NZ vs IND: জয়ের পর কোহলি কেএল রাহুল বা শ্রেয়স আইয়ারকে নয় বরং একে দিলেন জয়ের শেয়

ভারতীয় দল জয় দিয়ে নিউজিল্যান্ড সফর শুরু করেছে। ৫ ম্যাচের টি-২০ সিরিজের প্রথম ম্যাচ অকল্যান্ডের ইডেন পার্কে খেলা হয়েছে। ভারত এই ম্যাচ ৬ উইকেটে জিতে সিরিজে ১-০ এগিয়ে গিয়েছে। অধিনায়ক বিরাট কোহলি টস জিতে প্রথমে বল করার সিদ্ধান্ত নেন। নিউজিল্যাণ্ড প্রথমে ব্যাট করে ২০৩ রান করে কিন্তু ভারত ৬ বল বাকি থাকতেই লক্ষ্য হাসিল করে নেয়।

দর্শক আমাদের সঙ্গে ছিল

NZ vs IND: জয়ের পর কোহলি কেএল রাহুল বা শ্রেয়স আইয়ারকে নয় বরং একে দিলেন জয়ের শ্রেয় 1

এই ম্যাচ যতই নিউজিল্যাণ্ডে হোক কিন্তু ভারতীয় দলের জন্য মাঠে দারুণ সাপোর্ট ছিল। বিশ্বের যে কোনো মাঠেই ম্যাচ হলে ঠিক এমনই দৃশ্য দেখা যায়। ম্যাচে জয় হাসিল করার পর ভারতীয় অধিনায়ক বিরাট কোহলি এটা নিয়ে বলেন,

“আমরা এই ম্যাচের আনন্দ নিয়েছেন। দুদিন আগে এখানে আসা আর এই ধরণের ম্যাচ খেলা, এটা দুর্দান্ত ছিল। মনে হচ্ছিল যেনো ৮০ শতাংশ দর্শক আমাদের সাপোর্ট করছিলেন। ওরা নিয়মিত দলের পেছনে ছিলেন”।

জেট ল্যাগের কথা হয়নি

NZ vs IND: জয়ের পর কোহলি কেএল রাহুল বা শ্রেয়স আইয়ারকে নয় বরং একে দিলেন জয়ের শ্রেয় 2

ভারত আর নিউজিল্যান্ডের মধ্যে ৭ ঘন্টা ৩০ মিনিটের সময়ের ব্যবধান রয়েছে। এই কারণে সেখানে যাওয়ার পর সেই টাইম জোনে মানিয়ে নিতে সময় লাগে। বিরাটের বক্তব্য যে এত কম সময় পাওয়ার পরও দলের ভেতরে এই ব্যাপারে কোনো কথা হয়নি। তিনি বলেন যে,

“আপনার ২০০র বেশি রানের লক্ষ্য তাড়া করার জন্য এমন ধাক্কার প্রয়োজন হয়। আমরা দলে কখনোই জেট ল্যাগের কথা বলিনি। আমরা কোনো বাহানা চাইনা। আমরা শুধু এই বিষয়ে নিজের মনোযোগ কেন্দ্রিত করেছি যে আমাদের জেতার জন্য কি করতে হবে। আমরা খেলতে চাইছিলাম”।

২৩০ এর ব্যাপারে ভাবছিলাম

NZ vs IND: জয়ের পর কোহলি কেএল রাহুল বা শ্রেয়স আইয়ারকে নয় বরং একে দিলেন জয়ের শ্রেয় 3

অকল্যান্ডের মাঠ যথেষ্ট ছোটো। এই কারণে এখানে বড়ো স্কোর হয়। বিরাট কোহলির বক্তব্য যে এক সময় তিনি ২৩০ রানের স্কোরের ব্যাপারে ভাবছিলাম। তিনি বলেন,

“আমরা গত এক বছর ধরে টি-২০আইতে ভালো প্রদর্শন করেছি। আপনি এই ধরণের পিচে কারোর উপর কঠোর হতে পারেন না। আমি এক সময় ২৩০ রানের কথা ভাবছিলাম। কিন্তু আমরা এই সময় ভালোভাবে ম্যাচে ফিরে এসেছি”।

suvendu debnath

কবি, সাংবাদিক এবং গদ্যকার। শচীন তেন্ডুলকর, ব্রায়ান লারার অন্ধ ভক্ত। ক্রিকেটের...

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *