দেখে নিন আইপিএলের ইতিহাসের সবচেয়ে অদ্ভূত আউট, পায়ে লেগে হয়েছিল ক্যাচ

গত মঙ্গলবার কলকাতা নাইট রাইডার্স বনাম রাজস্থান রয়্যালসের বিরুদ্ধে ম্যাচ জিতে নেয় নাইটরা। এই জয়ের সঙ্গে সঙ্গেই পয়েন্ট টেবিলে তৃতীয় স্থানে পৌঁছে গিয়েছে কলকাতা। কিন্তু এই ম্যাচে একটি অদ্ভূত আউট দেখা গিয়েছে যা সকলকেই আশ্চর্য চকিত করে দিয়েছে। এবং এই আউট আইপিএলের ইতিহাসে জায়গা করে নিয়েছে। আসলে মাঠে ব্যাটিং করছিলেন রাজস্থানের জয়দেব উনাকট এবং ইশা সোধি। কলকাতার বোলার প্রসিধ কৃষ্ণা ইয়র্কার করেন, এবং বল ব্যাটে লাগার পর পায়ে লেগে উইকেটের পেছেন চলে যায়, এবং কলকাতার অধিনায়ক দীনেশ কার্তিক ক্যাচ লুফে নেন, সেই সঙ্গে আউট দিয়ে দেন অ্যাম্পায়ার। এটা শুনেই আপনি ধাক্কা খেতে পারেন যা স্বাভাবিক। তাহলে আসুন আপনাদের দেখানো যাক আইপিএলের সবচেয়ে অদ্ভূত আউট যা আপনাকে অবাক করে দিতে পারে।
দেখে নিন আইপিএলের ইতিহাসের সবচেয়ে অদ্ভূত আউট, পায়ে লেগে হয়েছিল ক্যাচ 1

ইডেনে খেলা এই ম্যাচটি কলকাতা নাইট রাইডার্স সাত উইকেটে নিজেদের নামে করে নেয়। এই জয়ের মাঝেই একটি অদ্ভূত দৃশ্য দেখা যায় যা আইপিএলের ইতিহাসে জায়গা করে নিয়েছে। এই ভিডিয়োটি সেই সময়ের যখন রাজস্থান রয়্যালসের ব্যাটসম্যান ইশ সোধি এবং জয়দেব উনাকট ক্রিজে ছিলেন। বল করছিলেন কলকাতা নাইট রাইডার্সের বোলার প্রসিধ কৃষ্ণা, তিনি ইয়র্কার করে ইশ সোধিকে নিশানা করার চেষ্টা করেন এবং সফল হন।

যদিও এই উইকেটটি আম্পায়ারের একটি বড় ভুলের কারণে ছিল। যা আপনি উপরে দেওয়া ভিডিয়োতে পরিস্কার দেখতে পারেন। যদি আপনি ম্যাচ দেখে থাকেন তাহলে আপনার এই চমকে দেওয়ার মত দৃশ্য স্মরণে থাকবে। এবং আম্পায়ারের এই বড় ভুলেরও অনুভব হয়ে থাকবে। এই অদ্ভূত আউট আপনাকে ভাবতে বাধ্য করবে যে শেষ পর্যন্ত আম্পায়ার কোথায় আনমনা ছিলেন যে নট আউটকে আউট দিয়ে দেন। এটা এই মরশুমের সবচেয়ে অদ্ভূত আউট। যা দেখে সকলেও অবাক হয়েছেন, কিন্তু হলে কি হবে যখন আম্পায়ারই নট আউটকে আউট দিয়ে দিয়েছে। এই ভিডিয়োয় আপনি পরিস্কার দেখতে পারেন বল ব্যাটে লাগার পর পায়ে লেগে উইকেটকীপারের কাছে যায় এবং দীনেশ কার্তিক ক্যাচ নেন। যদিও এই ব্যাপারে এখনও কেউ লক্ষ্য করে নি আর না কোনও অ্যাকশন নেওয়া হয়েছে।
দেখে নিন আইপিএলের ইতিহাসের সবচেয়ে অদ্ভূত আউট, পায়ে লেগে হয়েছিল ক্যাচ 2

suvendu debnath

কবি, সাংবাদিক এবং গদ্যকার। শচীন তেন্ডুলকর, ব্রায়ান লারার অন্ধ ভক্ত। ক্রিকেটের...

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *