KXIPvsDC: রবিচন্দ্রন অশ্বিন এই দুই খেলোয়াড়কে দিলেন জয়ের পুরো শ্রেয়

কিংস ইলেভেন পাঞ্জাবের দল এক রোমাঞ্চকর ম্যাচে সোমবার রাতে দিল্লি ক্যাপিটালসকে ১৪ রানের ব্যবধানে হারিয়ে দিয়েছে। দলের এইজয়ে অধিনায়ক রবিচন্দ্রন অশ্বিনকে যথেষ্ট খুশি দেখিয়েছে। তিনি জোরে বোলার মহম্মদ শামি আর স্যাম ক্যুরেনকে জয়ের শ্রেয় দিয়েছেন। সেই সঙ্গে তিনি মনে করেছেন যে তাদের ব্যাটসম্যানদের আরো প্রায় ২৫ রান করা উচিৎ ছিল আর সেই সঙ্গে তিনি বলেন যে তিনি তার দলের সমস্ত খেলোয়াড়দের তরতাজা রাখতে চান।

শামি আর স্যাম ক্যুরেনকে দেব জয়ের শ্রেয়

KXIPvsDC: রবিচন্দ্রন অশ্বিন এই দুই খেলোয়াড়কে দিলেন জয়ের পুরো শ্রেয় 1

মহম্মদ শামিয়ার স্যাম ক্যুরেনকে জয়ের শ্রেয় দিয়ে কিংস ইলেভেন পাঞ্জাবের অধিনায়ক রবিচন্দ্রন অশ্বিন নিজের প্রেস কনফারেন্সে বলেন,

“আপনি এই লক্ষ্যকে খুব বেশিবার বাঁচাতে পারবেন না, কিন্তু আজ আমরা এই লক্ষ্যকে বাঁচিয়েছি, এই জন্য আমরা যথেষ্ট খুশি। যখন ঋষভ পন্থ ছক্কা মারল, তো আমার মনে হয়েছিল যে ম্যাচ আমাদের কব্জা থেকে দূরে চলে গেল, এই জন্য এই জয়ের শ্রেয় শামি আর স্যাম ক্যুরেনকে দেব, ওই দুই খেলোয়াড়ের সৌজন্যেই আমরা এই ম্যাচে জয় হাসিল করেছি আর ম্যাচ জিততে সফল হয়েছি”।

তাও বলব ২৫ রান কম করেছি

KXIPvsDC: রবিচন্দ্রন অশ্বিন এই দুই খেলোয়াড়কে দিলেন জয়ের পুরো শ্রেয় 2

রবিচন্দ্রন অশ্বিন আগে নিজের বয়ানে দলের ব্যাটসম্যানদের নিয়ে বলেন,

“যদিও আমার তাও মনে হয় যে আমরা ২৫ রান করেছিলাম, কারণ ম্যাচ চলাকালীন শিশিরও একটা ফ্যাকটর ছিল। আমরা আজ নিজেদের স্পিনারদের সমর্থন করেছি আর এই কারণে তিন স্পিনারের সঙ্গে আজ আমরা মাঠে নেমেছিলাম। আমরা প্রথমে ব্যাট করাই পছন্দ করতাম, কারণ আমাদের কাছে তিন স্পিনার ছিল।”

সমস্ত খেলোয়াড়দের তরতাজা রাখতে চাই

KXIPvsDC: রবিচন্দ্রন অশ্বিন এই দুই খেলোয়াড়কে দিলেন জয়ের পুরো শ্রেয় 3

অশ্বিন নিজের বয়ানে আরো বলেন,

“ক্রিস গেইল আজ আমাদের দলে ছিলেন না,এই কারণে আমরা স্যাম ক্যুরেনকে লাইসেন্সের সঙ্গে সুযোগ দিয়েছি। আমাদের কাছে অনেক তরুণ আর অভিজ্ঞ খেলোয়াড় রয়েছে। আমরা সকলকেই এইভাবে সুযোগ দিতে চাই আর সকলকেই তরতাজা রাখতে চাই”।

মোহালিতে এর আগে কখনো দেখিনি এত ভীড়

KXIPvsDC: রবিচন্দ্রন অশ্বিন এই দুই খেলোয়াড়কে দিলেন জয়ের পুরো শ্রেয় 4

স্টেডিয়ামে ম্যাচ দেখতে আসা দর্শকদের নিয়ে রবিচন্দ্রন অশ্বিন বলেন,

“আমি স্টেডিয়ামে আসা দর্শকদের ভীড়ে যথেষ্ট খুশি, কারণ আমি মোহালিতে এই ধরণের ভীড় আগে কখনো দেখিনি”।

Leave a comment

Your email address will not be published.