ধোনির সাথে পার্টনারশিপ এর ব্যাপারে কি বললেন যুবরাজ? দেখে নিন...  1

চিরকাল ভারতীয় ক্রিকেটের অন্যতম সেরা ব্যাটসম্যানের তালিকায় প্রথম দিকে নাম থাকবে তাঁর। ২৮ বছর বাদে দেশকে দ্বিতীয়বার বিশ্বকাপ জয়ের স্বাদ চাঁখানোর কাজেও তিনি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছিলেন।আর আজ কটকে একটা কঠিন পরিস্থিতিতে টিম ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে দ্বিতীয় একদিনের ম্যাচে ১২৭ বলে ১৫০ রানের একটা মারকাটারি ইনিংস খেলে ভারতের স্কোরবোর্ড সমৃদ্ধ করলেন।তিনি যুবরাজ সিং।আর এদিনের এই ইনিংসকেই তিনি নিজের কেরিয়ারের অন্যতম সেরা ইনিংস বলে জানিয়ে দিলেন।

ইংল্যান্ডের বোলারদের খড়-কুটোর মতো উড়িয়ে ধোনি এবং যুবরাজ ২৫৬ রানের একটি লম্বা পার্টনারশিপ খেলেন যেখানে ধোনি একদিনের দলের নেতৃত্ব ছেড়ে দেওয়ার পরই ১২২ বলে ১৩৪ রানের ইনিংস খেলে ফেলেন, সেখানে যুবিও প্রায় ছ’বছর পর শতরান হেঁকে কঠিন সময়ে দলের ভিত মজবুত করে ফেললেন।১২৭ বলে ১৫০ রানের যুবির চমকপ্রদ ইনিংসটি অবশ্য সাজানো ছিল ২১টি চার এবং ৩টি ছয় দিয়ে। এদিনের এই ১৫০ রানটি ছিল যুবরাজের একদিনের আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের সর্বোচ্চ ব্যাক্তি স্কোর।আর সে কারণে এদিনের এই ইনিংসটাকে নিজের কেরিয়ারের অন্যতম সেরা ইনিংস বলে জানালেন তিনি।

ম্যাচ শেষে এক প্রতিক্রিয়ায় পঞ্জাব কা পুত্তর যুবরাজ মুখে একরাশ স্বস্তি নিয়ে বলেন,

‘এটাই সম্ভাবত আমার কেরিয়ারের অন্যতম সেরা একটা ইনিংস। আমি শেষ সেঞ্চুরি করেছিলাম ২০১১ সালের বিশ্বকাপে। এদিনের ইনিংসটি খেলতে পেরে আমি সতি্য খুব খুশি হয়েছি।এই ম্যাচে আমি ধোনির সঙ্গে একটা লম্বা ইনিংস খেলতে চাইছিলাম।পাশাপাশি খুববেশি ঝুঁকিও নিতে চাইছিলাম না।সম্প্রতি ঘরোয়া ক্রিকেটে ধারাবাহিকভাবে খেলে যাওয়ার কারণে বোধহয় আজকের এই ইনিংসটা খেলার আত্মবিশ্বাস পেয়ে ছিলাম।’

একটু থেমে তিনি এদিনের ম্যাচে আরও একটি দূর্দান্ত ইনিংস খেলা ধোনির প্রসঙ্গে বলেন,

‘ধোনি সত্যি এদিন একটা অসাধারণ ইনিংস খেললো।ও আমাদের দলের মিডল অর্ডারে অন্যতম স্তম্ভ।পাশা্পাশি ধোনি একজন দারুণ অধিনায়কও।আজ ওকে খুব খোলা মনে ব্যাটিং করতে দেখলাম।এর আগেও আমি বলেছিলাম, মাহির কাঁধে যখন নেতৃত্বের চাপ থাকে না, তখন ও ব্যাট হাতে অসাধারণ পারফরম্যান্স করে। আর আজ মাঠে সেই প্রমাণটা পাওয়া গেল।’

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *