ভিডিও: বল বিকৃতির অভিযোগের কবলে ফাফ দু প্লেসিস 1

বিশেষ প্রতিবেদন: অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে হোবার্টে সিরিজের দ্বিতীয় টেস্টে দক্ষিণ আফ্রিকার পারফরমেন্স নিয়ে প্রশ্ন তোলার কোন জায়গা নেই। প্রোটিয়াস বোলারদের দাপটে দ্বিতীয় টেস্টের দুই ইনিংসে ৮৫ ও ১৬১ রানে অলআউট হয়ে যায় অজি শিবির। খালি চোখে দেখলে বলা যেতেই পারে, এই টেস্টে দক্ষিণ আফ্রিকার সামনে দাঁড়াতেই পারেনি ক্যাঙারু শিবির। তবে এর মধ্যেই এমন একটি চাঞ্চল্যকর ভিডিও সামনে এসেছে যা দক্ষিণ আফ্রিকার এই জয়কে অনেকটাই খাটো করে দিতে পারে। এই ভিডিওয়ে তে দেখা যাচ্ছে, মুখ থেকে চুইংগামের থুথু দিয়ে বল পালিশ করছেন প্রোটিয়াস অধিনায়ক ফাফ দু প্লেসিস। ক্রিকেটের আইনে এমন কাজ দন্ডনীয় অপরাধ। এই নিয়ে তোলপাড় শুরু হয়ে গিয়েছে ক্রিকেট মহলে।

হোবার্ট টেস্টে দক্ষিণ আফ্রিকার পেসারদের সামনে দাঁড়াতেই পারেননি অস্ট্রেলিয়ান ব্যাটসম্যানরা। প্রথম ইনিংসে ৮৫ রানে অলআউট হয়ে যায় তারা। দ্বিতীয় ইনিংসে মাত্র ১৬১ রান করেই অজি ইনিংসের নটে গাছটি মুড়িয়ে যায়। তবে দু প্লেসিসের এই বল বিকৃতির ঘটনা সব কিছুকে ঢেকে দিচ্ছে। এই বিষয়ে ক্রিকেটের আইন বলছে, “একজন খেলোয়াড় কোনমতেই কৃত্তিম কোন বস্তু দিয়ে মাঠে বল পালিশের কাজ করতে পারবে না।”

এটাই অবশ্য প্রথম নয়, পার্থের প্রথম টেস্টেও বল নিয়ে ‘কারিকুরি’ করার জন্য সতর্ক করা হয় দক্ষিণ আফ্রিকা দলকে। তখন বল থেকে তাড়াতাড়ি রিভার্স সুইং আদায় করে নেওয়ার জন্য ইচ্ছে করেই মাঠে বল ঘসতে দেখা যায় দক্ষিণ আফ্রিকার খেলোয়াড়দের। দু প্লেসিস তখন বলেন, “আমার মনে হয় বিষয়টিকে নিয়ে বাড়াবাড়ি করা হচ্ছে। পার্থে অস্ট্রেলিয়ার বোলাররা ২৫ ওভারের মধ্যেই বল রিভার্স সুইং করাচ্ছিল। ব্যাপারটা সত্যিই চমকপ্রদ। এত তাড়াতাড়ি বলকে রিভার্স সুইং করানো বেশ শক্ত কাজ। আমরা বোলিং সাইড এবং বল সুইং করাতে ভালবাসি। তাই শুধু আমাদের দিকে আঙুল তোলাটা ঠিক কাজ হবে না।”

২০১৩ সালে এই বল বিকৃতির অভিযোগে দু প্লেসিসকে ফাইন করেছিল আইসিসি। সেবার পাকিস্তানের বিরুদ্ধে একটি টেস্ট ম্যাচে নিজের প্যান্টের চেনে বল ঘষেছিলেন এই দক্ষিণ আফ্রিকান। নিজের দোষ মেনে নিলেও, দু প্লেসিস জানিয়ে দিয়েছিলেন তিনি ভুল করলেও বলকে বিকৃত করার জন্য তিনি এমন কাজ করেননি। উল্লেখ্য, অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে সিরিজের শেষ টেস্ট ম্যাচটি অ্যাডিলেডে খেলতে নামবে দক্ষিণ আফ্রিকা।

 

https://www.youtube.com/watch?v=Pqz8PMa-BFg

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *