কোলকাতার কাছে হেরে গিয়ে বিরাট কোহলি দুষলেন এই প্লেয়ারকে! দেখে নিন 1

মাসটা বৈশাখ। যখন তখন কালবৈশাখী আসাটা খুবই স্বাভাবিক। তা এলও। কয়েক ঘন্টার এই ঝড়ে রবিবারের রাতে যে ঘটনা ঘটল তা হয় হয়ত কোনও দিনও ভুলতে পারবে না, চন্দনদস্যুর দেশের গোটা একটা দল। ২০০৮ সালে এমনই এক বৈশাখের সন্ধ্যেয় ক্রিকেটের নন্দন কাননে কালবৈশাখির দাপটে ছন্নছাড়া হয়ে গিয়েছিল বেঙ্গালুরু। সেদিন আইপিএলের ইতিহাসে প্রথম ম্যাচে কলকাতা নাইট রাইডার্সের ব্যাটসম্যান ব্রেন্ডন ম্যাককালামের ঝড়ে উড়ে গিয়েছিল গোটা আরসিবির বোলিং অ্যাটাক। সেই দুর্দশার কথা এখনও চিন্তা করলে হাড়ে কাঁপ ধরে যায় তাদের। আজও আরসিবির একই হাল করল কেকেআর। তবে এবার সৌজন্যে উমেশ যাদব, কুলটার নাইল, ক্রিস ওকসের বোলিং আক্রমন। দিনটাও বৈশাখের। বেঙ্গালুরুতে কালবৈশাখী হয় কী না জানা নেই। তবে ভবিষ্যতে এই ঝড়কে কোনওদিনও উপেক্ষা করতে পারবে না ডানিয়েল ভেত্তোরির দল।
এদিন প্রথমে ব্যাট করতে নেমে কেকেআর সমস্ত উইকেট হারিয়ে মাত্র ১৩২ রান করে। শুধুমাতে সুনীল নারিনের রহস্যময়ী ব্যাটে রান এসেছিল। মাত্র ১৭ বলে ৩৪ রান করে ব্যাটিংয়ের জন্য সহায়ক উইকেটেরই আভাস দিয়েছিলেন তিনি। তবে পরে চাহল ও নেগিদের বলে টার্ন দেখে চোখ কপালে উঠেছিল গঙ্গাপাড়ের ব্যাটসম্যানদের। নারিন ছাড়া অন্য কেউই তেমন রানই করতে পারেনি। তখনই আন্দাজ করা গিয়েছিল কিছু একটা অঘটন ঘটতে চলেছে।

ধোনির ফর্ম নিয়ে প্রশ্ন তোলায় সৌরভকে কড়া জবাব দিলেন এই বলিউড তারকা!


বিরাট কোহলি, ক্রিস গেইল, এবি ডেভিলিয়ার্স, কেদার যাদবদের কাছে এই রান কার্যত হাতের ময়লা। তাঁরা ব্যাট না ঘোরাতে চাইলেও এই রান টপকে ফেলবেন তাঁরা। এই বিশ্বাস থেকেই ইডেনের মত মাঠে কেকেআরের বিরুদ্ধে সমর্থকদের এক প্রবল ঝড় উঠেছিল। কিন্তু প্রথম থেকেই যা করলেন কেকেআরের বোলাররা, তা না দেখলে বিশ্বাস করা যায়না। ন্যাথন কুলটার নাইল বল করতে আসা মাত্রই দুদিকে অসাধারণ স্যুইং লক্ষ্য করা যায়। সে স্যুইংয়ের কাছে বিরাট কোহলি, এবি ডেভিলিয়ার্সের মত মহীরুহও মুছরে পড়ল মাটিতে। কোনও রান না করেই কুলটার নাইলের বলে বিরাট প্যাভিলয়নে ফেরেন। এর পর থেকে একে একে মাত্র ৪৯ রানে সব উইকেট হারিয়ে ৮২ রানের লজ্জার হার স্বীকার করতে হয় আরসিবিকে। এটাই আইপিএলের ইতিহাসে সব থেকে কম রানের ইনিংস। এর আগে আরসিবির বিরুদ্ধেই রাজস্থান রয়্যালস মাত্র ৫৯ রানের নিম্নতম এক ইনিংস খেলেছিল।
স্বাভাবিকভাবেই এই হারের পর আইপিএলখ্যাত ব্যাটিং লাইআপের অধিনায়ক বিরাট কোহলির মুখে চুনকালি পড়া ছাড়া আর কোনও উপায় ছিলনা। এমনকী এই পরাজয়ের ন্যূনতম অজুহাতও দেখালেন না তিনি। যা বললেন তা শুনে স্তম্ভিত গোটা ক্রিকেট মহল। বিরাট কোহলি বলেন, ‘এটা আমাদের সবথেকে দুর্বল ব্যাটিং প্রদর্শণ। সত্যিই খুবই দুঃখজনক। প্রথমার্ধে দারুণ খেলার পর আমরা ভেবেছিলাম এই রান সহজেই করে ফেলতে পারব। কিন্তু সেটা হল না। সত্যিই খুব বেপরোয়া ব্যাটিং হয়েছে। এই মুহুর্তে আমি আর কিছু বলতে পারছিনা। এই হার কোনওভাবেই গ্রহণ করা যায়না।’

ভারতীয় ক্রিকেটারদের ধন্যবাদ জানাল পাকিস্তানের এই ক্রিকেটার, কেন হল এমন উলট পুরান!

 

নিজের আউট হওয়ার জন্য অবস্য দারুণভাবে প্রস্তুত হয়ে এসেছিলেন কোহলি অজুহাতের ঝুলি নিয়ে। তিনি বলেন, ‘এখানকার সাইডস্ক্রীন খুবই ছোট। তাই বোলার যখ বল করতে আসছিল আমি বিভ্রান্ট হই এবং আউট হয়েযাই। তবে বাকি ন’জন এই রান আরামসে করে ছিতে পারত।’
তিনি আরও বলেন, ‘ব্যাটিং নিয়ে পর্যালোচনা করার মত কিছুই নেই।এটা সত্যিই খুব দুর্বল প্রদর্শন। আমরা অনেক ভাল দল। এই আইপিএলে ২০০ রানও পেরিয়েছি। আমি নিশ্চিত সবাই সবার ভুলটা কোথায় সেটি বুঝতে পেরেছে। আমাদের এই অবস্থা থেকে বেরিয়ে আসতে হবে ও আমাদের অভিপ্রায় নিয়ে আবার খেলায় ফিরতে হবে। আমি নিশ্চিত আমরা আর এইরকমভাবে ব্যাট করব না এই টুর্নামেন্টে। ১৩০ এর কাছাকাছি বেঁধে রাখতে পারাটা দারুণ ছিল। তবে আমাদের ঘরের মাঠে পরপর দুটি খেলা আছে। সেখানে ভাল ফল করে নিজেদেরকে এই লিগে টিকিয়ে রাখতে হবে।’

http://bengali.sportzwiki.com/5332/sam-billings-said-rishabh-pant-will-replace-dhoni/

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *