রোডিজ রাইজিংয়ে বিচারকের ভূমিকায় হরভজন 1
'মজাক মজাক মে' শোয়ে বিচারকের ভূমিকায় ছিলেন হরভজন। পাশে প্রাক্তন পাক পেসার শোয়েব অাখতার।

মুম্বই: ফের প্রত্যাবর্তন ঘটতে চলেছে হরভজন সিংয়ের। ক্রিকেট মাঠে নয়, অপাতত বিচারকের ভূমিকায় ফের ছোটো পর্দায় ফিরছেন তিনি।এমিটিভি’র বিখ্যাত রিয়েলিটি শো রোডিজের পরবর্তী সংস্করণে বিচারকের হটসিটে দেখা যাবে ভারতীয় এই অফস্পিনারকে। রোডিজ রাইজিংয়ে হরভজন ছাড়াও বিচারকের ভূমিকায় থাকবেন নেহা ধুপিয়া। বি-টাউনের প্রখ্যাত এই অভিনেত্রীকে গত মরশুমেও রোডিজের বিচারকের ভূমিকায় দেখা গিয়েছিল।

তবে ছোটো পর্দায় বিচারকের ভূমিকায় ভারতীয় স্পিনারের আবির্ভাব প্রথমবার নয়। এর আগেও টিভিতে কমেডি শো- ‘মজাক মজাক মে’ শোয়ের বিচারক ছিলেন ভাজ্জি। স্পোর্টস পারসন্যালিটি হিসেবে হরভজন খুবই জনপ্রিয় একটা ব্যক্তিত্ব। রোডিজের মতো জনপ্রিয় রিয়েলিটি শোয়ের সঙ্গে যু্ক্ত হতে পেরে বেশ ভালোই লাগছে ভারতীয় অফস্পিনারেরে। অবশ্য স্পোর্টস পারসন্যালিটি হিসেবে হরভজন প্রথম ব্যক্তি নন। গতবার জনপ্রিয় সঞ্চালক রণবিজয় সিংয়ের সঙ্গে রোডিজে বিচারকের ভূমিকায় দেখা গিয়েছিল লন্ডন অলিম্পিকে রুপো জয়ী কুস্তিগীর সুশীল কুমারকে। যদিও অলিম্পিক প্রস্তুতি সারতে সুশীলকে শোয়ের মাঝপথেই বেরিয়ে যেতে হয়।

তবে ভারতীয় স্পিনারকে নিয়ে অাশাবাদী শোয়ের সঙ্গে জড়িত থাকা বাকি কলাকুশীলবরা। এবার রোডিজ রাইজিংয়ে ্স্পাের্টস সেলিব্রিটিদের তালিকায় যু্ক্ত হল টার্বুনেটরের নাম। জনপ্রিয় এই রিয়েলিটি শোয়ের প্রশংসা করে ভাজ্জি বলেন, “এখনকার তরুণ প্রজন্মই আমাদের দেশের ভবিষ্যত। আর ‘রোডিজ’ এই প্রজন্মের সবচেয়ে জনপ্রিয় রিয়েলিটি শো। তবে রোডিজ শুধু সাধারণ রিয়েলিটি শো নয়। তরুণ প্রজন্মের কাছে এটা একটা লাইফস্টাইল। এই শোয়ে তরুণদের সামনে অনেক কিছু প্রমাণ করার থাকে। শক্তি, সাহস, রোমাঞ্চ ও কঠোর পরিশ্রমের মিলিত সমার্থক হচ্ছে ‘রোডিজ’ এবং এগুলোই এই শো নিয়ে আমার উত্তেজনার কারণের জন্য যথেষ্ট। আমি এখন থেকেই একশো কুড়ি কোটি দেশের নতুন প্রজন্মের মুখোমুখি হওয়ার জন্য মুখিয়ে রয়েছি।”

তবে রোডিজের নতুন সংস্করণ ‘রোডিজ রাইজিং’-এর শুটিং এখনও শুরু হয়নি। খুব শীঘ্রই শোয়ের কলাকুশলীদের সঙ্গে দেখা করবেন বলে জানিয়েছেন টেস্ট ক্রিকেটে চারশো উইকেটের মালিক হরভজন।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *