প্রাক্তন ফুটবিলার সুনীল ছেত্রী এই আইপিএল ফ্রেঞ্চাইজির হয়ে খেলার ইচ্ছা প্রকাশ করলেন

ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লীগ ক্রিকেট সমর্থকদের জন্য আকর্ষণের কেন্দ্র হয়ে থাকে। এই লীগে না শুধু ক্রিকেটার্স বরং অন্য খেলার খেলোয়াড়রাও আগ্রহ দেখান। এর মধ্যেই ভারতীয় ফুটবলের দলের প্রাক্তন অধিনায়ক সুনীল ছেত্রী নিজের ঘরোয়া দল অর্থাৎ ব্যাঙ্গালোরের ফ্রেঞ্চাইজির হয়ে খেলার ইচ্ছা প্রকাশ করেছেন।

রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালোরের হয়ে খেলতে চান সুনীল ছেত্রী

ভারতের ফুটবল দলের প্রাক্তন অধিনায়ক সুনীল ছেত্রী ফুটবল জগতের বড়ো নাম থেকেছেন। তিনি ব্যাঙ্গালোরে জন্মেছেন। ছেত্রী সোশ্যাল মিডিয়ায় যথেষ্ট অ্যাক্টিভ থাকা সেলিব্রিটিদের মধ্যে একজন। এর মধ্যে একজন সমর্থক সুনীল ছেত্রীকে ট্যাগ করে প্রশ্ন করেন— যদি আপনি সুযোগ পান, তো আপনি কোন আইপিএল ফ্রেঞ্চাইজির হয়ে খেলতে চাইবেন? এর জবাব দিতে গিয়ে সুনীল ছেত্রী বলেন – আমি ব্যাঙ্গালোরের, তাই সম্ভবত আপনি আপনার জবাব পেয়ে গিয়ে থাকবেন।
আপনাদের জানিয়ে দিই যে আইপিএল ব্যাঙ্গালোর বেস ফ্রেঞ্চাইজির নাম রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালোর যার অধিনায়কত্ব ভারতীয় ক্রিকেট দলের অধিনায়ক বিরাট কোহলি সামলান।

গভীর বন্ধুত্ব সুনীল ছেত্রী আর বিরাট কোহলির মধ্যে

প্রাক্তন ফুটবিলার সুনীল ছেত্রী এই আইপিএল ফ্রেঞ্চাইজির হয়ে খেলার ইচ্ছা প্রকাশ করলেন 1

ভারতীয় ক্রিকেট দলের অধিনায়ক বিরাট কোহলি আর প্রাক্তন ফুটবলার সুনীল ছেত্রী বাস্তব জীবনে যথেষ্ট ভালো বন্ধু। তারা প্রায়শই সোশ্যাল মিডিয়ায় একসঙ্গে ছবি শেয়ার করেন। এছাড়াও সুনীল ছেত্রী বিরাট কোহলির উৎসাহ বাড়াতে প্রায়ই স্টেডিয়ামে পৌঁছে যান। সম্প্রতিই বিরাট-অনুষ্কা সুনীল ছেত্রীর বাড়িতে ডিনার করার জন্য গিয়েছিলেন। এর ছবি সোশ্যাল মিডিয়ায় দেখা গিয়েছিল। আপনাদের জানিয়ে দিই যে ২০১২র পর থেকে বিরাট কোহলি সম্পূর্ণভাবে ভেজিটেরিয়ান হয়ে গিয়েছিলেন। এরপর তার বিশেষ বন্ধু সুনীল ছেত্রীও মাংস খাওয়া ছেড়ে দেন আর এরপর তিনি স্বীকার করেছিলেন যে ভেজিটেরিয়ান ডায়েটের ফলে তিনি ফিট থাকতে যথেষ্ট সাহায্য পান।

এখনো পর্যন্ত একটিও খেতাব এতেনি আরসিবি

প্রাক্তন ফুটবিলার সুনীল ছেত্রী এই আইপিএল ফ্রেঞ্চাইজির হয়ে খেলার ইচ্ছা প্রকাশ করলেন 2

ব্যাঙ্গালোর বেস ফ্রেঞ্চাইজি আরসিবি দলের নেতৃত্ব ২০১৩ থেকেই বিরাট কোহলির হাতে রয়েছে। কিন্তু এখনো পর্যন্ত খেলা হওয়া ১২টি মরশুমের মধ্যে একটিও মরশুমে তারা খেতাব জিততে পারেনি। তবে প্র্যা প্রত্যেক মরশুমেই দলের কাছে বড়ো বড়ো নামের খেলোয়াড় থেকেছে। তা সত্ত্বেও তারা খেতাব জিততে পারেনি। এটা শুনতে অবাক লাগলেও এই সত্যিটাকে অস্বীকার করা যাবে না। আপনাদের জানিয়ে দিই যে এখনো পর্যন্ত আরসিবি ৩বার ২০০৯, ২০১১ আর ২০১৬য় ফাইনাকে ওঠে। গত ৩টি মরশুমে ধরে এই ফ্রেঞ্চাইজির প্রদর্শন ভীষণই নিরাশাজনক ছিল, আর তারা প্লে অফের জন্যও কোয়ালিফাই করতে পারেনি।

suvendu debnath

কবি, সাংবাদিক এবং গদ্যকার। শচীন তেন্ডুলকর, ব্রায়ান লারার অন্ধ ভক্ত। ক্রিকেটের...

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *