আইপিএল ২০১৯: যে পাঁচজন বিদেশি ক্রিকেটারকে ছাড়ার কারণে আফসোস করতে হতে পারে আইপিএলের টীমদের কে 1

ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগ আইপিএল নিজেদের প্রমাণ করার বড় মঞ্চ হিসেবে মনে করেন ক্রিকেটাররা। শুধু দেশি ক্রিকেটারই নয় টুর্নামেন্টের জৌলুস বাড়াতে ফ্র্যাঞ্চাইগুলো নির্দিষ্ট পরিমাণে কিনে থাকে বিদেশি ক্রিকেটারদেরকেও। শর্ত মেনেই কোনো ফ্র্যাঞ্চাইজি ক্রিকেটারকে দলে রাখতে না চাইলে নিলামের আগে ছেড়ে দিতে হয় নিলামে অন্য দল যাতে কিনে নিতে পারে।

এমনই পাঁচজন বিদেশি ক্রিকেটারের তালিকা এবার দেখে নেয়া যাক যাদের নিলামের জন্য ছেড়ে দেয়ার ফলে একটু আফসোস করতেই পারে ফ্র্যাঞ্চাইজিগুলো

 

১। ক্রিস গেইল (রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালুরু)

আইপিএল ২০১৯: যে পাঁচজন বিদেশি ক্রিকেটারকে ছাড়ার কারণে আফসোস করতে হতে পারে আইপিএলের টীমদের কে 2

টি-২০ ক্রিকেটে সর্বাধিক সেঞ্চুরি (১৮), সর্বাধিক ফিফটি (৬৫), সর্বাধিক চার (৮০৪, সর্বাধিক ছক্কা (৭৭২) এবং সর্বাধিক রানের ইনিংস (১৭৫ রান) সবগুলো রেকর্ডই ক্রিস গেইলের।

অন্যদিকে আইপিএলে ২০১১-২০১৭ সাল পর্যন্ত রয়্যাল চেলেঞ্জার্স বেঙ্গালোরের হয়ে ১০২ ম্যাচে ৪১.৩০ গড়ে ব্যাট হাতে ৫টি সেঞ্চুরি এবং ২১টি হাফ সেঞ্চুরির সাহায্যে করেছেন ৩৬৩৭ রান।

তবে ২০১৮ আসরের নিলামে তাঁকে ছেড়ে দেয় বেঙ্গালোর। নিলাম থেকে ২ কোটি রুপির বিনিময়ে তাঁকে দলে ভেড়ায় কিংস ইলেভেন পাঞ্জাব। পাঞ্জাবের জার্সি গায়ে ৬৬ বলে ১০৪ রানের ইনিংস সহ পুরো আসরে সেঞ্চুরি হাঁকান ৬টি। ফলে বেঙ্গালোরের কষ্ট একটু বাড়তেই পারে।

২। অ্যারন ফিঞ্চ (দিল্লি ক্যাপিটালস)

আইপিএল ২০১৯: যে পাঁচজন বিদেশি ক্রিকেটারকে ছাড়ার কারণে আফসোস করতে হতে পারে আইপিএলের টীমদের কে 3

জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে টি-২০ ম্যাচে ১৭২ রানের ইনিংস খেলে আন্তর্জাতিক টি-২০তে রেকর্ড গড়া ফিঞ্চকে ২০১১ সালে কিনে নেয় দিল্লি। ২০১১ সালে দিল্লির হয়ে পাঁচ ম্যাচে রান করেন মাত্র ৪৭। এবং ২০১২ সালে একই দলের হয়ে তিন ম্যাচে মাঠে নেমে ব্যাট হাতে করেন মাত্র ৫৪ রান।

তবে ২০১৩ সালে পুনে ওয়ারিয়ার্সের হয়ে ১৪ ম্যাচে মাঠে নেমে ব্যাট হাতে ঝড় তুলে করেন ৪৫৭ রান। তাঁর জন্য দিল্লি কিছুটা হলেও আফসোস করতে পারে।

৩। সাকিব আল হাসান (কলকাতা নাইট রাইডার্স)

আইপিএল ২০১৯: যে পাঁচজন বিদেশি ক্রিকেটারকে ছাড়ার কারণে আফসোস করতে হতে পারে আইপিএলের টীমদের কে 4

বিশ্বের সেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান কলকাতার দুইবার ট্রফি জয়ের (২০১২, ২০১৪) ক্ষেত্রে অবদান রেখেছিলেন অনেকটাই। তবে ২০১৭ সালের পর নিলামে তাঁকে ছেড়ে দেয় কলকাতার ফ্র্যাঞ্চাইজি। নিলাম থেকে ২ কোটি রুপির বিনিময়ে এই অলরাউন্ডারকে দলে নেয় সানরাইজার্স হায়দ্রাবাদ। হায়দ্রাবাদের হয়ে কোয়ালিফাইয়ার ম্যাচে ব্যাট হাতে মূল্যবান ২৮ রান করার পাশপাশি চার ওভার বল করে মাত্র ১৭ রানের বিনিময়ে ব্রেক থ্রু এনে দেন সাকিব। তাঁর জন্যে শাহরুখ খানের দল কিছুটা হলেও হতাশা প্রকাশ করবে।

৪। গ্লেন ম্যাক্সওয়েল (মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স)

আইপিএল ২০১৯: যে পাঁচজন বিদেশি ক্রিকেটারকে ছাড়ার কারণে আফসোস করতে হতে পারে আইপিএলের টীমদের কে 5

বিগ ব্যাশে আট ম্যাচে ১৩৮.২৫ স্ট্রাইক রেটে ২১৪ রান করেছেন অজি অলরাউন্ডার গ্লেন ম্যাক্সওয়েল। অন্যদিকে আন্তর্জাতিক টি-২০তে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ৬৫ বলে খেলেছেন ১৪৫ রানের অগ্নিঝরা ইনিংস।

২০১৩ সালে ৫.৩ কোটি রুপির বিনিময়ে মুম্বাইয়ে নাম লেখানোর পর চার ম্যাচে মাত্র ৪২ রান করেন তিনি। পরের বছর কিংস ইলেভেন পাঞ্জাবের হয়ে ১৬ ম্যাচে ১৮৭.৯৫ স্ট্রাইক রেটে ৫৫৪ রান আসে তাঁর ব্যাট থেকে।

৫। অ্যান্ড্রু টাই (চেন্নাই সুপার কিংস)

আইপিএল ২০১৯: যে পাঁচজন বিদেশি ক্রিকেটারকে ছাড়ার কারণে আফসোস করতে হতে পারে আইপিএলের টীমদের কে 6

২০১৫ সালে চেন্নাইর জার্সি গায়ে মাঠে নামার কথা থাকলেও নিষেধাজ্ঞার কারণে পরের বছর গুজরাট লায়ন্সে যোগ দেন তিনি। ২০১৭ সালে গুজরাটের হয়ে পাঁচ ম্যাচে ১৩ উইকেট নেন এই বোলার। অন্যদিকে পরের বছর কিংস ইলেভেন পাঞ্জাবে যোগ দিয়ে ১৪ ম্যাচে উইকেট নেন ২৪টি।

Nazmus Sajid

Sports Fanatic!

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *