১৯০ রান। টি-২০ ম্য়াচে কোনও রানই যথেষ্ট না হলেও, তবে এটা লড়াই করার মতো স্কোর। আইপিএলে এর চেয়েও কম রান ডিফেন্ড করে বিপক্ষ দলের হাত আমরা ম্য়াচ ছিনিয়ে নিয়ে যেতে দেখেছি অনেক দলকে। স্পেশালিস্ট বোলার হলে সব সম্ভব। কিন্তু, রবিবার জামাইকাতে ম্য়াচটা ছিল অন্য়। আন্তর্জাতিক টি-২০ ম্য়াচের সঙ্গে আইপিএল ম্য়াচের তুলনা করা উচিত নয়।

ক্রিকেটে মহান অনিশ্চয়তার খেলা। যে কোনও সময় হিসেব নিকেশ উল্টে যেতে পারে। এক একটা ফরম্য়াটে এক এক রকম স্ট্র্য়াটেজি লাগে। লাগে স্পেশালিস্ট ব্য়াটসম্য়ান। তেমনই লাগে স্পেশালিস্ট বোলার। কিন্তু, টি-২০ বিশ্বচ্য়াম্পিয়ন ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিরুদ্ধে যে বোলারদের বিরাট খেলালেন, তাঁরা আদৌ টি-২০ আসরের মারকাটারি খেলার ঢংয়ে ফিট করেন কিনা, তা নিয়ে সন্দেহ রয়েছে।  সমালোচকরা থেকে শুরু করে ক্রিকেট বোদ্ধারা বলছেন, রবিবার ভারতীয় দলে যেসব বোলারদের দিয়ে টি-২০ খেলানো হল, তাঁরা কেউই ওই ফরম্য়াটের স্পেশালিস্ট নন। আর টেস্ট ম্য়াচ স্ট্য়ান্ডার্ডের বোলারদের জন্য়ই হেলায় হারতে হলো ভারতকে।

এনিয়ে কোনও প্রশ্ন নেই যে রবিবারের ম্য়াচে ওয়েস্ট ইন্ডিজ ফেবারিট হয়ে মাঠে নেমেছিল। একে ঘরের মাঠের চেনা পরিবেশ, তার ওপরে  টি-২০ বিশ্বচ্য়াম্পিয়ন। কিন্তু, জোর দিয়ে বলা যায়, ফরম্য়াট স্পেশালিস্ট বোলার নিয়ে মাঠে নামলে এভাবে হারতে হতো না ভারতকে। টি-২০ স্টাইলের মূল মন্ত্র রান রোখা নয়, বিপক্ষ দলের ব্য়াটসম্য়ানদের রান করার জন্য় প্রলোভনের ফাঁদে ফেলে মোক্ষম সময়ে দলকে উইকেট এনে দেওয়া। টেস্ট ম্য়াচের মতো রান রুখতে জানলে এখানে কোনও ফায়দা হয় না।

শুরুটা খারাপ হয়েছিল কোনওভাবেই বলে যাবে না। বিরাট-শিখর ওপেনিং জুটি প্রয়োজনীয় সূচনাটা দিয়েছিল। সিরিজের প্রথম ম্য়াচ খেলা ঋষভ পন্তের ৩৫ বলে ৩৮ রান, খুব একটা খারাপ খেলেছেন বলা না গেলেও, টি-২০ উপযোগী নয়। ইনিংসের মাঝে বল নষ্ট করলে সীমিত ওভারের ক্রিকেটে শেষ বেলায় রান তোলা অত্য়ন্ত মুশকিল হয়ে যায়।

ভারতের বিরুদ্ধে সিরিজের একমাত্র টি-২০ ম্য়াচে গত বছরের আমেরিকা ম্য়াচের পুনরাবৃত্তি। সেই ম্য়াচেও ওয়েস্ট ইন্ডিজের ইভিন লুইস সেঞ্চুরি করায় হারতে হয়েছিল ভারতকে। আর এদিনও। শুধু হারের ধরনটা অন্য়।

ম্য়াচের পর ভারত অধিনায়ক বিরাট কোহলির বক্তব্য়, আরও ২০-৩০ রান বেশি করা উচিত ছিল আমাদের। ২২০ রান করার লক্ষ্য় নিয়ে আমরা মাঠে নামলেও, শেষ পর্যন্ত তা করে উঠতে পারিনি আমরা। লক্ষ্য়টা ছুঁতে না পারলে কখনই জেতা সম্ভব নয়। দিনেশ ভালো খেললেও, আমাদের কোনও ব্য়াটসম্য়ানই ৮০-র ধারেকাছে যেতে পারেনি। বিরাট আরও বলেন, আমাদের ধৈর্য্য় ধরতে হবে। ওয়েস্ট ইন্ডিজের ফিক্সড স্কোয়াড হলেও, আমরা এখনও পরীক্ষা-নীরিক্ষা চালিয়ে যাচ্ছি। ওয়ান-ডে সিরিজে আমরা ভালো খেলেছিলাম। একটা টি-২০ ম্য়াচ দিয়ে সিরিজ হয় না। আমাদের ছেলেদের সময় দিতে হবে।

  • SHARE
    A sports enthusiast and a critic. Journalism is all about being unbiased to create positive influence from negative angle.

    আরও পড়ুন

    আইপিএলে দল না পেয়ে বিধ্বংসী মার্টিন গাপ্তিল, সোশ্যাল মিডিয়ায় ট্রোলড কিংস ইলেভেন পাঞ্জাবের মালকিন

    আইপিএলে দল না পেয়ে বিধ্বংসী মার্টিন গাপ্তিল, সোশ্যাল মিডিয়ায় ট্রোলড কিংস ইলেভেন পাঞ্জাবের মালকিন
    আসন্ন আইপিএল ২০১৮র নিলামে দল পাননি তিনি। নিলামে অবিক্রীতই থেকে গেছিলেন নিউজিল্যান্ডের মার্টিন গাপ্তিল। অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে দুরন্ত...

    আইপিএল২০১৮: সম্পূর্ণ সূচী, ম্যাচের সময়, স্থান, এবং অন্যান্য বিবরণ

    মুম্বাইয়ের ওয়াংখেড়ে স্টেডিয়ামে আগামি ৭ এপ্রিল থেকে বর্তমান চ্যাম্পিয়ন মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স এবং এই আইপিএলে নির্বাসন কাটিয়ে ফিরে...

    সারা তেন্ডুলকরের ফেক আইডি বানিয়ে এনসিপি প্রধানকে উত্যক্ত করার অপরাধে গ্রেপ্তার এক ব্যক্তি

    সারা তেন্ডুলকরের ফেক আইডি বানিয়ে এনসিপি প্রধানকে উত্যক্ত করার অপরাধে গ্রেপ্তার এক ব্যক্তি
    কিছুদিন আগেই ভারতের কিংবদন্তী ক্রিকেটের শচীন তেন্ডুলকরের মেয়ে সারা তেন্ডুলকরের মেয়েকে উত্যক্ত করার অপরাধে গ্রেপ্তার হয়েছিলেন পশ্চিম...

    সোশ্যাল মিডিয়ায় ভারত অধিনায়ক বিরাটকে অপমান করলেন কপিল শর্মা

    সোশ্যাল মিডিয়ায় ভারত অধিনায়ক বিরাটকে অপমান করলেন কপিল শর্মা
    ফের বিতর্কে কমেডিয়ান কপিল শর্মা। এবার তিনি সরাসরি অপমান করলেন ভারত অধিনায়ক বিরাট কোহলিকে। যার ফলে রাগে...

    ভারত দক্ষিণ আফ্রিকা একদিনের সিরিজ: চতুর্থ ওয়ান ডে চলাকালীন বর্ণবিদ্বেষের শিকার দক্ষিণ আফ্রিকার ক্রিকেটার

    ভারত দক্ষিণ আফ্রিকা একদিনের সিরিজ: চতুর্থ ওয়ান ডে চলাকালীন বর্ণবিদ্বেষের শিকার দক্ষিণ আফ্রিকার ক্রিকেটার
    ভারত দক্ষিণ আফ্রিকার মধ্যে ওয়ান ডে সিরিজ চলাকালীনই ঘটে গেল এক অপ্রীতিকর ঘটনা। জোহানেসবার্গের চতুর্থ ওয়ান ডে...