ঐতিহাসিক জয়ের পর শাকিব বা মুস্তাফিজুর নয় বরং মোর্তাজা দিলেন এই খেলোয়াড়কে শ্রেয়

ওয়ানডে বিশ্বকাপে গতকাল রবিবার ২ জুন, দক্ষিণ আফ্রিকা আর বাংলাদেশের মধ্যে খেলা হয়েছে। টুর্নামেন্টের এই পঞ্চম ম্যাচ কেনিংটন ওভালের মাঠে খেলা হয়েছে। দক্ষিণ আফ্রিকার দল এই বিশ্বকাপে দ্বিতীয় এবং বাংলাদেশ তাদের প্রথম ম্যাচ খেলল।

বাংলাদেশের সামনে আফ্রিকা ব্যর্থ

ঐতিহাসিক জয়ের পর শাকিব বা মুস্তাফিজুর নয় বরং মোর্তাজা দিলেন এই খেলোয়াড়কে শ্রেয় 1

এই ম্যাচের টস দক্ষিণ আফ্রিকার অধিনায়ক ফাফ দু’প্লেসি জেতেন আর তিনি বাংলাদেশকে এই ম্যাচে প্রথম ব্যাট করার জন্য আমন্ত্রণ জানান। বাংলাদেশে প্রথম ব্যাটিংয়ের ভরপুর ফায়দা তোলে আর নিজেদের ৫০ ওভারে ৩৩০/৬ রানের স্কোর করে। দলের হয়ে মুশফিকুর রহিম সবচেয়ে বেশি ৭৮ রান করেন অন্যদিকে দক্ষিণ আফ্রিকার হয়ে এণ্ডিলে ফেহলুকওয়াও সবচেয়ে বেশি ২টি উইকেট নিয়েছেন।
দক্ষিণ আফ্রিকার দলের সামনে ম্যাচ জেতার জন্য পাহাড়ের মত৩৩১ রানের লক্ষ্য ছিল। এবং লক্ষ্য সত্যিই সহজ ছিলনা। দক্ষিণ আফ্রিকার দলে এই লক্ষ্যের জবাবে আট উইকেটে ৩০৯ রানই করতে পারে আর এই ম্যাচ ২১ রানের ব্যবধানে হেরে যায়। বাংলাদেশের এটি দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে স্মরণীয় জয়। দক্ষিণ আফ্রিকার হয়ে সবচেয়ে বেশি ৬২ রান অধিনায়ক ফাফ দু’প্লেসি করেন, অন্যদিকে বাংলাদেশের হয়ে সবচেয়ে বেশি ৩ উইকেট জোরে বোলার মুস্তাফিজুর রহিম নিতে সফল হন।

ম্যাচের পর সামনে এল মুর্তজার বয়ান

ঐতিহাসিক জয়ের পর শাকিব বা মুস্তাফিজুর নয় বরং মোর্তাজা দিলেন এই খেলোয়াড়কে শ্রেয় 2

দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে ঐতিহাসিক জয়ের পর বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের অধিনায়ক মাশরফি মোর্তজা পোষ্ট ম্যাচ সেরিমনিতে বলেন,

“প্রথম ম্যাচ জেতা সত্যিই ভাল। অ্যায়ারল্যাণ্ডের বিরুদ্ধে আমরা জিতেছিলাম আর সেটার এখানে সাহায্য পাওয়া গিয়েছে। টসের পর আমার এমন মনে হচ্ছিল যে জানিনাযে আমরা প্রথম ব্যাটিং করতে পারব কি না।কিন্তু উইকেট যথেষ্ট ভাল ছিল আর ব্যাটসম্যানরা সত্যিই ভাল প্রদর্শন করেছে। বিশেষ করে সৌম্য সরকার যিনি আমাদের দুর্দান্ত শুরু এনে দিয়েছে। মুশফিকুর আর শাকিবও ভাল ব্যাটিং করেছে আর শেষে মহমুদুল্লাহও ভাল ফিনিশ করেছে। ব্যাটিংয়ের সমস্ত শ্রেয় সৌম্য সরকারকে দেব, যে আমাদের একটা প্ল্যাটফর্ম দিয়েছে”।

বোলারদেরও করলেন প্রশংসা

ঐতিহাসিক জয়ের পর শাকিব বা মুস্তাফিজুর নয় বরং মোর্তাজা দিলেন এই খেলোয়াড়কে শ্রেয় 3

অধিনায়ক মাশরফি মোর্তাজা আগে নিজের বয়ানে বলেন,

“আমি জানতাম এটা ব্যাটিংয়ের জন্য ভাল উইকেট, আর আমাদের বোলারাও এখানে উইকেট নিতে পারে। আমি লাগাতার বোলারদের পরিবর্তন করছিলাম আর আমরা লাগাতার সফলতা পাচ্ছিলাম। স্পিন বোলাররা দুর্দান্ত কাজ করেছে আর সেই সঙ্গে মুস্তাফিজুর আর সৈইফউদ্দিনও অসাধারণ বোলিং করেছে। আজ সত্যিই একটা বড় মানুষ আমাদের সাপোর্ট করতে এসেছিল আর আশা করছি যে আগামি ম্যাচগুলিতেও এমনটাই দেখতে পাওয়া যাবে। আগামি ম্যাচগুলিতেও আমরা এমনটাই প্রদর্শনের পুনরাবৃত্তি করতে চাইব, আজ আমাদের যে সমর্থকরা আমাদের এখানে খেলতে দেখছেন তারাও এটা হয়ত চেয়েছে যে আমরা জিতি আর আমরাও এমনটাই করেছি”।

suvendu debnath

কবি, সাংবাদিক এবং গদ্যকার। শচীন তেন্ডুলকর, ব্রায়ান লারার অন্ধ ভক্ত। ক্রিকেটের...

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *