মহেন্দ্র সিংহ ধোনি

এই আইপিএলে ভারতের বিস্ফোরক ব্যাটসম্যান মহেন্দ্র সিং ধোনি ঠিক ফর্মে নেই। কিন্তু এই ব্যাটসম্যানই ফর্মে থাকলে কী অবস্থা হতে পারত, জানেন বোলাররা। ধোনির বিরুদ্ধে বল করতে বিশ্বের তাবড় তাবড় বোলারদের হাত কাঁপে।

আইপিএল ২০১৭ঃ এবার ক্রিকেটীয় অভিভাবকের মত ধোনির পাশে দাঁড়ালেন সৌরভ

এই মরশুমে সানরাইজার্স ও রাইসিং পুনের যে ম্যাচে নিশ্চিত হারের মুখ থেকে জয়ের হাসি ছিনিয়ে নিয়েছিলেন ধোনি, সেই বোলাররাই জানেন দিনটা কেমন ছিল। সানরাইজার্সের ১৭৬ রানের লক্ষ্যমাত্রা জয় করতে নেমে রাইসিং পুনের অবস্থা একসময় বেশ করুণ ছিল। ধোনি শেষ পর্যন্ত দাঁড়িয়ে থেকে ম্যাচ জিতিয়েই প্যাভিলিয়নে ফেরেন। এই আইপিএলে ইনিংসের শেষ ওভারগুলি বেশ ভাল করেছে সানরাইজার্সের সিদ্ধার্থ কাউল। সেই কারণেই সেদিনও তাঁকেই বল করতে পাঠানো হয়েছিল। জেতার জন্য তখন ১১ রান বাকি। তবে ধোনি ক্রিজে থাকায় এই রান এমন কিছু কঠিন নয়। ওভারের প্রথম বলে রসিদ খান মনোজ তিওয়ারির ক্যাচ ফেলে বাউন্ডারি না দিলে, সেদিনের নায়ক হয়ে থাকতে পারত সিদ্ধার্থ। প্রথম বলে হতাশজক বাউন্ডারি পাওয়ার পরের চার বলে মাত্র ৫ রান দেন তিনি। শেষ বলে দু’রান করতে গিয়ে বাউন্ডারি মেরেই ম্যাচ জেতান ধোনি। তবুও সিদ্ধার্থ ধোনির কাছে ঋনী রয়ে গেলেন।

সিদ্ধার্থ কাউল

সিদ্ধার্থ বলেন, “মাহি ভাইয়ের বিরুদ্ধে বল করা খুবই কঠিন কাজ। বিশেষ করে তিনি যখন ওরকম ফর্মে রয়েছেন। আমি বলের মধ্যে অনেক বৈচিত্র এনেছিলাম ওই ওভারে, ফিল্ডিংও বদলেছিলাম প্রতিনিয়ত তবুও ম্যাচটা ছিনিয়ে নিয়ে গেল মাহিভাই আমাদের থেকে।”

ম্যাচের পর সিদ্ধার্থের দারুণ প্রশংসা করেন ধোনি। তরুণ এই বোলার বলেন, “ম্যাচ শেষে মাহিভাই আমাকে বলেন, ভাল করছিলে তুমি। বলের গতিও অনেক বেড়েছে। ইয়র্কার বলগুলিও ঠিক জায়গায় পড়ছে। এভাবেই তীক্ষ্ন বল করে যাও।” ম্যাচ জেতাতে না পারলেও ভারতের সফলতম অধিনায়কের কাছ থেকে এই ধরনের বাহবা পাওয়ার পর আর কী চাওয়ার থাকতে পারে।

২০০৮ সালে বিরাট কোহলির নেতৃত্বে ভারত অনুর্দ্ধ-১৯ বিশ্বকাপ জেতে। এই দলের অন্যতম সদস্য ছিল সিদ্ধার্থ। সানরাইজার্স অধিনায়ক ডেভিড ওয়ার্নারের তাঁর উপর অনেটাই ভরসা আছে বলে শেষ ওভারে বল করতে পাঠান। সিদ্ধার্থ বলেন, “দিল্লি ডেয়ারডেভিলসে খেলা থেকেই ওয়ার্নার আমাকে চেনেন। যুবি পাজিও আমায় রঞ্জি ট্রফিতে শেষ তিন-চার বছর পাঞ্জাবের হয়ে বল করতে দেখেছেন। সেই জন্যই আমার ক্ষমতা সম্বন্ধে তিনি অনেকটাই ওয়াকিবহাল। তাই কার্যত জোর করেই তিনি আমায় শেষ ওভারে বল করতে পাঠান।

“এই দলে আরও যোগ্য বোলার আছে। কিন্তু তবুও তাঁরা আমার ওপর বিশ্বাস রেখে শেষ ওভারে বল করতে পাঠিয়েছে। বিশেষ করে টি টোয়েন্টির মত একটা ফর্মাটে।”

চাপের সময়ে কোন বিষটা তাঁকে অনেকটা সাহায্য করে? সিদ্ধার্থ বলেন, “মানষিক বলিষ্ঠতা আমায় এই সময়গুলিতে অনেকটা সাহায্য করে। বিশেষত, কঠিন সময়ে আমার শৈলিগুলির বিকাশে সাহায্য করে এই বলিষ্ঠতা। চোট, নির্বাচনের হতাশা কারোর খেলাতে ছাপ ফেলে। কিন্তু সেই সমস্ত বিষয়কে ভুলে গিয়ে আমি নিজের মানষিক অবস্থাকে নিয়ন্ত্রণে আনতে পেরেছি।”

  • SHARE

    আরও পড়ুন

    ইংল্যান্ডে অস্ট্রেলিয়ার হালত দেখে ঘুম ভাঙল ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার, স্মিথ ওয়ার্নার পেলেন ফেরার অনুমতি

    ইংল্যান্ডে অস্ট্রেলিয়ার হালত দেখে ঘুম ভাঙল ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার, স্মিথ ওয়ার্নার পেলেন ফেরার অনুমতি
    অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেটের হালত এই সময় খুব একটা ভাল নয়। একদিকে যেখানে দলের তারকা ব্যাটসম্যান স্টিভ স্মিথ এবং...

    বিরাট জানালেন এই দুই খেলোয়াড়ের উপর সবচেয়ে বেশি নির্ভর করেই ইংল্যান্ডে জিতবেন সিরিজ

    বিরাট জানালেন এই দুই খেলোয়াড়ের উপর সবচেয়ে বেশি নির্ভর করেই ইংল্যান্ডে জিতবেন সিরিজ
    ভারতীয় দলকে আয়ারল্যান্ডের বিরুদ্ধে ২৭ এবং ২৯ জুন দুটি টি২০ ম্যাচের সিরিজ খেলতে হবে। আর এর পর...

    সম্পূর্ণ কেরিয়ারে এই ভারতীয় ব্যাটসম্যানকে কোনও বোলারই শূন্য রানে আউট করতে পারেন নি

    সম্পূর্ণ কেরিয়ারে এই ভারতীয় ব্যাটসম্যানকে কোনও বোলারই শূন্য রানে আউট করতে পারেন নি
    ক্রিকেটে প্রত্যেক ব্যাটসম্যানের উপর সবচেয়ে বেশি চাপ থাকে তখন যখন তিনি ব্যাট করার জন্য ক্রিজে আসেন। এই...

    অগ্নিপরীক্ষা দিয়ে নিজেদের যোগ্যতা প্রমাণিত করতে চান বিরাট কোহলি

    চার বছর পর আবার ইংল্যান্ড সফর। আবার ভারতীয় ক্রিকেট টিম সহ অধিনায়ক বিরাট কোহলির কাছে অগ্নিপরীক্ষা ইংল্যান্ডের...

    কাররই নেই কোনও আশা, কিন্তু এই তিন ভারতীয় খেলোয়াড় পেতে পারেন ২০১৯ বিশ্বকাপ দলে জায়গা

    ২০১৯ বিশ্বকাপ শুরু হতে আর মাত্র এক বছরেরও কম সময় রয়ে গিয়েছে। ভারতীয় দল বিরাট কোহলির অধীনে...