শচীনের রেকর্ড ভাঙা নিয়ে মুখ খুললেন বিরাট; যা বললেন... 1

ভালোবেসে লোকে তাঁকে শচীন রেকর্ড তেন্ডুলকর বলে ডাকত। ভারতের এই ব্য়াটিং লেজেন্ড যখন ক্রিকেট থেকে চিরতরে অবসর নেন, তখন অন্য়ান্য় রের্কড ছাড়াও, শচীনের দখলে বিশ্বের ছটি বড় রেকর্ড। টেস্ট ও একদিনের আসরে ক্রিকেট গড সবচেয়ে বেশি ম্য়াচ খেলেছেন, সবেচেয়ে বেশি রান করেছেন আর সবচেয়ে বেশি সেঞ্চুরি করেছেন। এ এক এমন রেকর্ড – বলা হচ্ছিল, ভবিষ্য়তে হয়তা বা কেউ এই রেকর্ড ভাঙতে পারবেন। এ রেকর্ড চিরজীবন অক্ষত থেকে যেতেও পারে। কারণ, ক্রিকেটে যত আধুনিক হতে শুরু করেছে, সময়ের সঙ্গে তাল মিলিয়ে চিকিৎসা বিজ্ঞান যতই উন্নতি করুক, বছরে এখন অনেক বেশি ম্য়াচ খেলতে হয় ক্রিকেটারদের। শচীনের মতো চব্বিশ বছর ধরে ক্রিকেট খেলা চালিয়ে যাওয়া কারওর পক্ষে সম্ভব হবে না। ফলে ভারতের ব্য়াটিং লেজেন্ডের রেকর্ড অমর কাহিনী হয়েই থেকে যাবে।

২০০৯ সালে ভারতের সিনিয়র দলের হয়ে আন্তর্জাতিক মঞ্চে অভিষেক হয় বিরাট কোহলি। বর্তমানে তিনি ভারত অধিনায়ক। গত আড়াই বছরে বিরাট যেভাবে খেলে চলেছেন এবং তাঁর ব্য়াটে শতরানের বন্য়া বইছে, তাতে গত দেড় বছর ধরে একটাই কথা শোনা যাচ্ছে, শচীনের রেকর্ড আর কেউ ভাঙতে পারুক বা না পারুক, বিরাট অবশ্য়ই শচীনের কোনও না কোনও একটি ভেঙে দেবেন। কথাটা খুব একটা অলিক কল্পনা নয়। শ্রীলঙ্কার বিরুদ্ধে গত রবিবার একদিনের সিরিজ শেষ হয়েছে। এই সিরিজে বিরাট দুটি শতরান করে রিকি পন্টিংকে স্পর্শ করেছেন। তিরিশটি শতরান করে অস্ট্রেলিয়ার কিংবদন্তি  অধিনায়কের সঙ্গে বর্তমান ভারত অধিনায়ক এখন একদিনের আসরের সর্বোচ্চ সেঞ্চুরি করাদের তালিকায় যুগ্মভাবে দুনম্বরে রয়েছেন। রিকি ৩৭৫টি ম্য়াচ খেলে ত্রিশটি শতরান করেছিলেন। সেখানে বিরাট ১৯৫টি ম্য়াচ খেলেই ওই নজির স্পর্শ করলেন। তালিকায় সবার আগে শচীনের ৪৯টি সেঞ্চুরি। অর্থাৎ গ্রেট তেন্ডুলকরকে ছুঁতে আর ১৯টি শতরান করতে হবে বিরাটকে। আর এইভাবে তাঁর ফর্ম চলতে থাকলে আগামী দুবছরে সেই নজির স্পর্শ করে ফেলতে পারেন ভারত অধিনায়ক। আর তা অনেক কম ম্য়াচ খেলেই করে ফেলবেন তিনি। শচীন অবশ্য় বারবারই বলেছেন, রেকর্ড গড়া হয় ভাঙার জন্য়ই। কেউ না কেউ কোনও দিন তাঁর রেকর্ড ভাঙবেনই। তবে, কোনও ভারতীয় তাঁর রেকর্ড ভাঙলে সবচেয়ে বেশি খুশি হবেন শচীন।

তবে, বিরাট বলছেন শচীনকে ছোঁয়া বা তাঁকে অতিক্রম করতে গেলে অনেক প্রচেষ্টা লাগবে। আর সে কাজটা খুব সহজ নয়। কোহলির কথায়, গ্রেট তেন্ডুলকর এখনও অনেক এগিয়ে। আর ওই নজির ছুঁতে আমাকে এখনও অনেক পরিশ্রম করতে হবে। আর আমি তা নিয়ে ভাবছিও না। দলের জয়ের জন্য় যে রানটা দরকার, সেটা আমার ব্য়াটে এলেই আমি খুশি। তা নব্বই রান হলেও।

অস্ট্রেলিয়ার কিংবদন্তি অধিনায়ককে স্পর্শ করা প্রসঙ্গে রবিবার ম্য়াচের পর সাংবাদিক সম্মেলনে কোহলি বলেন, রিকি পন্টিংয়ের মতো একজনের নজির স্পর্শ করা আমার কাছে অনেক বড় ব্য়াপার। কেউ ক্রিকেট খেলা শুরু করার সময় নজির নিয়ে ভাবে না। ব্য়াটসম্য়ান হিসেবে রিকি গ্রেট। আমরা ওকে শ্রদ্ধা করি।

এবছর কোহলি এক ক্য়ালেন্ডার বর্ষে একহাজার রান ছাড়িয়ে গেছেন। যদিও দলের জয়ের আগে ব্য়ক্তিগত নজিরকে পাত্তা দিতে নারাজ ভারত অধিনায়ক। বললেন, আমি দলের জন্য় কতটা অবদান রাখতে পারছি, সেই ভেবে খেলি। এসব তো হতেই থাকে। কেউ বছরের শুরুতে টার্গট সেট করে নামে না। তবে, এগুলিকে এড়ানোও যায় না। কারণ, পরিসংখ্য়ানের নজির গড়লে, তা আলোচনাতে এসেই যাবে।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *