অনুরাগের পর বোর্ডের মসনদে বসতে চলেছেন সৌরভই 1

এদিন সুপ্রিম কোর্টের রায়ে ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডে অনুরাগ ঠাকুরের জামানা শেষ হল।লোধা কমিটির রায় না মানায় এদিন বিসিসিআই-এর দুই শীর্ষকর্তা প্রেসিডেন্ট অনুরাগ ঠাকুর ও সচিব অজয় শিরকে অপসারিত করলেন সুপ্রিম কোর্টের প্রধান বিচারপতি টি এস ঠাকুর৷আগামী দু’ সপ্তাহের মধ্যে পর্যবেক্ষক নিয়োগ করবে সুপ্রিম কোর্ট৷ এ সময় পর্যন্ত বোর্ডের কাজ পরিচালনা করবেন দুই সিনিয়র ভাইস-প্রেসিডেন্ট৷ বোর্ডের পরবর্তী প্রেসিডেন্ট বাছাইয়ের জন্য দু’ সদস্যের কমিটি গঠন করল সুপ্রিম কোর্ট৷ এঁরা হলেন দেশের প্রাক্তন সলিটরি জেনারেল ফালি নরিম্যন ও সিনিয়র আইনজীবী গোপাল সুব্রহ্মনিয়ম৷ বোর্ডের অন্তর্বতী প্রেসিডেন্টের তালিকায় আপাতত জ্বলজ্বল করছে প্রিন্স অফ কলকাতা সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়ের নাম।সবকিছু ঠিকঠাক থাকলে সুপ্রিম কোর্টের রায়ে ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের মসনদে বসতে পারেন বাংলার মহারাজ৷ দু’সপ্তাহে মধ্যেই বিসিসিআই অন্তর্বতী প্রেসিডেন্ট হতে পারেন সৌরভই৷

লোধা কমিটির সুপারিশ না মানায় সুপ্রিম কোর্ট বিসিসিআইয়ের দুই শীর্ষকর্তাকে বরখাস্ত করার পরই বোর্ড রাজনীতিতে পালাবদলের ইঙ্গিত স্পষ্ট হয়ে গেল। লোধার এই নিয়মের গেরোয় যেমন অনুরাগ ঠাকুর, অজয় শিরকে আউট হলেন, একইভাবে বোর্ডের নতুন দায়িত্ব পাওয়ার ক্ষেত্রে উঠে আসছে অনেক নতুন মুখ৷এই পরিস্থিতিতে যিনি প্রবলভাবে বোর্ডের মসনদ দখলের দিকে এগিয়ে যাওয়ার সম্ভবনা, তিনি সৌরভ গাঙ্গুলি৷ ক্রিকেট মহলের ধারনা, সিএবি সভাপতি বিসিসিআইয়ের সভাপতির পদ পেতে চলেছেন৷এই পরিস্থিতিতে বোর্ড-রাজনীতির দৌড়ে সৌরভের পাশাপাশি এগিয়ে রয়েছেন আইপিএল গভর্নিং কাউন্সিলের চেয়ারম্যান রাজীব শুক্ল৷ ক্রিকেট প্রশাসনে ন’ বছরের মেয়াদ পূর্ণ হতে দু’জনেরই বাকি অনেকদিন৷ সেক্ষেত্রে সৌরভের বড় সুযোগ চলে আসতে পারে৷

লোধা কমিটির সুপারিশ কার্যকর হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে রোটেশন পদ্ধতিতে আগামী নির্বাচনে মহারাষ্ট্র ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশনের ভোটাধিকার পাওয়ার সম্ভাবনা ক্ষীণ৷ তাই শিরকের ফেরার সম্ভাবনা আগেই শেষ হয়ে গিয়েছিল৷ শরদ পওয়ার (৭৫), নারায়ণস্বামী শ্রীনিবাসনের (৭১) বয়স বেশি হওয়ার জন্য বোর্ডের প্রশাসনে কোনো জায়গা নেই৷যদিও এই দু’জন এরইমধ্যে নিজেদের অ্যাসোসিয়েশনের মসনদ থেকে সরে দাঁড়িয়েছেন। ভারতীয় ক্রিকেট কাঠামোতে রদবদলের করতে লোধা কমিটির সুপারিশ অনুযায়ী সত্তরোর্ধ্ব কোন ক্রিকেট কর্তা এবং মন্ত্রী-আমলাদের ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডে কোন পদে দায়িত্বে থাকবে না। সেক্ষেত্রে বোর্ডের মসনদে বসার রাস্তা পরিস্কার হচ্ছে সৌরভের কাছে।পাশাপাশি ক্রিকেটকে দুর্নীতি করতে সুপ্রিম কোর্ট নিযুক্ত লোধা কমিশন বোর্ডের মাথায় একজন স্বচ্ছ ভাবমূর্তি ব্যাক্তিকে রাখার কথা জানিয়েছেন।ম্যাচ ফিক্সিং কেলেঙ্কারির পর একসময় আজহারউদ্দিন পরবর্তী ভারতীয় ক্রিকেটে নতুন অধ্যায়ের সূচনা হয়েছিল ক্রিকেটার-অধিনায়ক সৌরভের হাত ধরে৷ তাই নতুন এই দায়িত্বে বাকিদের চেয়ে কয়েক’শো মাইল এগিয়ে থাকবেন প্রিন্স অফ ক্যা্লকাটা।

শশাঙ্ক মনোহর আইসিসি’র পথে হাঁটা দিলে বিসিসিআই-এ ফের শূন্যপদ তৈরি হয়৷ তখনও উঠে এসেছিল সৌরভের নাম৷ সেবার অবশ্য আইনি সমস্যার জন্যই সভাপতির আসনে বসতে পারেননি সৌরভ৷ সিএবি সভাপতি হিসেবে কর্মদক্ষতায় নিজেকে প্রমাণ করেছেন৷ তাই বোর্ড সভাপতি পদে সৌরভ বসতেই পারেন, বলে মনে করছেন অনেকে৷এছাড়া ভারতীয় ক্রিকেটের নাড়ির স্পন্দন সৌরভ অন্যদের তুলনায় ভালো বোঝেন, তা কমবেশি সবারই জানা।দীর্ঘদিন জাতীয় দলের অধিনায়ক থাকার সুবাদে প্রশাসনিক দিকটিও তাঁর নখদর্পনে৷ সৌরভের অধীনে বাংলার ক্রিকেটেও এসেছে একের পর এক নজরকাড়া বদল৷  প্রশাসনিক সৌরভ এখন তুখোড়৷ তাই বোর্ড সভাপতির পদে তাঁকে চাইছেন সবাই খোদা লোধা কমিটিরও পছন্দের পাত্র সৌরভ৷ সোশ্যাল মিডিয়ায় ক্রিকেটপ্রেমীদের আবেগ বাঁধ মানছে না৷ তাই বারবার বোর্ডের পরবর্তী সভাপতি হিসেবে উঠে আসছে সৌরভের নাম৷

 

Leave a comment

Your email address will not be published.