১৯০ রান। টি-২০ ম্য়াচে কোনও রানই যথেষ্ট না হলেও, তবে এটা লড়াই করার মতো স্কোর। আইপিএলে এর চেয়েও কম রান ডিফেন্ড করে বিপক্ষ দলের হাত আমরা ম্য়াচ ছিনিয়ে নিয়ে যেতে দেখেছি অনেক দলকে। স্পেশালিস্ট বোলার হলে সব সম্ভব। কিন্তু, রবিবার জামাইকাতে ম্য়াচটা ছিল অন্য়। আন্তর্জাতিক টি-২০ ম্য়াচের সঙ্গে আইপিএল ম্য়াচের তুলনা করা উচিত নয়।

ক্রিকেটে মহান অনিশ্চয়তার খেলা। যে কোনও সময় হিসেব নিকেশ উল্টে যেতে পারে। এক একটা ফরম্য়াটে এক এক রকম স্ট্র্য়াটেজি লাগে। লাগে স্পেশালিস্ট ব্য়াটসম্য়ান। তেমনই লাগে স্পেশালিস্ট বোলার। কিন্তু, টি-২০ বিশ্বচ্য়াম্পিয়ন ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিরুদ্ধে যে বোলারদের বিরাট খেলালেন, তাঁরা আদৌ টি-২০ আসরের মারকাটারি খেলার ঢংয়ে ফিট করেন কিনা, তা নিয়ে সন্দেহ রয়েছে।  সমালোচকরা থেকে শুরু করে ক্রিকেট বোদ্ধারা বলছেন, রবিবার ভারতীয় দলে যেসব বোলারদের দিয়ে টি-২০ খেলানো হল, তাঁরা কেউই ওই ফরম্য়াটের স্পেশালিস্ট নন। আর টেস্ট ম্য়াচ স্ট্য়ান্ডার্ডের বোলারদের জন্য়ই হেলায় হারতে হলো ভারতকে।

এনিয়ে কোনও প্রশ্ন নেই যে রবিবারের ম্য়াচে ওয়েস্ট ইন্ডিজ ফেবারিট হয়ে মাঠে নেমেছিল। একে ঘরের মাঠের চেনা পরিবেশ, তার ওপরে  টি-২০ বিশ্বচ্য়াম্পিয়ন। কিন্তু, জোর দিয়ে বলা যায়, ফরম্য়াট স্পেশালিস্ট বোলার নিয়ে মাঠে নামলে এভাবে হারতে হতো না ভারতকে। টি-২০ স্টাইলের মূল মন্ত্র রান রোখা নয়, বিপক্ষ দলের ব্য়াটসম্য়ানদের রান করার জন্য় প্রলোভনের ফাঁদে ফেলে মোক্ষম সময়ে দলকে উইকেট এনে দেওয়া। টেস্ট ম্য়াচের মতো রান রুখতে জানলে এখানে কোনও ফায়দা হয় না।

শুরুটা খারাপ হয়েছিল কোনওভাবেই বলে যাবে না। বিরাট-শিখর ওপেনিং জুটি প্রয়োজনীয় সূচনাটা দিয়েছিল। সিরিজের প্রথম ম্য়াচ খেলা ঋষভ পন্তের ৩৫ বলে ৩৮ রান, খুব একটা খারাপ খেলেছেন বলা না গেলেও, টি-২০ উপযোগী নয়। ইনিংসের মাঝে বল নষ্ট করলে সীমিত ওভারের ক্রিকেটে শেষ বেলায় রান তোলা অত্য়ন্ত মুশকিল হয়ে যায়।

ভারতের বিরুদ্ধে সিরিজের একমাত্র টি-২০ ম্য়াচে গত বছরের আমেরিকা ম্য়াচের পুনরাবৃত্তি। সেই ম্য়াচেও ওয়েস্ট ইন্ডিজের ইভিন লুইস সেঞ্চুরি করায় হারতে হয়েছিল ভারতকে। আর এদিনও। শুধু হারের ধরনটা অন্য়।

ম্য়াচের পর ভারত অধিনায়ক বিরাট কোহলির বক্তব্য়, আরও ২০-৩০ রান বেশি করা উচিত ছিল আমাদের। ২২০ রান করার লক্ষ্য় নিয়ে আমরা মাঠে নামলেও, শেষ পর্যন্ত তা করে উঠতে পারিনি আমরা। লক্ষ্য়টা ছুঁতে না পারলে কখনই জেতা সম্ভব নয়। দিনেশ ভালো খেললেও, আমাদের কোনও ব্য়াটসম্য়ানই ৮০-র ধারেকাছে যেতে পারেনি। বিরাট আরও বলেন, আমাদের ধৈর্য্য় ধরতে হবে। ওয়েস্ট ইন্ডিজের ফিক্সড স্কোয়াড হলেও, আমরা এখনও পরীক্ষা-নীরিক্ষা চালিয়ে যাচ্ছি। ওয়ান-ডে সিরিজে আমরা ভালো খেলেছিলাম। একটা টি-২০ ম্য়াচ দিয়ে সিরিজ হয় না। আমাদের ছেলেদের সময় দিতে হবে।

  • SHARE

    আরও পড়ুন

    কোয়ালিফায়ার ২: টস জেতা দলই পাবে ফাইনালে যাওয়ার সুযোগ, জানুন কি হতে পারে অধিনায়কের সিদ্ধান্ত

    আইপিএল ২০১৮ র আর মাত্র দুটি ম্যাচই বাকি রয়েছে, যার মধ্যে একটি ম্যাচ আজ কলকাতা নাইট রাইডার্স...

    দ্বিতীয় কোয়ালিফায়ারের ম্যাচের আগে কুলদীপ যাদব বলে দিলেন এমন কথা, বাড়তে পারে সানরাইজার্সের সমস্যা

    সানরাইজার্স হায়দ্রাবাদ বনাম কলকাতা নাইট রাইডার্সের মধ্যে দ্বিতীয় কোয়ালিফায়ারের ম্যাচ আজ সন্ধ্যে সাতটায় খেলা হতে চলেছে কলকাতার...

    এসআরএইচ বনাম কেকেআর: ধবনের কাছে বিরাট রেকর্ড বানানোর সুযোগ, ম্যাচে হতে পারে এই রেকর্ড

    এসআরএইচ বনাম কেকেআর: ধবনের কাছে বিরাট রেকর্ড বানানোর সুযোগ, ম্যাচে হতে পারে এই রেকর্ড
    আইপিএল ২০১৮য় আজ দ্বিতীয় কোয়ালিফায়ারের ম্যাচে কলকাতার ইডেনে গার্ডেনে কলকাতা নাইট রাইডার্স এবং হায়দ্রাবাদের মধ্যে খেলা হবে,...

    সানরাইজার্স হায়দ্রাবাদের বিরুদ্ধে এলিমিনেটর ২ এর আগে কেকেআর পেল নিজেদের তারকা, দলে ফিরলেন এই ক্রিকেটার

    সানরাইজার্স হায়দ্রাবাদের বিরুদ্ধে এলিমিনেটর ২ এর আগে কেকেআর পেল নিজেদের তারকা, দলে ফিরলেন এই ক্রিকেটার
    ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগের চলতি মরশুমে শানদার প্রদর্শন করা কলকাতা নাইট রাইডার্সকে এলিমিনেটর ২ এ সানরাইজার্স হায়দ্রাবাদের মুখোমুখি...

    এসআরএইচ বনাম কেকেআর: দীর্ঘ সময় পর হায়দ্রাবাদ দলে আবারও এই তারকার ফেরা নিশ্চিত, এসেই দিলেন কেকেআরের বিরুদ্ধে এই বিতর্কিত বয়ান

    এসআরএইচ বনাম কেকেআর: দীর্ঘ সময় পর হায়দ্রাবাদ দলে আবারও এই তারকার ফেরা নিশ্চিত, এসেই দিলেন কেকেআরের বিরুদ্ধে এই বিতর্কিত বয়ান
    লাগতার চার ম্যাচে হারের পর সানরাইজার্স হায়দ্রাবাদ একবার আবারও জবরদস্ত ফেরার প্রস্তুতি করছে। দলের উইকেটকীপার ঋদ্ধিমান সাহার...