মুম্বইয়ের বিরুদ্ধে জিতে প্রফুল্ল পুনে এই বোলার, এই ম্যাচের নায়ক কী বলল দেখে নিন 1

আইপএল ২০১৭-র শুরুটা রাইসিং পুনে সুপারজায়ান্টের পক্ষে ভাল না হলেও এবার তাঁরা নিজেদের আসল গতি ধরে ফেলেছে। সোমবার মুম্বই ইন্ডিয়ান্সকে তাদের ঘরের মাঠে হারিয়ে এই লিগের অন্যন্য দলগুলিকে কঠিন প্রতিযোগীতার মধ্যে ফেলে দিয়েছে। প্রথম ম্যাচে মুম্বইয়ের বিরুদ্ধে জয় দিয়েই শুরু করেছিল পুনে। কিন্তু তারপর মাঝের সময়টা বেশ খারাপ গিয়েছে তাদের। তবে মুম্বইকে হারিয়ে পর পর তিনটি ম্যাচে জেতার পর আপাতত পয়েন্ট তালিকার উপরের দিকে চলে গিয়েছে এই দল।

আইপিএল ২০১৭ঃ ইডেনে জেতার পর দেখা গেল নাইটদের ঔদ্ধত্ব্য, কী বললেন নাইট অধিনায়ক?

দারুণ ফর্মে থাকা মুম্বইয়ের বিরুদ্ধে তাদের ঘরের মাঠেই জেতাটা সহজ কখনই ছিল না। প্রথমে ব্যাট করতে নেমে পুনে ১৬০ রান তোলে। যা মুম্বইয়ের মত মজবুত ব্যাটিং লাইনআপের পক্ষে খুব একটা কঠিন ছিল না। তবে রাইসিং পুনের দুই বোলারের জন্য এই ম্যাচটা কার্যত নাকের ডগা দিয়ে বেরিয়ে গেল মুম্বইয়ের। জয়দেব উনাদকট ও বেন স্টোকস। এই ম্যাচে নায়ক এই দুই বোলার।

এই ম্যাচের মূল টার্নিং পয়েন্টটা আসে বেন স্টোকসের স্পেলে। প্রথম থেকে কম রান দিয়ে মুম্বইকে চাপে ফেলে দেয় পুনে। পরে ক্রমাগত উইকেট পতন হওয়ায় সেই কাজটা আরও কঠিন হয়ে যেতে থাকে। পরে ১৯ ও ২০ ওভার দুটিতেই ম্যাচের রূপ বদলে যায় পুরো। কারণ ১৯ ওভারে বল করতে এসে মাত্র ৭ রান দিয়েছিল স্টোকস। রোহিত শর্মা তখন অর্ধশতরান করে ক্রিজে থাকলেও বিশেষ কিছু করতে পারেননি। ফলে শেষ ওভারে জেতার জন্য ১৭ রান বাকি ছিল। এই ওভারের প্রথম বলেই হার্দিক পান্ডিয়াকে আউট করে বাঁহাতি জয়দেব। তখনই ম্যাচের ফল বেরিয়ে আসে কিছুটা।

ম্যাচের শেষে জয়দেব বলেন, “এই জয়টা আমাদের জন্য খুবই দরকার ছিল। এরফলে আমরা এই লিগে একটা গতি পেয়েছি। বিশেষ করে মুম্বই ইন্ডিয়ান্সকে মুম্বইয়ের মাঠেই হারানো বিশাল একটা আত্মবিশ্বাস জোগাবে আমাদের। আজ আমাদের বোলাররা একজোটে বল করেছে। তাই উইকেট নিতেও সক্ষম হয়েছে। এটা গোটা দলের জন্য খুবই ভাল।”

দলের কর্ণধারের বিপক্ষে হেঁটে ধোনিকে নিয়ে যা বললেন প্রধাণ কোচ, জানলে অবাক হবেন

শেষ ওভারে ১৭ রান বাকি থাকলেও পুনে খুব একটা ভাল জায়গায় ছিলনা। কারণ প্রথম বলে হার্দিক আউট হয়ে যাওয়ার পরের বলেই ওভার বাউন্ডারি মারেন রোহিত। এরপর রোহিতকে আউট করে কার্যত মুখের ভিতর হাত ঢুকিয়ে জয় ছিনিয়ে আনে পুনে। এবং সৌজন্যে উনাদকটের শেষ ওভারে দারুণ বোলিং।

এই বাঁহাতি বোলার বলেন, “বেন স্টোকস ১৯ ওভারে মাত্র ৭ রান দিয়ে পটভূমিটা তৈরি করে দিয়েছিল। দলের বৈঠকে আমরা ঠিকই করেছিলাম আমাদের শক্তি অনুযায়ী আমরা বল করব। এবং তাই করেছি। এই উইকেটে বল আটকে আটকে আসছিল ব্যাটে। ফলে বোলারদের জন্য বেশ সাহায্য হয়েছে।”

তিনি আরও বলেন, “এদিন আমার মনে হয়েছিল আমি দলের জন্য বিশেষ কিছু করতে পারি। কিছু কিছু দিন থাকে যখন খেলোয়াররা মনে করে তারা একা। আমি আমার শক্তি বুঝেই বল করেছি। অনেক কাটার প্রয়োগ করেছি। এছাড়া আমাদের ফিল্ডিংও সঠিকভাবে সাজানো হয়েছিল।”

“যখন আমি হার্দিকের উইকেটটা পাই তখন আমি অনুভব করি যে আমি আমার দলের জন্য কিছু একটা করতে পারলাম। আমি খুব খুশি এরজন্য। এই ওভারটা খুবই নাটকীয় একটা ওভার ছিল। যেখানে একটি খুব কাছাকাছি আউটের আপিল ও মাটিতে আছড়ে পড়ে একটি ক্যাচ নিতে হয়েছে।”

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *