৫ বছর পর দলে আসতেই সঞ্জু স্যামসন মারলেন প্রথম বলেই ছক্কা, দেখার পোর্ট ছিল বিরাটের রিঅ্যাকশন

ভারত আর শ্রীলঙ্কার মধ্যে পুণেতে টি-২০ সিরিজের শেষ ম্যাচ খেলা হচ্ছে। শ্রীলঙ্কার অধিনায়ক লাসিথ মালিঙ্গা টসে জিতে প্রথমে বল করার সিদ্ধান্ত নেন। সিরিজের প্রথম ম্যাচ বৃষ্টির কারণে রদ হয়ে গিয়েছিল। অন্যদিকে দ্বিতীয় ম্যাচ ভারতীয় দল ৭ উইকেটে জিতে নিয়েছিল। এই ম্যাচে ২০১৫র পর প্রথমবার সঞ্জু স্যামসন ভারতীয় দলে খেলার সুযোগ পান।

প্রথম বলেই মারলেন ছক্কা

৫ বছর পর দলে আসতেই সঞ্জু স্যামসন মারলেন প্রথম বলেই ছক্কা, দেখার পোর্ট ছিল বিরাটের রিঅ্যাকশন 1

মাঠে নেমেই সঞ্জু স্যামসন প্রথম বলেই ছক্কা মেরে দেন। শিখর ধবনের ৫২ রান করে আউট হওয়ার পর তিনি ব্যাটিং করতে এসেছিলেন। অধিনায়ক কোহলি তাকে নিজের জায়গায় ব্যাটিংয়ের জন্য পাঠান। বিরাট কোহলি গত ম্যাচেও তিন নম্বরে শ্রেয়স আইয়ারকে সুযোগ দিয়েছিলেন। লক্ষ্মণ সদাকান্তের বলে স্যামসন লগ অনের উপর দিয়ে ছক্কা মারেন।

বিরাট কোহলি দিলেন দুর্দান্ত রিঅ্যাকশন

৫ বছর পর দলে আসতেই সঞ্জু স্যামসন মারলেন প্রথম বলেই ছক্কা, দেখার পোর্ট ছিল বিরাটের রিঅ্যাকশন 2

সঞ্জু স্যামসনের ছক্কার পর অধিনায়ক বিরাট কোহলির রিঅ্যাকশন দেখার মতো ছিল। তিনি নিজের জায়গায় দাঁড়িয়ে চমকে যান। সেই সঙ্গে তার চেহারায় খুশির ভাব ছিল দেখার মতো। বিরাট কোহলি নিজের তরুণ খেলোয়াড়দের যথেষ্ট উৎসাহিত করেন আর আজ সেটা আবারো দেখতে পাওয়া গিয়েছে। তিনি স্যামসনকে নিজের জায়গায় ব্যাটিং করতে পাঠানোর সঙ্গেই তার ছক্কা মারাতেও খুশি প্রকাশ করেন।

পরের বলেই হলেন আউট

৫ বছর পর দলে আসতেই সঞ্জু স্যামসন মারলেন প্রথম বলেই ছক্কা, দেখার পোর্ট ছিল বিরাটের রিঅ্যাকশন 3

প্রথম বলে ছক্কা মারার পর সঞ্জ্যু স্যামসন দ্বিতীয় বলেই আউট হয়ে যান। ভানিন্দু হাসরঙ্গার বলে তিনি এলবিডব্লিউ হয়ে যান। হাসরঙ্গার গুগলিকে তিনি বুঝতে পারেননি আর বল সোজা প্যাডে গিয়ে লাগে। তিনি বাংলাদেশের বিরুদ্ধে হওয়া টি-২০ সিরিজ থেকে দলে রয়েছেন কিন্তু আজ প্রথমবার তিনি খেলার সুযোগ পেয়েছেন। ঋষভ পন্থকে বিশ্রাম দিয়ে তাকে সুযোগ দেওয়া হয়েছিল। পন্থ দলের প্রথম পছন্দ আর তার খারাপ প্রদর্শনের পরও তিনি লাগাতার সুযোগ পেয়েছেন।

এখানে দেখুন ভিডিয়ো

suvendu debnath

কবি, সাংবাদিক এবং গদ্যকার। শচীন তেন্ডুলকর, ব্রায়ান লারার অন্ধ ভক্ত। ক্রিকেটের...

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *