পান্ডিয়াকে এই কিংবদন্তি ভারতীয় খেলোয়াড়ের সাথে তুলনা করলেন 1

পান্ডিয়াকে এই কিংবদন্তি ভারতীয় খেলোয়াড়ের সাথে তুলনা করলেন 2

গতকালের ধাওয়ান ধামাকার পর আজ হার্দিক বিস্ফোরণ ঘটল পাল্লেকেল্লে টেস্টে। ক্যারিয়ারের প্রথম আন্তর্জাতিক সেঞ্চুরির স্বাদ গ্রহণ করলেন হার্দিক পান্ডিয়া। মাত্র ৮৬ বলে নিজের শতরান পূরণ করেন। তাঁর ইনিংসটি সাতটি করে বাউন্ডারি এবং ওভার বাউন্ডারিতে সাজানো ছিল। আর এই অনবদ্য ইনিংসে মুগ্ধ হয়েছেন ভারতীয় প্রধান নির্বাচক এমএসকে প্রসাদ, ২৪ বছরের ব্যাটসম্যানকে প্রশংসায় সিক্ত করলেন তিনি। তার এই ঝড় শতক শ্রীলঙ্কান বোলাদের আধিপত্য নষ্ট করে ভারতকে ই চালকের আসনে বসায়। তার এই ব্যাটিং যেমন তাকে অনেকগুলো রেকর্ডের অংশ করেছে তেমনি তার এই ইনিংস নিয়ে সারাদিন ক্রিকেট মহলে চলছে আলোচনা।

কিছুদিন আগে পর্যন্তও পান্ডিয়াকে টি-২০ বিশেষজ্ঞ মনে করা হত। শ্রীলঙ্কার বিরুদ্ধে এই সিরিজেই তাঁর টেস্টে অভিষেক হয়েছে। আর আজকের শতক তাকে নিয়ে গেল অন্য উচ্চতায়,তাকে তুলনা করা হল কপিল দেবের সাথে। প্রবাদপ্রতিম অলরাউন্ডার কপিল দেবের মতোই দীর্ঘদিন ধরে ভারতের হয়ে অসাধারণ পারফরম্যান্স দেখানোর ক্ষমতা আছে হার্দিক পান্ডিয়ার। এমনই মন্তব্য করলেন দল নির্বাচন কমিটির চেয়ারম্যান এমএসকে প্রসাদ। এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘আমরা অলরাউন্ডার খুঁজছিলাম। হার্দিককে পেয়ে আমরা খুশি। আমি নিশ্চিত, মাটিতে পা রেখে চললে ভবিষ্যতে ওর সঙ্গে কপিল দেবের তুলনা করা হবে। হার্দিক ইতিমধ্যেই একদিনের ও টি-২০ দলে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করেছে। টেস্টে সুযোগ পেয়েই নিজেকে মেলে ধরেছে। ও টেস্ট দলেও নিজের জায়গা পাকা করে নেবে বলেই আমার বিশ্বাস।’ তবে নির্বাচকমণ্ডলীর চেয়ারম্যান এমএসকে প্রসাদ তবে তাঁর মতে, ‘কপিল হতে গেলে মাটিতে পা রেখে চলতে হবে পান্ডিয়াকে’। ভারতের প্রধান নির্বাচকের মতে, পান্ডিয়া অ্যাথলেটিক, চনমনে এবং তাঁর ব্যাটিং, বোলিং ও ফিল্ডিং তিনটেই ভাল। এটাই তাঁকে অন্যদের চেয়ে আলাদা করে দিয়েছে। ক্রিকেটের তিন বিভাগের যেটাই করেন, সেটাতেই সফল হন পান্ডিয়া।

এক ইনিংসে পান্ডিয়া ঝড় তুলেছেন রেকর্ড বইয়ের পাতায়ও, একটি রেকর্ডে পন্ডিয়াই ভারতের প্রথম। ১ রান নিয়ে শুরু করেছিলেন দিন, লাঞ্চে যান ১০৮ রান নিয়ে। এক সেশনেই একশ রানের বেশি। অবিশ্বাস্য হলেও সত্যি, যে কোনো দিন মিলিয়েই লাঞ্চের আগের সেশনে শতরান ভারতের টেস্ট ইতিহাসে এটিই প্রথম! সব দেশ মিলিয়ে প্রথম দিন লাঞ্চের আগে সেঞ্চুরি আছে মাত্র ছয়টি। আর সব দিন মিলিয়ে লাঞ্চের আগের সেশনে সেঞ্চুরিতে পান্ডিয়া অষ্টাদশ। একটিতে ভারতের প্রথম, আরেকটি রেকর্ডে পান্ডিয়া ভারতের সবার ওপরে। সেঞ্চুরির পথে লঙ্কান বাঁহাতি স্পিনার মালিন্দা পুস্পকুমারার এক ওভারে নিয়েছেন ২৬ রান। ভারতের হয়ে এক ওভারে সবচেয়ে বেশি রানের রেকর্ড এটিই। টানা তিন বলে ছক্কায় ভারতের হয়ে তৃতীয় পান্ডিয়া। এর আগে টানা চার বলে মেরেছিলেন কপিল দেব, তিন বলে মহেন্দ্র সিং ধোনি। ৮৬ বলে সেঞ্চুরি স্পর্শ করেছেন পান্ডিয়া, ভারতের হয়ে যা দেশের বাইরে দ্বিতীয় দ্রুততম সেঞ্চুরি। ২০০৬ সালে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে সেন্ট লুসিয়ায় ৭৮ বলে সেঞ্চুরি করেছিলেন বিরেন্দর শেবাগ। তৃতীয় টেস্ট খেলতে নামা পান্ডিয়ার এট শুধু প্রথম টেস্ট সেঞ্চুরিই নয়, প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটেও প্রথম সেঞ্চুরি। টেস্ট ম্যাচেই প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে প্রথম সেঞ্চুরি করা পঞ্চম ভারতীয় পান্ডিয়া। আগে করেছেন বিজয় মাঞ্জরেকার।

১৯৯৪ সালে, ভারতের বিশ্বকাপ জয়ের নায়ক কপিল দেব অবসরে যাওয়ার পর হতে আজ পর্যন্ত ভারত আর পেস বোলিং অলরাউন্ডার হিসেবে কাউকে খুজে পায় নি। মাঝে ইফরান পাঠান ও স্টুয়ার্ড বেনী কে ভাবা হয়েছিল কপিল দেবের উত্তরসূরি, কিন্তু তারা কাঙ্খিত সাফল্য পান নি। এবার অপেক্ষার পালা হার্দিক পান্ডিয়া কি হতে পারবেন ভারতের পরবর্তী কপিল দেব।

 

Nazmus Sajid

Sports Fanatic!

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *