কি এমন বললেন যে বিরাটকে নিয়ে পাক ক্রিকেট লেজেন্ডরাও উচ্ছ্বসিত! 1

অগণিত ক্রিকেটপ্রেমীর কাছে ভারত অধিনায়ক নয়নের মণি। আবার অনেকের কাছে বিরাট তাঁর একগুঁয়েমি মনোভাবের জন্য় সুপার ভিলেন। তবে, ক্রিকেট মাঠের বাইরে নিজের ইমেজকে কি করে বেচতে হয়, তা অনেকের চাইতে বেশি ভালো বোঝেন তিনি। সেই সঙ্গে অন্য়ের মন কি করে জিতে নিতে হয়, সেটাও ভালোরকম রপ্ত করেছেন ভারত অধিনায়ক। সে তাঁর আচরণ মাঝেমধ্য়ে যতই বিতর্কিত হোক না কেন। টিচার্স ডে। মানে শিক্ষক দিবস। আমাদের দেশেও এই দিনটি বিশেষ গুরুত্ব দিয়ে পালন করা হয়। ছোটোবেলা থেকেই আমাদের শেখানে হয় যে ইশ্বর মানো কি না মানো, সেটা ব্য়ক্তিগত ব্য়াপার। কিন্তু, শ্রদ্ধার তালিকায় বাবা-মায়ের পরের স্থানটি অবশ্য়ই গুরুর। আর গুরু মানেই শিক্ষক। জীবনের প্রতিটা স্তরে আমরা অনেক শিক্ষকের সানিধ্য় পাই। তার মধ্য়ে কয়েকজন আমাদের জীবনে বিশেষ ছাপ রেখে যান। বড় হওয়ার পর কর্মজীবনেও আমরা তাঁদেরকে ধন্য়বাদ জানাই। কারণ, যা কিছু আমরা অর্জন করেছি বা করব, তা তাঁদের দেওয়া ওই শিক্ষার কারণেই। শিক্ষক দিবস আমাদের সেই প্রিয় শিক্ষকদের কৃতজ্ঞতা জানানোর অবকাশ।

টিচার্স ডে উপলক্ষে বিরাট একটি স্পেশাল ট্য়ুইট করেছিলেন। তাতে তিনি তাঁর জীবনের সকল শিক্ষককে অভিনন্দন জানিয়েছেন। ট্য়ুইটে যে ছবিটি আপলোড করেছেন ভারত অধিনায়ক, সেখানে দেখা যাচ্ছে যে তিনি মেঝেতে বসে আছেন। আর তার পেছনে যে দেওয়ালটি রয়েছে, সেখানে ক্রিকেট বিশ্বের বড় বড় ক্রিকেটারদের নাম লেখা। ওই ছবির মাধ্য়মে বিরাট সেই সব কিংবদন্তি ক্রিকেটারদের অভিনন্দন ও কৃতজ্ঞতা জানাতে চেয়েছেন, যাঁদের দেখে বিরাট ক্রিকেট খেলাটাকে নিজের পেশা হিসেবে বেছে নিয়েছেন। আর তাঁর ট্য়ুইটে বিরাট লিখেছেন, সারা দুনিয়া জুড়ে যে সমস্ত শিক্ষকরা রয়েছেন, বিশেষ করে ক্রিকেট বিশ্বের শিক্ষকদের, হ্য়াপি টিচার্স ডে।

৫ সেপ্টেম্বর শিক্ষক দিবস উপলক্ষ্য়ে করা ওই ট্য়ুইটে কোহলি ক্রিকেট দুনিয়ার যেসব কিংবদন্তি ব্যক্তিদের থেকে উৎসাহ পেয়েছেন বলে জানিয়েছেন, সেখানে কোনওরকম রাজনৈতিক বা আন্তর্জাতিক সীমা মানা হয়নি। সেখানে ভারতের কপিলদেব নিখাঞ্জ, বীরেন্দ্র সেহওয়াগ, সৌরভ গাঙ্গুলি, শচীন তেন্ডুলকরের সঙ্গে নানা দেশের বিখ্যাত ক্রিকেটারদের নামও রয়েছে। পাকিস্তানের ক্রিকেটে লেজেন্ড জাভেদ মিয়াঁদাদ, ইমরান খান, ওয়েস্ট ইন্ডিজের ব্রায়ান লারা, অস্ট্রেলিয়ার গ্লেন ম্যাকগ্রা, শেন ওয়ার্নের নামও রাখা হয়েছে দক্ষিণ আফ্রিকার শন পোলক ও জ্য়াক কালিসের সঙ্গে।

ভারত অধিনায়কের এই ট্য়ুইট দেখার পর বেজায় খুশি পাকিস্তানের ক্রিকেট মহল। আর যে পাক ক্রিকেটারদের অভিনন্দন জানিয়েছেন তিনি, তাঁরাও কোহলির থেকে এই সম্মান পেয়ে বেশ উচ্ছ্বসিত। তাঁরা বলছেন, ক্রিকেট কোনওরকম জাতি, ধর্ম, সম্প্রদায়, সীমান্তের কাঁটাতার মানে না। ক্রিকেট মানুষের মধ্য়ে বিভেদ ভুলিয়ে সৌহার্দ্র ছড়ায়। বিরাট যে কত বড়মাপের মানুষ, তা তাঁর করা ওই ট্য়ুইটেই বোঝা যাচ্ছে।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *