বর্তমানে বিরাট কোহলি ও রবি শাস্ত্রীর টিম ইন্ডিয়াতে তারকা ওপেনার গৌতম গম্ভীরের কোনও জায়গা না হলেও, এনিয়ে কোনও দ্বিমত নেই যে ২০০৭ সালে টি-২০ বিশ্বকাপ এবং ২০১১ সালে পঞ্চাশ ওভারের বিশ্বকাপ জয় গোতি ছাড়া হালে পানি পেতো না। তাঁর বর্ণময় আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কেরিয়ারে ভারতীয় দলের এই তারকা ওপেনার গ্লেন ম্য়াকগ্রাথ, শেন ওয়ার্ন, মুথাইয়া মুরলিধরনের মতো কিংবদন্তি বোলারদের মোকাবিলা করার পাশাপাশি ডেল স্টেইনের মতো তারকা স্পিডস্টারের বিরুদ্ধে খেলেছেন। সবকটি নামই নিজেদের সময়ে বিশ্বত্রাস ছিলেন। তবে, গোতিকে এরমধ্য়ে কোনও নামই ভয় দেখাতে পারেননি। তাঁর মতে দক্ষিণ আফ্রিকায় মর্নি মর্কেল তাঁকে সবচেয়ে বেশি বেগ দিয়েছিলেন। গম্ভীর মর্কেলকে বেশ সমীহ করেন।
দেশের হয়ে নিজের অধিনায়কত্ব গুন দেখানোর সুযোগ না পেলেও, নেতা গম্ভীর কতটা চৌখস, তা আইপিএলে কলকাতা নাইট রাইডার্সকে একাধিকবার চ্য়াম্পিয়ন করে দেখিয়ে দিয়েছেন গোতি। সৌরভ গাঙ্গুলিকে অধিনায়কত্ব থেকে সরানোর পর শাহরুখের দলের ব্য়াটন তাঁর হাতেই রয়েছে। মর্নি মর্কেলের বোলিং ক্ষমতাকে এতোটাই সমঝে চলেন গোতি যে কেকেআর টিমেও তাঁকে নিয়ে এসেছেন তিনি। দলের সাফল্য়ে তা কতটা কাজে লেগেছে, তা নতুন করে বলার দরকার পড়ে না।
‘ব্রেক ফাস্ট উইথ চ্য়াম্পিয়ন্স’ শীর্ষক অনুষ্ঠানের একটি পর্বে ভারতের বিশ্বকাপ জয়ের অন্য়তম নায়ক জানান, যে দক্ষিণ আফ্রিকার ডান-হাতি পেস বোলারকে খুব ভয় পেতেন তিনি। অনুষ্ঠানের সঞ্চালক গৌরব কাপুর তাঁর দিকে প্রশ্ন ছুঁড়ে দিয়েছিলেন, ”আচ্ছা, ক্রিকেট মাঠে সবচেয়ে ভয়ঙ্কর বোলার কাকে মনে হয়েছিল খেলতে গিয়ে, সেরকম কেই আছে বা কয়েক জন এমন কেউ?” কোনওরকম ভাবনা-চিন্তা না করেই গোতি জবাব দেন, ”দক্ষিণ আফ্রিকার মর্নি মর্কেল।” আলোচনার সময় এ প্রশ্নও উঠে আসে, মর্কেলকে খেলতে কি খুব অসুবিধে হতো? তাতে কেকেআর দলনায়ক জানান, ”সেই কারণেই ওকে দলে এনেছি। সত্য়ি কথা বলতে কি, কেকেআর টিমে ওকে এই কারণেই আনা হয়েছে। আমার মতে যাদের বিরুদ্ধে আমি খেলেছি, ও তাদের মধ্য়ে সবচেয়ে কঠিন প্রতিদ্বন্দ্বী। ও যখন দিল্লির (ডেয়ারডেভিলস) হয়ে খেলত, তখন ওর বিরুদ্ধে ব্য়াট করার সময় আমার মাথায় একটাই কথা ঘোরাফেরা করত, ওকে যদি আমার দলে পেতাম। এরপর দিল্লি দলের সঙ্গে ওর চুক্তি শেষ হওয়ার পরই আমি বলেছিলাম, (কেকেআর টিমে) মর্নি মর্কেলকে চাই।”


অনুষ্ঠানের আলোচনা পর্বে আরও নানান বিষয়ও নিয়েও কথা বলেন, গোতি। যেমন, তিনি কেন এতো কম্পিটিশনে বিশ্বাস করেন, দেশের সেনাবাহিনীর প্রতি তাঁর অগাধ ভালোবাসা, স্লেজিং নিয়ে তাঁর বক্তব্য়, ইত্য়াদি ইত্য়াদি প্রসঙ্গ। গম্ভীর বলেন, ”শনি ও রবিবার বন্ধুদের সঙ্গে ক্রিকেট খেলা বাঁধা ছিল আমার। আমি এই ধরনের পরিবেশেই বড় হয়েছি। রবিবার অপরাজিত থেকে খেলা শেষ করতে পারলে, পরের শনিবার এলেই ব্য়াটিং জুটত। আর না পারলে আবার সেই রবিবার পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হতো। ব্য়াপারটা হলো আমি রান করতে ভালোবাসি। পরের সপ্তাহ এলেই যাতে সুযোগ কাজে লাগাতে পারি, তাই আমি অপরাজিত থেকে খেলা শেয করার দিকে মনোযোগ দিতাম। এই কারণেই আমার মধ্য়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে যাওয়ার অভ্য়েসটা রয়েছে। কারণ, আমি জানতাম, অপারজিত থেকে খেলা শেষ না করতে পারলে আমাকে পরের সপ্তাহে ফিল্ডিং করতে হবে। সারা সপ্তাহ ফিল্ডিং করার জন্য় অপেক্ষা করা মোটেই উৎসাহব্য়াঞ্জক নয়।”

SHARE

আরও পড়ুন

অ্যারণ ফিঞ্চ ভারত আসার আগে দিলেন হুঙ্কার, বললেন এই পরিকল্পনার অন্তর্গত ভারতকে তাদের মাটিতেই দেব মাত

গত রবিবারই অস্ট্রেলিয়ার সীমিত ওভারের অধিনায়ক অ্যারণ ফিঞ্চের নেতৃত্বে মেলোবর্ন রেনেগেডসের দল বিগব্যাশ লীগের খেতাব জিতেছিল। এখন...

এই বোলারের বিরুদ্ধে নন স্ট্রাইকার এন্ডে থাকা পছন্দ করেন বিরাট কোহলি, স্বয়ং করলেন খোলসা

ভারতীয় দলের অধিনায়ক বিরাট কোহলির জন্য এখনো পর্যন্ত ক্রিকেটের কেরিয়ার দুর্দান্ত থেকেছে। অধিনায়ক বিরাট কোহলি এখনো পর্যন্ত...

অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে সিরিজের আগে যুবরাজ সিংহের সঙ্গে ফুটবল খেলতে দেখা গেল মহেন্দ্র সিং ধোনিকে, ভিডিয়ো ভাইরাল

অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে সিরিজের আগে যুবরাজ সিংহের সঙ্গে ফুটবল খেলতে দেখা গেল মহেন্দ্র সিং ধোনিকে, ভিডিয়ো ভাইরাল
ভারতীয় দলকে অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে ২৪ ফেব্রুয়ারি থেকে দুটি টি-২০ আর তারপর ২ মার্চ থেকে পাঁচটি ওয়ানডে ম্যাচের...

সেহবাগ,ধবনের পর শহিদদের পরিজনদের সাহায্যের জন্য এগিয়ে এলেন মহম্মদ শামি

সেহবাগ, ফজল আর ধবনের পর শহিদদের পরিজনদের সাহায্যের জন্য এগিয়ে এলেন মহম্মা শামি
পুলওয়ামতে ১৪ ফেব্রুয়ারি সিআরপিএফদের জওয়ানদের উপর সন্ত্রাসী হামলা হয়েছিল। এতে ৪০ এরও বেশি জওয়ান শহিদ হয়েছেন। এটা...

জঙ্গি হামলা নিয়ে গম্ভীরের মন্তব্যের পাল্টা জবাব দিলেন আফ্রিদি !

জম্মু ও কাশ্মীরের পুলওয়ামা হামলায় ৪২ জন জওয়ান শহীদ হয়েছেন । আহত হয়েছেন অনেকেই, যারা এখন চিকিৎসাধিন...