ENGAUS: স্ট্যাটস: ম্যাচে হল মোট ১৩টি ঐতিহাসিক রেকর্ড, ইংল্যাণ্ড ২৭ বছর পর হাসিল করল এই বিশেষ কৃতিত্ব

আইসিসি একদিনের বিশ্বকাপে আজ দ্বিতীয় সেমিফাইনাল ম্যাচে ঘরের দল ইংল্যান্ড আর গতবিজেতা অস্ট্রেলিয়া এজবাস্টনে মুখোমুখি হয়েছিল। অস্ট্রেলিয়া দল প্রথমে ব্যাট করে ২২৩ রান করে। অস্ট্রেলিয়ার দল ৪৯ ওভারের অলআউট হয়ে যায়। দলের হয়ে স্টিভ স্মিথ সবচেয়ে বেশি ৮৫ রান করেন। অন্যদিকে ইংল্যান্ডের হয়ে ক্রিস ওকস, আর আদিল রশিদ তিনটি করে উইকেট নেন। ইংল্যান্ডের সামনে ম্যাচ জেতার জয় ২২৪ রানের লক্ষ্য ছিল। এই লক্ষ্য একদমই সহজ ছিল আর ইংল্যাণ্ড দলের ব্যাটসম্যানরা শুরু থেকেই আক্রামনাত্মক মেজাজ দেখিয়ে এই ম্যাচ ৩২.১ ওভারের খেলায় একতরফাভাবে জিতে নেয়। ইংল্যাণ্ড এই ম্যাচ আট উইকেটে জেতে আর ফাইনালে জায়গা করে নেয়।

এক নজর দেখে নেওয়া যাক এই ম্যাচে হওয়া কিছু গুরুত্বপূর্ণ রেকর্ডসের দিকে:

১. অস্ট্রেলিয়ার অধিনায়ক অ্যারণ ফিঞ্চ শুন্যে রানে আউট হন। একদিনের ক্রিকেটে এটা ১১তম বার যখন ফিঞ্চ শুন্য রানে আউট হলেন।

২. জোফ্রা আর্চার এই বিশ্বকাপে সবচেয়ে বেশি ডট বল করা বোলার হলেন। দ্বিতীয় স্থানে ট্রেন্ট বোল্ট (৩২০) রয়েছেন।

৩. স্টিভ স্মিথের (৮৫) বিশ্বকাপের নকআউট ম্যাচে এটি লাগাতার চতুর্থ ৫০+ স্কোর ছিল।

একদিনের বিশ্বকাপের নক আউট ম্যাচে স্টিভ স্মিথের প্রদর্শন:

Run Match
65 vs Pakistan Quarter final , 2015
105 vs India Semifinals , 2015
56 * vs New Zealand Final , 2015
85  vs England Semifinals , 2019

 

৪. অস্ট্রেলিয়ার দল ২২৩ রানের স্কোরে আউট হয়ে যায়। বিশ্বকাপের নকআউট ম্যাচে এটা মাত্র দ্বিতীয়বার যখন ক্যাঙ্গারু দল অলআউট হল। এর আগে ১৯৯৯তে দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে তারা সেমিফাইনালে নকআউট হয়েছিল।

৫. অ্যারণ ফিঞ্চ বিশ্বকাপের সেমিফাইনাল ম্যাচে শুন্য রানে আউট হওয়া প্রথম অস্ট্রেলিয়ান এবং বিশ্বের চতুর্থ অধিনায়ক হলেন। অ্যারণ ফিঞ্চের আগে ১৯৮৩ বিশ্বকাপে বব উইলস (ইংল্যাণ্ড বনাম ভারত), ১৯৯৬তে মহম্মদ আজহারউদ্দিন (বনাম শ্রীলঙ্কা), আর ১৯৯৯তে হ্যান্সি ক্রোনিয়ে (বনাম অস্ট্রেলিয়া) এই অনিচ্ছাকৃত রেকর্ড গড়েছেন।

৬. জো রুট (১২) এই টুর্নামেন্টে এখনো পর্যন্ত ১২টি ক্যাচ নিয়েছেন। কোনো একটি বিশ্বকাপে ১২টি ক্যাচ নেওয়া তিনি প্রথম খেলোয়াড় হলেন। গত রেকর্ড ২০০৩ বিশ্বকাপে রিকি পন্টিংয়ের (১১) নামে ছিল।

 

৭. জেসন রয় আর জনি বেয়রস্টো (১২৪) বিশ্বকাপ ২০১৯এ চতুর্থবার সেঞ্চুরি পার্টনারশিপ গড়েছেন। কোনো একটি বিশ্বকাপে চারটি সেঞ্চুরি পার্টনারশিপ গড়া এটি প্রথম জুটি।

৮. মিচেল স্টার্ক (২৭) কোনো একটি বিশ্বকাপে অস্ট্রেলিয়ার হয়ে সবচেয়ে বেশি উইকেট নেওয়া বোলার হলেন। এই বিষয়ে মিচেল স্টার্ক গ্লেন ম্যাকগ্রার (২৬, ২০০৭) রেকর্ড ভাঙলেন।

৯. জেসন রয় বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে হাফসেঞ্চুরি করা ইংল্যাণ্ডের চতুর্থ ব্যাটসম্যান হলেন। রয়ের আগে মাইক বিয়ারলি (৫৩, বনাম নিউজিল্যান্ড, ১৯৭৯), মাইক গ্যাটিং (৫৬ বনাম ভারত, ১৯৮৭), গ্রীম হিক (৮৩ বনাম দক্ষিণ আফ্রিকা ১৯৯২) এই রেকর্ড গড়েছিলেন।

১০. জেসন রয় ৮৫ রান যে কোনো ইংল্যাণ্ড প্লেয়ারের বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে করা সবচেয়ে বেশি রান। গত রেকর্ড গ্রীম হিকের (৮৩) নামে ছিল।

১১. ১৯৯২ এরপর ইংল্যাণ্ডের অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে বিশ্বকাপে এটি প্রথম জয় ছিল।

১২. ইংল্যাণ্ডের দল চতুর্থবার একদিনের বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে পৌঁছলো। ২৭ বছর পর ইংল্যাণ্ড বিশ্বকাপের ফাইনালে জায়গা পেল।

১৩. এটা প্রথমবার যখন অস্ট্রেলিয়ার দলকে বিশ্বকাপের সেমিফাইনাল ম্যাচে হারের মুখ দেখতে হল।

আরও পড়ুন

নিজের অবসরের সিদ্ধান্তের ব্যাপারে মহেন্দ্র সিং ধোনি জানালেন বিসিসিআইকে

নিজের অবসরের সিদ্ধান্তের ব্যাপারে মহেন্দ্র সিং ধোনি জানালেন বিসিসিআইকে
উইকেটকিপার ব্যাটসম্যান মহেন্দ্র সিং ধোনি ভারতীয় দলের হয়ে বিশ্বকাপ ২০১৯ এ ভাল প্রদর্শন করেছিলেন। যদিও তার এই...

হাসিন জাহান শামি আর তার পরিবারের উপর করলেন গুরুতর অভিযোগ, পুলিশের উপরও অ্যাকশন নেওয়ার দাবী

হাসিন জাহান শামি আর তার পরিবারের উপর করলেন গুরুতর অভিযোগ, পুলিশের উপরও অ্যাকশন নেওয়ার দাবী
ভারতীয় তারকা জোরে বোলার মহম্মদ শামি আর তার স্ত্রী হাসিন জাহান লাগাতার বিতর্কের মধ্যে থাকেন। যদিও শামি...

মহেন্দ্র সিং ধোনির অবসর না নেওয়ায় ভারতীয় ক্রিকেটের হচ্ছে এই তিন বড়ো লোকসান

মহেন্দ্র সিং ধোনির অবসর না নেওয়ায় ভারতীয় ক্রিকেটের হচ্ছে এই তিন বড়ো লোকসান
মহেন্দ্র সিং ধোনি বিসিসিআইকে পরিস্কারভাবে বলে দিয়েছেন যে তিনি বর্তমানে অবসর নিচ্ছেন না। যদিওসেই সঙ্গে তিনি বিসিসিআইকে...

‘ক্রিকেট কোনো খেলাই নয়’ এই শক্তিশালী দেশ করল ক্রিকেটের বেইজ্জতি

‘ক্রিকেট কোনো খেলাই নয়’ এখন আপনি ভাবছেন যে এটা ভুল করে লেখা হয়েছে, কিন্তু না একদম সঠিকই...

বীরেন্দ্র সেহবাগ বললেন ধোনি নন বরং আমাকে এই ব্যক্তির কারণে নিতে হয়েছিল অবসর

বীরেন্দ্র সেহবাগ বললেন ধোনি নন বরং আমাকে এই ব্যক্তির কারণে নিতে হয়েছিল অবসর
বিশ্বকাপ চলাকালীন আর তারপর থেকে মহেন্দ্র সিং ধোনির অবসর নিয়ে অনেক কিছু বলা হয়েছে, অনেক পোষ্ট করা...