কোহলী নয় গম্ভীরের কাছে সেরা অন্য এই ক্রিকেটার 1

কোহলী নয় গম্ভীরের কাছে সেরা অন্য এই ক্রিকেটার 2

২৯ বছর বয়স্ক চেতেশ্বর পূজারা ২০১০ সালে ব্যাঙ্গালুরে অস্ট্রেলিয়া বিরুদ্ধে অভিষেক হওয়ার পর ৫০ টি টেস্টে ভারতের হয়ে মাঠে নামার সুযোগ পেয়েছেন। কিন্তু এই ৫০ টি টেস্টে নিজের জাত চিনিয়েছেন গুজরাটে জন্মা নেওয়া এই ব্যাটসম্যান। ৫০ টেস্টে রান করেছেন ৪০৯৪, যার ব্যাটিং গড় ৫৩.৮৭, এর মাঝে হাকিয়েছেন ১৩ টি শতক আর ১৫ টি অর্ধ শতক। সর্বোচ্চ ইনিংসও ২০৬ রানের। নিখুঁত ব্যাটিং এর জন্য দলে তাঁকে অনেকেই ইতিমধ্যে মিস্টার ডিপেন্ডেবল বলে ডাকেন। রাহুল দ্রাবিড়ের ছেড়ে যাওয়া জায়গায় একেবারে ফিট করে গেছেন চেতেশ্বর পূজারা। ভারতের অধিনায়ক বিরাট কোহলিও তাঁর এই সৈনিকের প্রশংসায় পঞ্চমুখ।

অথচ এই তো দু’বছর আগে পর্যন্ত পূজারার ক্রিকেট জীবনে নানা বাধা এসেছে। বিশেষ করে তাঁর হাঁটুর চোট তাঁকে যথেষ্ট সমস্যায় ফেলেছিল। সেই সময়ের কথা মনে করে পূজারা বলেন, ‘‘চোট নিয়ে মাঠের বাইরে বসে থাকা আমার জীবনের সবচেয়ে কঠিন সময় ছিল। হাঁটুর চোটের জন্য ছ’মাস ক্রিকেটের বাইরে থাকতে হয়েছিল। ২০১১-য় ফের ছ’মাসের জন্য মাঠের বাইরে থাকতে হয়েছিল আমাকে। প্রায় এক বছর আমি খেলতেই পারিনি। এই সময়টা আমার খুবই খারাপ গিয়েছে। তবে এটাই ভাল যে এখন খারাপ সময়টা কাটিয়ে আসতে পেরেছি।’’ যেই শ্রীলঙ্কার বিরুদ্ধে পুরো করলেন ৫০ তম টেস্টে মাইল ফলক, সেই শ্রীলঙ্কাতেই সেঞ্চুরি করে তাঁর প্রত্যাবর্তন। তাই শ্রীলঙ্কা তাঁর ক্রিকেট জীবনে বেশ গুরুত্বপূর্ণ। সে কথা স্বীকারও করেন তিনি। বলেন, ‘‘২০১৫-য় এখানে সেঞ্চুরি (১৪৫) করে যখন ফিরে আসি, সবকিছু যেন পাল্টে যায়। রাহুল দ্রাবিড়ের সাহায্যের কথাও বলেন তিনি। বলেন, ‘‘রাহুল ভাই আমাকে বলেছিলেন, আমার টেকনিকে কোনও গলদ নেই। যে ভাবে খেলছ, খেলে যাও। রাহুল ভাইয়ের পরামর্শেই অনেক পরিশ্রম করি। নিজের উপর বিশ্বাসও ছিল। এ ভাবেই ফিরে আসি আমি।’’ কোহলী ও দ্রাবিড়ের পর এবার তাঁর ভূয়সী প্রশংসা করলেন গৌতম গম্ভীরও। কিন্তু কলকাতা নাইট রাইডার্সে দলপতির প্রশংসায় নাড়া দিল বির্তকও। গম্ভীর ও কোহলী দুজন ই দিল্লির ক্রিকেটার। কিন্তু নিজের জুনিয়রকে গম্ভীর নাকি খুব একটা পছন্দ করেন না বলে ক্রিকেট মহলে জনশ্রুতি রয়েছে। তাই পুজারা কে নিয়ে গম্ভীরের এই মন্তব্য আরও একবার সেই বিতর্কই উসকে দিলেন তিনি নিজে ই। তিনি বলেছেন, “আমরা এখন টেস্ট ক্রিকেটকে বেশি গুরুত্ব দিই না। সকলেই একদিনের ক্রিকেট এবং টি-টোয়েন্টি নিয়ে মাতামাতি করেন। কিন্তু সাদা বলের খেলাই আসল। আর সেটা হিসেবে দেখলে পূজারা সেরা, বিরাট ও শিখরের চেয়ে অনেক বেশি ধারাবাহিক।”

এদিকে হার্দিক পান্ডিয়া কে নিয়ে যখন কোহলী প্রশংসা করছেন তখন গম্ভীর বলছেন ভিন্ন কথা। তিনি বলেন বর্তমানে বিশ্বে যে সকল সেরা অলরাউন্ডাররা খেলেন তাদের যে মানের ব্যাটিং দক্ষতা রয়েছে হার্দিক পান্ডিয়া সে মানে যেতে তার আরো অনেক কাজ করতে হবে। গম্ভীর মনে করেন পান্ডিয়া যেভাবে ব্যাটিং করছেন সেভাবে হতে পারে না। সে সব সময় একই ভাবে খেলে, তার ব্যাটিং কৌশলে কোন ভিন্নতা নেই। বর্তমানে দলে উপরের দিকের ব্যাটসম্যানরা নিয়মিত রান করছেন বলে হার্দিক পান্ডিয়া কোন সমস্যায় পড়ছেন না, কারন তিনি যখন ব্যাটিং করতে নামেন তখন দল ভাল অবস্থানে থাকে। কিন্তু তিনি যদি ব্যাটিং কৌশলে উন্নতি না করেন তাহলে দ্রুত দু তিন টি উইকেট পড়ে গেলে তিনি ছয় বা সাত নম্বরে ব্যাটিং করতে নামলে তাকে দীর্ঘ সময় ব্যাটিং করতে হবে, তখন সে সমস্যায় পড়বেন।

Nazmus Sajid

Sports Fanatic!

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *