শুক্রবার রাতে হয়েছিল যথেষ্ট হাঙ্গামা, ধোনির বোঝানোতেও মানেননি সুরেশ রায়না, ফিরলেন স্বদেশে 1

করোনা মহামারীর মধ্যে ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লীগের ফ্রেঞ্চাইজিগুলি আর বিসিসিআইয়ের জেদের কাওণে সংযুক্ত আরব আমিরাতে আইপিএলের এই মরশুমের আয়োজন ঠিক হয়েছে। আইপিএল ত্রয়োদশের শুরু ১৯ সেপ্টেম্বর থেকে হতে চলেছে। সমস্ত দলগুলি ইউএই-তে পৌঁছে গিয়েছে যেখানে কিছু দল কোয়ারেন্টিনে রয়েছে তো কিছু দিল প্র্যাকটিস শুরু করে দিয়েছে।

আইপিএল শুরুই হয়নি আর সিএসকের শিবিরে ১৩জন করোনা পজিটিভ

শুক্রবার রাতে হয়েছিল যথেষ্ট হাঙ্গামা, ধোনির বোঝানোতেও মানেননি সুরেশ রায়না, ফিরলেন স্বদেশে 2

বিশ্বজুড়ে করোনার সংকট শেষ হয়নি বরং বেড়েই চলেছে। এর পরিস্কার প্রভাব আইপিএলেও দেখতে পাওয়া যাচ্ছে। এখনো আইপিএল শুরুই হয়নি আর ধাক্কার পর ধাক্কা লেগেই চলেছে। দু’দিন আগে আইপিএলের সবচেয়ে পছন্দের দলগুলির মধ্যে একটি মহেন্দ্র সিং ধোনির নেতৃত্বাধীন চেন্নাই সুপার কিংসের দুই খেলোয়াড় সহ মোট ১৩জনকে করোনা সংক্রমিত পাওয়া গিয়েছে। যারপর সকলেই ভয়ের ছায়ার মধ্যে রয়েছেন।

সিএসকে-তে করোনা বিস্ফোরণের পর সুরেশ রায়না ফিরলেন ভারতে

শুক্রবার রাতে হয়েছিল যথেষ্ট হাঙ্গামা, ধোনির বোঝানোতেও মানেননি সুরেশ রায়না, ফিরলেন স্বদেশে 3

চেন্নাই সুপার কিংসের শিবিরের দুই খেলোয়াড় দীপক চাহার আর ঋতুরাজ গায়কোয়াড়ের সঙ্গেই দলের সাপোর্ট স্টাফদের বেশকিছু মানুষ করোনা সংক্রমিত হয়েছেন। এরপর সিএসকে-তে হইচই পড়ে যায়, যারপরই দলের সহঅধিনায়ক সুরেশ রায়না হঠাত করেই দেশে ফিরে আসেন। ভারতের প্রাক্তন ব্যাটসম্যান আর চেন্নাইয়ের সবচেয়ে উপযোগী খেলোয়াড়দের মধ্যে একজন সুরেশ রায়নার এইভাবে ভারতে ফিরে আসা আর আইপিএল থেকে নিজের নাম ফেরত নেওয়ার পর সকলেই এই ভাবনায় পড়ে যান যে কেনো তিনি এই সিদ্ধান্ত নিলেন।

করোনায় ভীত হয়েছেন রায়না, এই কারণে ছেড়েছেন ইউএই

শুক্রবার রাতে হয়েছিল যথেষ্ট হাঙ্গামা, ধোনির বোঝানোতেও মানেননি সুরেশ রায়না, ফিরলেন স্বদেশে 4

এখন এই বিষয় নিশ্চিত হয়ে গিয়েছে যে এবার সুরেশ রায়নার ব্যাটিংয়ের জাদু দেখা যাবে না। কিন্তু এখন প্রশ্ন সেটাই যে তিনি হঠাত করে আইপিএল থেকে সরে দাঁড়ানোর সিদ্ধান্ত কেনো নিয়েছেন তো এই ব্যাপারে খবর পাওয়া যাচ্ছে যে তিনি নিজের পরিবারের জন্ত সিএসকের দল ছেড়েছেন। টাইমস অফ ইন্ডিয়ার একটি সূত্রের অনুসারে বলা হয়েছে যে, “শুক্রবার রাতে, বাস্তবে যথেষ্ট হাঙ্গামা তৈরি হয়েছিল। তিনি নিজের সতীর্থদের,কোচকে, অধিনায়ককে বারবার ফোন করে নিজের চিন্তা শেয়ার করার চেষ্টা করেন। এমএস বাস্তবে ওকে বোঝানোর চেষ্টা করেছে কিন্তু কিছুই কাজে দেয়নি। ও ভীষণভাবে চিন্তিত ছিল। শেষমেশ সকলের এটাই অনুভব হয় যে ওর আবারও আসার কোনো মানে নেই, কারণ যথেষ্ট বেশি ভীত হয়ে পড়েছিল”।

suvendu debnath

কবি, সাংবাদিক এবং গদ্যকার। শচীন তেন্ডুলকর, ব্রায়ান লারার অন্ধ ভক্ত। ক্রিকেটের...

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *