরিয়ার শেষ করে দেওয়ার হুমকী পর্যন্ত দিয়েছিলেন। আসলে ১৯৯৭ সালে শচীন তেন্ডুলকরের অধিনায়কত্বে বারবাডোজ টেস্ট ম্যাচে ভারতকে ওয়েস্টইন্ডিজ ১২০ রানের লক্ষ্য দিয়েছিল। ফ্ল্যাট পিচে ভারতের জন্য এটা মুশকিল ছিল না। আর চতুর্থদিন ভারত ২ রান করে ফেলেছিল। এরপর শচীন জয়ের ব্যাপারে নিশ্চিত হয়ে রেস্তোরা মালিককে শ্যাম্পেন পর্যন্ত তৈরি রাখতে বলে দিয়েছিলেন।

হারের পর সৌরভ গাঙ্গুলীর উপরই শচীন বের করেছিলেন রাগ

যখন শচীন তেন্ডুলকর হয়েছিলেন দাদার উপর ক্ষুব্ধ, বলেছিলেন – শেষ করে দেব সৌরভ গাঙ্গুলীর কেরিয়ার 4

কিন্তু এই পিচে ভারতীয় দলের ব্যাটসম্যানরা শেষ দিন ব্যর্থ হন আর পুরো দল মাত্র ৮১ রানেই শেষ হয়ে যায়। এই হারে অধিনায়ক শচীন ভীষণই আহত হয়েছিলেন। শচীন সমস্ত খেলোয়াড়দেরই পরে নিজের ক্ষমতা দিয়ে শিক্ষা দিয়েছিলেন। এরপর সৌরভ গাঙ্গুলী দলের নতুন খেলোয়াড় ছিলেন, যিনি শচীনকে স্বান্তনা দেওয়ার জন্য তার কাছে যান। কিন্তু তৎকালীন অধিনায়ক শচীন রাগে সৌরভ গাঙ্গুলীকে বলেন যে সকালে দৌড়নোর জন্য তৈরি থেকো। কিন্তু সৌরভ গাঙ্গুলী সকালে দৌড়তে পৌঁছননি। এরপর শচীন গাঙ্গুলীকে বাড়িতে ফেরত পাঠানোর আর কেরিয়ার শেষ করে দেওয়ার ধমকীও দিয়ে ফেলেন। কিন্তু গাঞগুলী এরপর কড়া মেহনত করেন আর মহান খেলোয়াড় হন।

suvendu debnath

কবি, সাংবাদিক এবং গদ্যকার। শচীন তেন্ডুলকর, ব্রায়ান লারার অন্ধ ভক্ত। ক্রিকেটের...

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *