শচীন, সেহবাগের মতো তারকাদের নিজের স্পিনে নাচানো এই পাকিস্তানী প্লেয়ার আয় করছেন ট্যাক্সি চালিয়ে

খেলার জগতে ফুটবল এমন একটা খেলা যেখানে খেলোয়াড়দের উপর প্রচুর পয়সার বৃষ্টি হয় কিন্তু যখন ক্রিকেটের কথা বলা হয় তো এখানেও ক্রিকেটারদের কাছে খেলা সময় অর্থের অভাব হয় না। ক্রিকেট খেলাটি যতক্ষণ সক্রিয় রয়েছে ততক্ষণ যথেষ্ট অর্থ রয়েছে। কিন্তু একবার ক্রিকেট খেলা ছাড়ার পর এমন খেলোয়াড় রয়ছে যাদের নিজের পরিবার প্রতিপালনের জন্যও সংঘর্ষ করতে হয়।

ভারতের তারকা ব্যাটসম্যানদের আউট করা এই স্পিন বোলার আজ চালান ট্যাক্সি

শচীন, সেহবাগের মতো তারকাদের নিজের স্পিনে নাচানো এই পাকিস্তানী প্লেয়ার আয় করছেন ট্যাক্সি চালিয়ে 1

ভারতীয় ক্রিকেট দলের তারকা ব্যাটসম্যান শচীন তেন্ডুলকর, রাহুল দ্রাবিড় বা বীরেন্দ্র সেহবাগের উইকেট নেওয়া তাদের চরম সময় ততটাও সহজ ছিল না। কিন্তু একজন পাকিস্তানী স্পিন বোলার ছিলেন যিনি ভারতের এই তারকাদের নিজের স্পিনের জালে ফাঁসিয়েছেন। কিন্তু এই পাকিস্তানী স্পিন বোলারকে আজ নিজের পরিবার পালন করার জন্য যথেষ্ট সংঘর্ষ করতে হচ্ছে। এই স্পিন বোলার যিনি তারকাদের এক সময় আউট করেছেন আজ তার নিজের পরিবার প্রতিপালনের জন্য ট্যাক্সি চালান।

পরিবার প্রতিপালনের জন্য ট্যাক্সি চালান আরশাদ খান

শচীন, সেহবাগের মতো তারকাদের নিজের স্পিনে নাচানো এই পাকিস্তানী প্লেয়ার আয় করছেন ট্যাক্সি চালিয়ে 2

আমরা কথা বলছি পাকিস্তানের প্রাক্তন স্পিন বোলার আরশাদ খানের। আরশাদ খান নিজের পুরো কেরিয়ারে ৭৯৭টি উইকেট হাসিল করেছেন। কিন্তু ক্রিকেট থেকে অবসর নেওয়ার পর তাকে এমন মুশকিলে পড়তে হয়েছে যে তাকে নিজের পরিবারের রুটি রুজি চালানোর জন্য আজ অস্ট্রেলিয়ায় ট্যাক্সি চালাতে হচ্ছে। আরশাদ খান ক্রিকেট মাঠে ১৯৯৩ সালে ডেবিউ করেন তো এরপর তিনি পাকিস্তানের জন্য ১৯৯৭তে টেস্টে ডেবিউ করেন। তারপর থেকে আরশাদ খান পাকিস্তানের হয়ে ২০০৬ পর্যন্ত আন্তর্জাতিক ক্রিকেট খেলেন। এর মধ্যে তিনি ৯টি টেস্ট ম্যাচে ৩২টি উইকেট আর ওয়ানডে ম্যাচে ৫৮টি ওয়ানডে ম্যাচে ৫৬টি উইকেট হাসিল করেছেন। এছাড়াও ৬০১টি প্রথম শ্রেণীর উইকেট এবং ১৮৯টি লিস্ট এ উইকেট নিয়েছেন।

পাকিস্তানের হয়ে খেলেছেন ৯টি টেস্ট আর ৫৮টি ওয়ানডে

শচীন, সেহবাগের মতো তারকাদের নিজের স্পিনে নাচানো এই পাকিস্তানী প্লেয়ার আয় করছেন ট্যাক্সি চালিয়ে 3

কিন্তু নিজের পুরো কেরিয়ারে প্রায় ৮০০টি উইকেট নেওয়া এই বোলারকে আজ নিজের দেশে নয় বরং অস্ট্রেলিয়ায় গিয়ে উবের ট্যাক্সি চালাতে হচ্ছে। তিনি পাকিস্তানের দলে ২০০১ থেকে ২০০৫ পর্যন্ত নিয়মিত খেলতে সফল হয়েছেন। ২০০৬ এ তার দলে প্রত্যাবর্তন অবশ্যই হয় কিন্তু তাকে দ্রুতই বাদ দেওয়া হয়। এরপর প্রত্যাবর্তনের অপেক্ষা করতে থাকেন আরশাদ কিন্তু সুযোগ পাননি। এর মধ্যে তিনি ২০১১ পর্যন্ত ঘরোয়া ক্রিকেট খেলা বজায় রাখেন। অবসরের পর তাকে অর্থের অভাবের মধ্যে দিয়ে যেতে হয়। যে কারণে লজ্জার হাত থেকে বাঁচতে তিনি অস্ট্রেলিয়া চলে যান আর সেখানের রাস্তায় ট্যাক্সি চালিয়ে পরিবার প্রতিপালন করছেন।

suvendu debnath

কবি, সাংবাদিক এবং গদ্যকার। শচীন তেন্ডুলকর, ব্রায়ান লারার অন্ধ ভক্ত। ক্রিকেটের...

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *