গৌতম গম্ভীর আর শাহিদ আফ্রিদি কাশ্মীরের আর্টিকেল ৩৭০ পরিবর্তন নিয়ে টুইটার যুদ্ধে মাতলেন

ভারত সরকার কাল কাশ্মীরের সমস্যা শেষ করার জন্য একটি বড়ো পদক্ষেপ নিয়েছে। যেখানে তারা জম্মু আর কাশ্মীরকে বিশেষ রাজ্যের তকমা দেওয়া আর্টিকেল ৩৭০কে সরিয়ে দিয়েছে। যারপর পাকিস্তানেও এই বিষয় নিয়ে হইচই লেগে গিয়েছে। যা নিয়ে পাকিস্তানের প্রাক্তন ক্রিকেটার শাহিদ আফ্রিদি নিজের রায় দিয়েছেন, গৌতম গম্ভীরও এরপর জবাব দেন আফ্রিদিকে।

গম্ভীর শাহিদ আফ্রিদিকে দিলেন জবাব

গৌতম গম্ভীর আর শাহিদ আফ্রিদি কাশ্মীরের আর্টিকেল ৩৭০ পরিবর্তন নিয়ে টুইটার যুদ্ধে মাতলেন 1

সংসদে যেমনই জম্মু কাশ্মীরের সঙ্গে যুক্ত আর্টিকেল ৩৭০ হাটিয়ে দেওয়ার প্রস্তাব পেশ হয় সঙ্গে সঙ্গে পাকিস্তানের মানুষ এই বিষয়টি নিয়ে নিজেদের প্রতিক্রিয়া দিতে শুরু করেন। যার মধ্যে পাকিস্তানের প্রাক্তন ক্রিকেটার শাহিদ আফ্রিদিও নেমে পোড়েন আর তিনি ভারত সরকারের এই সিদ্ধন্তকে কাশ্মীরের উপর বড়ো অত্যাচার বলে উল্লেখ করেন।
সেই সঙ্গে তিনি ইউনাইটেড নেশনকে এই বিষয় নিয়ে কিছু না বলার কারণে নিশানা বানান। যে কারণে ভারতীয় দলের প্রাক্তন খেলোয়াড় আর বিজেপি সাংসদ গৌতম গম্ভী এর জবাব দেন, আর পাক অধিকৃত কাশ্মীরের কথা তুলে শাহিদ আফ্রিদিকে একহাত নেন।

আফ্রিদিকে গৌতম গম্ভীর বললেন “বেটা”

গৌতম গম্ভীর আর শাহিদ আফ্রিদি কাশ্মীরের আর্টিকেল ৩৭০ পরিবর্তন নিয়ে টুইটার যুদ্ধে মাতলেন 2

শাহিদ আফ্রিদির এই বয়ানের পর গৌতম গম্ভীর এর জবাব দিয়ে নিজের সোশ্যাল মিডিয়ায় পোষ্ট করেন আর বলেন যে,

“আফ্রিদি আরো একবার ফের হাজির, বিনা কোনো কারণে অকারণ আক্রমণের সঙ্গে। এটা মানবতার বিরুদ্ধে অপরাধ। উনি অনেক কিছুই বলেছেন, কিন্তু তিনি ভুলে গিয়েছেন যে পিওকেতে কি হচ্ছে। চিন্তা করো না, এটারও সমাধন করব ‘বেটা’”।

এর আগে গৌতম মোদি সরকারকে আর্টিকেল ৩৭০ সরানোর জন্য শুভেচ্ছা জানান আর বলেন যে,

“যা কেউ করতে পারেননি সেটা আমরা করে দেখিয়েছি। কাশ্মীরেও আমাদের তিরঙ্গা উড়িয়েছি। জয় হিন্দ! ভারত শুভেচ্ছা! কাশ্মীর শুভেচ্ছা!”

এই খেলোয়াড়দের মধ্যে আগেই থেকেছে টেনশন

গৌতম গম্ভীর আর শাহিদ আফ্রিদি কাশ্মীরের আর্টিকেল ৩৭০ পরিবর্তন নিয়ে টুইটার যুদ্ধে মাতলেন 3

এমনটা নয় যে প্রথমবার গৌতম গম্ভী শাহিদ আফ্রিদিকে জবাব দিলেন। এর আগেও বেশ কয়েকবার শাহিদ আফ্রিদি কাশ্মীর নিয়ে উল্টোপাল্টা বয়ান দিয়েছেন যার জবাব দিয়েছিলেন গৌতম গম্ভীর। মাঠে খেলার সময়ও এই দুই খেলোয়াড়ের মধ্যে সবসময়ই বাকবিতন্ডা হত।

Leave a comment

Your email address will not be published.