পাঁচ বিতর্ক ,যেখানে নিশানায় স্বয়ং শচীন তেন্ডুলকার ! 1
Sachin Tendulkar of India acknowledges the crowd as he walks back after getting out during day two of the second Star Sports test match between India and The West Indies held at The Wankhede Stadium in Mumbai, India on the 15th November 2013 This test match is the 200th test match for Sachin Tendulkar and his last for India. After a career spanning more than 24yrs Sachin is retiring from cricket and this test match is his last appearance on the field of play. Photo by: Pal PIllai - BCCI - SPORTZPICS Use of this image is subject to the terms and conditions as outlined by the BCCI. These terms can be found by following this link: http://sportzpics.photoshelter.com/gallery/BCCI-Image-Terms/G0000ahUVIIEBQ84/C0000whs75.ajndY

তিনি ক্রিকেটের ইশ্বর।বাইশ গজের আঙিনায় তার অবতীর্ণ হওয়ার পর,বদলে যায় ভারতীয় ক্রিকেটের মানচিত্র।নিজের সুচারু ব‍্যাটিং কৌশলের মাধ্যমে তিনি জয় করে নেন আপামর ভারতবাসীর সহ গোটা বিশ্বের ক্রিকেট প্রেমী মানুষদের হৃদয়।তার প্রভাব দশকের পর দশক গড়িয়ে এখনও প্রবাহমান।

পাঁচ বিতর্ক ,যেখানে নিশানায় স্বয়ং শচীন তেন্ডুলকার ! 2

দীর্ঘ দুই দশকের’ ও বেশী সময় ধরে চলেছে তার ক্রিকেট জীবন।তার বর্নময় ক্রিকেট জীবন নানা রেকর্ড এবং সাফল্যে রাঙানো,যা সমৃদ্ধ করেছে ভারতকে, এনে দিয়েছে তাকে ” ক্রিকেট ইশ্বর ” এর তকমা।বরাবর বিতর্ক থেকে দুরে থেকেছেন তিনি, যদিও বিক্ষিপ্তভাবে বিতর্ক তাকে স্পর্শ করেছে বেশ কয়েকবার।আজ এমনই পাঁচ বিতর্ক, যেখানে নিশানায় স্বয়ং শচীন তেন্ডুলকার, রইলো এখানে।

১. বন্ধুর মন্তব্যে অভিমানী সুর

পাঁচ বিতর্ক ,যেখানে নিশানায় স্বয়ং শচীন তেন্ডুলকার ! 3

বিষয়টিকে সরাসরিভাবে শচীনের দোষ বলা যায় না যদিও তার বাল্যকালের বন্ধু বিনোদ কামলি একটু অভিমান রয়ে গেছে তার বিষয়ে।এবং এবিষয়ে বিনোদ মুখ খোলেন ” সচ কা সামনা ” তে।তার বক্তব্য ছিলো, তিনি যখন ক্রমশ ক্রিকেট থেকে সরে যাচ্ছিলেন এবং তার জাতীয় দলে সুযোগ পাওয়া অনিশ্চিত হয়ে দাড়ায় তখন শচীনের উচিত ছিলো তার পাশে দাড়ানো, তাকে ভরসা দেওয়া।

পাঁচ বিতর্ক ,যেখানে নিশানায় স্বয়ং শচীন তেন্ডুলকার ! 4

” ইন্ডিয়া টুডে” র একটি রিপোর্ট অনুযায়ী কামলি’র বক্তব্য ” আমার যখন ওকে সবচেয়ে বেশী প্রয়োজন ছিলো তখন ও ওখানে আমার জন্য ছিলোনা, তাই আমি এমনটা বলেছিলাম শো’ তে ।একবার একটা বিষয়ে গুরুত্ব সহকারে লক্ষ‍্য করুন আমার ভারতীয় দল থেকে বাদ পড়ার কোনও কারণ খুঁজে পাবেন না।এবং আমার এবিষয়ে নিজেরও কোনও ধারণা নেই, যে কেনো এমনটা হলো ” ।

২.ইনিংস ডিক্লেয়ারে যখন অসন্তুষ্ট ” ইশ্বর ” !

পাঁচ বিতর্ক ,যেখানে নিশানায় স্বয়ং শচীন তেন্ডুলকার ! 5
নতুন ভূমিকায় মাস্টার ব্লাস্টার

২০০৪ সাল, মুলতানে টেস্ট ম‍্যাচে মুখোমুখি ভারত – পাকিস্তান।ব‍্যাট হাতে দুরন্ত ফর্মে রয়েছেন শচীন তেন্ডুলকার।ম‍্যাচের দ্বিতীয় দিনে তার রান সংখ্যা তখন ১৯৪, দ্বিশতরানের লক্ষ‍্য স্পর্শ করতে তার প্রয়োজন তখন ছয় রান।গোটা ভারতবাসী তখন অপেক্ষায় ” ক্রিকেট ইশ্বরের ” দ্বিশতরানের।ঠিক এমন একটা সময় ইনিংস ডিক্লেয়ার করে দেন তৎকালীন ভারত অধিনায়ক রাহুল দ্রাবিড়।২০০ করা হয়নি শচীনের।

পরবর্তী নিজের আত্মজীবনী ” প্লেয়িং ইট মাই ওয়ে” তে এই প্রসঙ্গটি তুলে সতীর্থ রাহুলের এই সিদ্ধান্ত সম্পর্কে ক্ষোভ উগড়ে দেন শচীন।

পাঁচ বিতর্ক ,যেখানে নিশানায় স্বয়ং শচীন তেন্ডুলকার ! 6
Sachin Tendulkar of India acknowledges the crowd as he walks back after getting out during day two of the second Star Sports test match between India and The West Indies held at The Wankhede Stadium in Mumbai, India on the 15th November 2013
This test match is the 200th test match for Sachin Tendulkar and his last for India. After a career spanning more than 24yrs Sachin is retiring from cricket and this test match is his last appearance on the field of play.
Photo by: Pal PIllai – BCCI – SPORTZPICS
Use of this image is subject to the terms and conditions as outlined by the BCCI. These terms can be found by following this link:
http://sportzpics.photoshelter.com/gallery/BCCI-Image-Terms/G0000ahUVIIEBQ84/C0000whs75.ajndY

” আমি রাহুলকে আশ্বস্ত করেছিলাম যে এই ঘটনার কোনও প্রভাব খেলার মাঠে থাকবে না।এবং এমন একটা পরিস্থিতির মুখোমুখি হওয়ার পর থেকে আমি নিজে খানিকটা একা থাকতে চেয়েছিলাম ” ।এমনটাই নিজের বইতে লিখেছিলেন শচীন।

শচীনের এইরূপ প্রতিক্রিয়ায় লক্ষ‍্য করা গেছে বিরুপ প্রতিক্রিয়া, একদিকে যখন একশ্রেণী তার হতাশাকে বুঝতে পেরেছেন, ঠিক তেমন অন‍্যদিকে তার এমন ব‍্যবহার কে অনেকেই ” খেলোয়াড় সুলভ আচড়ন ” নয় বলেই মনে করেছেন অনেকেই।এমনকি তার কপালে জুটেছে ” স্বার্থপর ” এর তকমা, যে কিনা নিজেকে রেখেছে দলের আগে।

৩. বল – বিকৃতি’ র র‍্যাডারে শচীন !

পাঁচ বিতর্ক ,যেখানে নিশানায় স্বয়ং শচীন তেন্ডুলকার ! 7

ঘটনাটি ঘিরে ঋতিমতো আলোড়ন তৈরি হয় সেই সময়।২০০১ সাল,টেস্ট ম‍্যাচে মুখোমুখি ভারত – দক্ষিণ আফ্রিকা।ম‍্যাচ চলাকালীন শচীনে বিরুদ্ধে বল – বিকৃতির অভিযোগ আনলেন ম‍্যাচ রেফারি মাইক ডেনিস।ক‍্যামেরায় লেন্সবন্দী হয় কিংবদন্তী ক্রিকেটার সিমের ওপর কিছু একটা করছেন।যদিও পরবর্তী সময়ে গোটা বিষয়টি ভুল প্রমানিত হয়, পরীক্ষা করে দেখা যায় বলের সিম পরিস্কার করছিলেন তিনি।এক্ষেত্রে তার একমাত্র ভুল এমনটি করার আগে তিনি আম্পায়ার কে এবিষয়ে কিছু জানাননি।ঘটনার জেরে ম‍্যাচ ফি’র ৭৫ শতাংশ জরিমানা হওয়ার পাশাপাশি একটি টেস্ট ম‍্যাচ থেকে নির্বাসিত হন ” মাস্টার ব্লাস্টার ” ।

৪. “মাঙ্কিগেট” এবং মন্তব্য বদল !

পাঁচ বিতর্ক ,যেখানে নিশানায় স্বয়ং শচীন তেন্ডুলকার ! 8

সম্ভবত এই একমাত্র বিতর্ক, যার জেরে তীব্র সমালোচনার মুখোমুখি হতে হয়েছিল শচীন তেন্ডুলকারকে।এমনকি এর জেরে তাকে নিশানায় পড়তে হয় এ্যডাম গিলক্রিস্ট এবং রিকি পন্টিংয়ের।২০০৮ সালে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে একটি টেস্ট ম‍্যাচে হরভজন সিং বর্নবিদ্বেষ মুলক মন্তব্য করেন অজি অলরাউন্ডার এ্যন্ড্রু সাইমন্ডস’ কে।প্রথমে বিতর্ক থেকে নিজেকে দুরে সরিয়ে রাখতে চেয়েছিলেন শচীন, তার বক্তব্য ছিলো তিনি এবিষয়ে কিছুই বলবেন না, কারন তিনি কারোর কোনও কথা শুনতে পাইনি।যদিও পরবর্তী সময়ে তার বক্তব্য রদবদল ঘটান শচীন, বলেন সাইমন্ডসে’ র উদ্দেশ্য ” তেরি মা কী ” বলেছিলেন ভাজ্জি, ” মাঙ্কি ” নয়‌।

পরবর্তী সময়ে নিজের আত্মজীবনী ” এ্যট দ‍্য ক্লোজ অফ প্লে ” তে প্রাক্তন অজি অধিনায়ক রিকি পন্টিং লেখেন, ” শচীন গোটা বিষয়টি প্রথমেই ম‍্যাচ রেফারি মাইক প্রোক্টর জানালো না কেনো তা আমি বুঝতে পারলাম না ” ।

পাঁচ বিতর্ক ,যেখানে নিশানায় স্বয়ং শচীন তেন্ডুলকার ! 9

এ্যডাম গিলক্রিস্ট তার বই ” ট্রু কালারস : মাই লাইফ ” এ লেখেন, তেন্ডুলকার প্রথমে বলে ও কিছু শুনতে পাইনি কারণ সে অনেকটাই দুরে ছিলো , আমার বিশ্বাস ও ঠিকই বলেছিলো।এরপর ও ( শচীন ) ফের বলে ও হরভজনের মন্তব্য কে সমর্থন করে, যে ভাজ্জি সাইমো কে ” তেরি মা কি ” বলে।যা অস্ট্রেলিয়ানদের কানে অনেক টা ” মাঙ্কি” র মতো শোনায়।”

গিলক্রস্ট জানিয়েছেন গোটা বিষয়টি তার কাছে কেমন যেনো দুর্ভেদ্য হয়ে ওঠে‌ আর এমন বর্নবিদ্বেষ মুলক বিষয় গুলোকে আরও গুরুত্ব সহকারে দেখা উচিত বলে মনে করেন তিনি।

৫. উপহার যখন বিতর্কের কাঁটা

 

পাঁচ বিতর্ক ,যেখানে নিশানায় স্বয়ং শচীন তেন্ডুলকার ! 10

২০০১ সালে “ফর্মুলা ওয়ান” এর কিংবদন্তী তারকা মাইকেল শুম‍্যাখার শচীনকে উপহার দেন একটি “ফেরারি ৩৬০ মোদেনা ” ।এই উপহার নিয়ে সেই সময় দারুণ সমস্যার মুখোমুখি হতে হয়েছিল শচীনকে।কারণ সরকার তার থেকে ১২০ শতাংশ ” ইম্পর্ট ” খরচ চান।পরবর্তী সময়ে ফের আরেকবার এই গাড়ির জেরে সমস্যায় পড়তে হয় শচীনকে।২০১১ সালের ঘটনা, এই সময় এই গাড়ি গুজরাটের একজন ব‍্যবসায়ী জয়েশ দেশাই কে বিক্রি করে দেওয়ার বিষয়টি এক প্রকার নিশ্চিত করেন ” মাস্টার ব্লাস্টার্স ” ।এসময় ফের তীব্র সমালোচনার মুখোমুখি হন তিনি।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *