PAKvsSA: ম্যাচে হল মোট ৮টি বড়ো রেকর্ড, ইমরান তাহির আর হ্যারিস সোহেলের বিশেষ কৃতিত্ব 1

একদিনের বিশ্বকাপে আজ পাকিস্তান আর দক্ষিণ আফ্রিকার দলের মধ্যে ২৯তম ম্যাচ খেলা হয়েছে। যেখানে পাকিস্তান প্রথমে ব্যাট করে স্কোর বোর্ডে ৩০৮/৭ এর ভাল স্কোর তোলে। দলের হয়ে হ্যারিস সোশেল সবচেয়ে বেশি ৮৯ রান করতে সফল হন। অন্যদিকে দক্ষিণ আফ্রিকা দলের হয়ে লুঙ্গি এনগিডি সর্বাধিক তিন উইকেট নিয়ে সফল হন। দক্ষিণ আফ্রিকা দলের সামনে ম্যাচ জেতার জন্য ৩০৯ রানের লক্ষ ছিল। কিন্তু দলের ব্যাটিং যথেষ্ট খারাপ হয় আর দল মাত্র ২৫৯/৯ রানই করতে পারে। পাকিস্তান এই ম্যাচ ৪৯ রানে জিতে নেয়।

আসুন এক নজর দেখে নেওয়া যাক এই ম্যাচে হওয়া কিছু গুরুত্বপূর্ণ রেকর্ডস:

PAKvsSA: ম্যাচে হল মোট ৮টি বড়ো রেকর্ড, ইমরান তাহির আর হ্যারিস সোহেলের বিশেষ কৃতিত্ব 2

 

১. দক্ষিণ আফ্রিকার হয়ে একদিনের বিশ্বকাপে ইমরান তাহির সবচেয়ে বেশি উইকেট নেওয়া বোলার হন। এই বিষয়ে ইমরান তাহির (৩৯) প্রাক্তন তারকা জোরে বোলার অ্যালান ডোনাল্ডের (৩৮) রেকর্ড ভাঙেন।

 

দক্ষিণ আফ্রিকার হয়ে একদিনের বিশ্বকাপে সবচেয়ে বেশি উইকেট নেওয়া বোলার:

 bowler  Match   wicket 
Imran Tahir  20 39
Ellen Donald  25 38
Shaun Pollack  31 31
Morne Morkel  14 26
Dale Steyn  14 23

 

২. পাকিস্তানের হ্যারিস সোহেল এই ম্যাচে ৮৯ রান করেন। দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে এটা তার প্রথম ওয়ানডে ম্যাচ ছিল আর তাতেই তিনি হাফসেঞ্চুরি করলেন।

৩. হ্যারিস সোহেল এই ম্যাচে ১৫০.৮৫ স্ট্রাইকরেটে রান করেন। বিশ্বকাপের ম্যাচে কোনো এক ইনিংসে ৫০+ স্কোর করার সঙ্গে যে কোনো পাকিস্তানী ব্যাটসম্যানের এটি তৃতীয় সবচেয়ে ভাল স্ট্রাইকরেট ছিল। হ্যারিস সোহেলের আগে ইমরান খান (৩৩ বলে ৫৬* বনাম শ্রীলঙ্কা, স্ট্রাইকরেট ১৬৯.৬৯) আর ইঞ্জামাম উল হক (৩৭ বলে ৬০ রান বনাম নিউজিল্যাণ্ড, স্ট্রাইকরেট ১৬২.১৬) রয়েছেন।

PAKvsSA: ম্যাচে হল মোট ৮টি বড়ো রেকর্ড, ইমরান তাহির আর হ্যারিস সোহেলের বিশেষ কৃতিত্ব 3

৪. এই ম্যাচে পাকিস্তানের দুই ওপেনার ফখর জামান আর ইমাম উল হক ৪৪ রান করেন। বিশ্বকাপে কোনো এক ম্যাচে এটা মাত্র দ্বিতীয়বার ছিল, যখন কোনো একটি দলের ওপেনার সমান স্কোর করেছেন। এই জুটির আগে ২০০৩ এ নামিবিয়ার ওপেনিং ব্যাটসম্যান জেবি বার্গর, আর মোর্নে কার্গ কেনিয়ার বিরুদ্ধে ৪১ রান করে করেছিলেন।

 

৫. হ্যারসি সোহেল মাত্র ৩৮ বলে নিজের হাফসেঞ্চুরি পূর্ণ করেন। এই বিশ্বকাপে যে কোনো পাকিস্তানী খেলোয়াড়ের এটি সবচেয়ে দ্রুতগতির হাফসেঞ্চুরি ছিল। গত রেকর্ড ছিল মহম্মদ হাফিজের যিনি ইংল্যাণ্ডের বিরুদ্ধে ৩৯ বলে হাফসেঞ্চুরি করেছিলেন।

 

৬. শাদাব খান একদিনের ক্রিকেটে নিজের ৫০তম উইকেট পূর্ণ করলেন। ওয়ানডেতে পাকিস্তানের হয়ে এই বিশেষ কৃতিত্ব হাসিল করা তিনি ৩১তম খেলোয়াড়।

PAKvsSA: ম্যাচে হল মোট ৮টি বড়ো রেকর্ড, ইমরান তাহির আর হ্যারিস সোহেলের বিশেষ কৃতিত্ব 4

 

৭. শাদাব খান এই ম্যাচে ৫০ রানে ৩ উইকেট নেন। দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে এটি তার সর্বশ্রেষ্ঠ প্রদর্শন। তার গত সর্বোচ্চ প্রদর্শন ছিল ২/৪২।

 

৮. দক্ষিণ আফ্রিকার জোরে বোলার এণ্ডিলে ফেকলুকওয়াওয়ের এটি ৫০তম ওয়ানডে ম্যাচ ছিল। দক্ষিণ আফ্রিকার হয়ে ৫০টি একদিনের ম্যাচ খেলা তিনি ৪৪তম খেলোয়াড় হলেন।

suvendu debnath

কবি, সাংবাদিক এবং গদ্যকার। শচীন তেন্ডুলকর, ব্রায়ান লারার অন্ধ ভক্ত। ক্রিকেটের...

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *